সেকেন্ডরি মার্কেট থেকে ১৭ কোম্পানির আইপিওতে গেছে আড়াই হাজার কোটি টাকা

0
717

বিশেষ প্রতিনিধি : সেকেন্ডারি মার্কেট থেকে গত প্রায় এক বছরে আইপিও বাজারে চলে গেছে প্রায় আড়াই হাজার কোটি টাকা। বিগত ২০১০ সালের ধসের পর বাজার থেকে তারল্য কমছে অবিশ্বাস্য গতিতে। ২০১৩ সাল থেকে এখন পর্যন্ত ১৭ কোম্পানির মাধ্যমে সেকেন্ডারি মার্কেট থেকে বেরিয়ে গেছে ২ হাজার ৫২৯ কোটি টাকা। বৃহস্পতিবার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

বিনিয়োগকারীদের দেয়া তথ্যমতে, কিছু বিনিয়োগকারী শুধু আইপিওতে বিনিয়োগ করেন, তারা কখনো সেকেন্ডারিতে ব্যবসা করেন না। আর আইপিওতে বিজয়ী হতে পারলে তা সেকেন্ডারি মার্কেটে বিক্রি করে টাকা নিয়ে চলে আসে আর কখনো তারা সেকেন্ডারি মার্কেটে বিনিয়োগ করে না। এভাবেই আইপিওর মাধ্যমে সেকেন্ডারি বাজার থেকে টাকা চলে যাচ্ছে আইপিও বাজারে।

২০১৩ সালের জানুয়ারি থেকে এখন পর্যন্ত শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত হয় ২০ কোম্পানি। এর মধ্যে দুটি মিউচ্যুয়াল ফান্ড ও জেএমআই সিরিঞ্জ কোম্পানিটি সিএসই থেকে ডিএসইতে তালিকাভুক্ত হয়। আর বাকি ১৭টি কোম্পানি ৪৭ কোটি ৮৫ লাখ শেয়ার ছেড়ে বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে সংগ্রহ করে ১ হাজার ১১২ কোটি টাকা এবং এ শেয়ার বিজয়ীরা সেকেন্ডারি মার্কেটে তা বিক্রি করে তুলে নেয় ২ হাজার ৫২৯ কোটি টাকা।

সর্বশেষ তালিকাভুক্ত হওয়া এমারেল্ড অয়েল ২ কোটি শেয়ার ছেড়ে ১০ টাকা ফেস ভ্যালুতে কোম্পানিটি বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে নেয় ২০ কোটি টাকা। আর এ কোম্পানির আইপিও বিজয়ীরা ১০ টাকার শেয়ার ৫০ টাকায় বিক্রি করে সেকেন্ডারি মার্কেট থেকে তুলে নেয় ১০০ কোটি টাকা। এ ১০০ কোটি টাকা সেকেন্ডারি মার্কেট থেকে বেরিয়ে গেলো। এএফসি এগ্রো বায়োটেক ১ কোটি ২০ লাখ শেয়ার ছেড়ে ফেস ভ্যালুতে কোম্পানিটি সংগ্রহ করে ১২ কোটি টাকা। ১২ কোটি টাকার শেয়ার থেকে সেকেন্ডারি মার্কেটে আইপিও বিজয়ীরা তুলে নেয় ৭৮ কোটি টাকা।

মোজাফফর হোসাইন স্পিনিং ২ কোটি ৭৫ লাখ শেয়ার ছেড়ে কোম্পানিটি সংগ্রহ করে ২৭ কোটি ৫০ লাখ টাকা। অন্যদিকে এ শেয়ার সেকেন্ডারি মার্কেটে বিক্রি করে আইপিও বিজয়ীরা তুলে নেয় ১২৩ কোটি ৭৫ লাখ টাকা। এছাড়া ২০১৩ সালে ১৪ কোম্পানি তালিকাভুক্তির মাধ্যমে সেকেন্ডারি মার্কেট থেকে প্রাইমারিতে টাকা চলে যায়।

অ্যাপোলো ইস্পাতের মাধ্যমে ৩৮০ কোটি, প্যারামাউন্ট টেক্সটাইলের মাধ্যমে ১৫০ কোটি, বাংলাদেশ বিল্ডিং সিস্টেমসে ৬৩ কোটি টাকা, ফারইস্ট ফাইন্যান্স ৭২ কোটি টাকা, সেন্ট্রাল ফার্মা ৪৯ কোটি টাকা, ফ্যামিলিটেক্স ১৫৩ কোটি টাকা, বেঙ্গল উইন্ডসোর ৮৮ কোটি টাকা, ওরিয়ন ফার্মা ২৮০ কোটি টাকা, গ্লোবাল হেভি কেমিক্যাল ১২০ কোটি টাকা, গোল্ডেন হারভেস্ট ২২৫ কোটি টাকা, প্রিমিয়ার সিমেন্ট ১২৬ কোটি টাকা, আরগন ডেনিমস ২৪০ কোটি টাকা, সামিট পূর্বাঞ্চল পাওয়ার ১৮০ কোটি টাকা এবং সানলাইফ ইন্স্যুরেন্সের মাধ্যমে চলে যায় ১০২ কোটি টাকা।

গত প্রায় এক বছরে সেকেন্ডারি মার্কেট থেকে আইপিও বাজারে চলে গেছে প্রায় আড়াই হাজার কোটি টাকা। এভাবে যদি সেকেন্ডারি মার্কেট থেকে টাকা অন্যত্র চলে যায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here