১২টি কোম্পানির শেয়ারে আগ্রহী প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী

0
3805

সিনিয়র রিপোর্টার : নিষ্প্রভ পুঁজিবাজার। তবুও কিছু কোম্পানির শেয়ার প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের আগ্রহের তালিকায় রয়েছে। বাড়ছে শেয়ার ধারণের পরিমাণ। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের ওয়েবসাইটে চলতি বছরের এপ্রিল মাসের (৩০ তারিখ) তুলনায় মে মাসের শেষে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের শেয়ার ধারণের সংখ্যা অনেক বেড়েছে।

কোম্পানিগুলো হলো- ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ (বিডি) লিমিটেড, আমরা টেকনোলজি, আলহাজ্ব টেক্সটাইল, এফএএস ফাইন্যান্স, ডোরিন পাওয়ার, ‍রিপাবলিক ইন্স্যুরেন্স, বিডিকম অনলাইন,  সি অ্যান্ড এ টেক্সটাইল, ইসলামি ব্যাংক বাংলাদেশ, ফু-ওয়াং সিরামিক,  মোজাফফর হোসেন স্পিংনিং, প্যারামাউন্ট ইন্স্যুরেন্স, ইনটেক লিমিটেডে, ফু-ওয়াং ফুড, ইভিন্স টেক্সটাইল এবং মালেক স্পিনিং।

ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ (বিডি) লিমিটেড : বিদেশি প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের শেয়ার সংখ্যার কোন পরিমাণ ছিল না। সেখানে ৩১ মে পর্যন্ত প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর শেয়ার ধারণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১২.১৮ শতাংশ। যা অনেকের কাছে বিস্ময়!

আমরা টেকনোলজিতে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের শেয়ার ধারণের চিত্র

আমরা টেকনোলজি : প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের শেয়ার সংখ্যার পরিমাণ ছিল ১৬.২৪ শতাংশ। সেখানে ৩১ মে পর্যন্ত প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর শেয়ার ধারণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৪৩.৩৫ শতাংশ। কোম্পানিতে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর পরিমাণ বেড়েছে ২৭.১১ শতাংশ।

আলহাজ্ব টেক্সটাইল : প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের শেয়ার সংখ্যার পরিমাণ ছিল ৯.১৯ শতাংশ। ৩১ মে পর্যন্ত কোম্পানিতে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর শেয়ার ধারণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১৭.২৬ শতাংশ। অর্থাৎ প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর পরিমাণ বেড়েছে ৮.০৭ শতাংশ।

এফএএস ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেষ্টমেন্ট : প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের শেয়ার সংখ্যার পরিমাণ ছিল ২৪.৭৮ শতাংশ। সেখানে ৩১ মে পর্যন্ত এ কোম্পানিতে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর শেয়ার ধারণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৩০ শতাংশ। অর্থাৎ এ সময়ের মধ্যে এ কোম্পানিতে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর পরিমাণ বেড়েছে ৫.২২ শতাংশ।

ডরিন পাওয়ার জেনারেশনস অ্যান্ড সিস্টেমস লিমিটেড : প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের শেয়ার সংখ্যার পরিমাণ ছিল ৫.৪৫ শতাংশ। ৩১ মে পর্যন্ত কোম্পানিতে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর শেয়ার ধারণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১০.২২ শতাংশ। অর্থাৎ প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর পরিমাণ বেড়েছে ৪.৭৭ শতাংশ।

বিডিকম অনলাইন লিমিটেড : প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের শেয়ার সংখ্যার পরিমাণ ছিল ১৩.৮০ শতাংশ। ৩১ মে পর্যন্ত প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর শেয়ার ধারণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১৭.৯০ শতাংশ। অর্থাৎ প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর পরিমাণ বেড়েছে ৪.১০ শতাংশ।

সি অ্যান্ড এ টেক্সটাইল : প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের শেয়ার সংখ্যার পরিমাণ ছিল ১০.৬৭ শতাংশ। কোম্পানিতে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর শেয়ার ধারণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১৪.৪৯ শতাংশ। অর্থাৎ প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর পরিমাণ বেড়েছে ৩.৮২ শতাংশ।

ইসলামি ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড : প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের শেয়ার সংখ্যার পরিমাণ ছিল ৫.১৯ শতাংশ। প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর শেয়ার ধারণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৮.৯৩ শতাংশ। অর্থাৎ প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর পরিমাণ বেড়েছে ৩.৭৪ শতাংশ।

ফু-ওয়াং সিরামিক ইন্ডাষ্ট্রিজ : প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের শেয়ার সংখ্যার পরিমাণ ছিল ৩৪.৬০ শতাংশ। কোম্পানিতে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর শেয়ার ধারণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৩৭.০৫ শতাংশ। অর্থাৎ প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর পরিমাণ বেড়েছে ২.৪৫ শতাংশ।

মোজাফফর হোসেন স্পিংনিং মিলস : প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের শেয়ার সংখ্যার পরিমাণ ছিল ২৩.৫০ শতাংশ। সেখানে ৩১ মে পর্যন্ত প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর শেয়ার ধারণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ২৫.৮৯ শতাংশ। অর্থাৎ প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর পরিমাণ বেড়েছে ২.৩৯ শতাংশ।

ইনটেক লিমিটেড : প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের শেয়ার সংখ্যার পরিমাণ ছিল ১৭.৮৩ শতাংশ। ৩১ মে পর্যন্ত শেয়ার ধারণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ২০.০২ শতাংশ। অর্থাৎ প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর পরিমাণ বেড়েছে ২.১৯ শতাংশ।

মালেক স্পিনিং : প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের শেয়ার সংখ্যার পরিমাণ ছিল ২৯.৯৯ শতাংশ। প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর শেয়ার ধারণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৩১.৭৯ শতাংশ। অর্থাৎ বিনিয়োগকারীর পরিমাণ বেড়েছে ১.৮০ শতাংশ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here