সূচক বাজার মূলধন বাড়লেও কমেছে লেনদেন

0
428
ডেস্ক রিপোর্ট : পুঁজিবাজারে গত সপ্তাহে লেনদেন হওয়া ৪ কার্যদিবসের মধ্যে তিন কার্যদিবস মূল্যসূচক বেড়েছে। এক কার্যদিবস সূচক তুলনামুলক কম কমেছে। এছাড়া গত ৩১ ডিসেম্বর ব্যাংক হলিডের কারণে লেনদেন হয়নি। ফলে সপ্তাহ শেষে মূল্য সূচক বাড়লে টাকার অংকে লেনদেন কমেছে।সপ্তাহ শেষে ডিএসইর ব্রড ইনডেক্স বেড়েছে ২.৪৫ শতাংশ বা ১১৭ পয়েন্ট। আগের সপ্তাহ শেষে ডিএসইর ব্রড ইনডেক্স কমেছিল ০.৬৮ শতাংশ বা ৩২ পয়েন্ট।

সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবস অর্থাৎ রবিবার ডিএসইর ব্রড ইনডেক্স কমেছে ২২ পয়েন্ট, সোমবার বেড়েছে ১২ পয়েন্ট, মঙ্গলবার বেড়েছে ৫০ পয়েন্ট, বুধবার পুঁজিবাজারে লেনদেন হয়নি এবং বৃহস্পতিবার বেড়েছে ৭৬ পয়েন্ট।

রবিবার ডিএসইর ব্রড ইনডেক্স অবস্থান করে ৪৮০১ পয়েন্টে, সোমবার ৪৮১৪ পয়েন্টে, মঙ্গলবার ৪৮৬৪ পয়েন্ট এবং বৃহস্পতিবার অবস্থান করে ৪৯৪১ পয়েন্টে। শরিয়াহ সূচক সপ্তাহ শেষে ৩.১০ শতাংশ বা ৩৫ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ১১৭৪ পয়েন্টে।

আর ডিএসই-৩০ ইনডেক্স সপ্তাহ শেষে ৩.১৫ শতাংশ বা ৫৬ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ১৮৪৩ পয়েন্টে।

গত সপ্তাহে ডিএসইতে টাকার অংকে লেনদেন কমেছে ৬.৬৬ শতাংশ বা ৫৯ কোটি ৮৫ লাখ ৫ হাজার ৯৫০ টাকা। আগের সপ্তাহে ডিএসইতে টাকার অংকে লেনদেন কমেছিল ৫.৮৫ শতাংশ বা ৫৫ কোটি ৯০ লাখ ১০ হাজার ৮৮ টাকা।

সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৮৩৯ কোটি ২৭ লাখ ৭৭ হাজার ৬২ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। আগের সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে লেনদেন হয়েছিল ৮৯৯ কোটি ১২ লাখ ৮৩ হাজার ১২ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট।

গত সপ্তাহের প্রতি কার্যদিবস ডিএসইতে দৈনিক গড় শেয়ার লেনদেন কমেছে ৬.৬৬ শতাংশ বা ১৪ কোটি ৯৬ লাখ ২৬ হাজার ৪৮৭ টাকা। আগের সপ্তাহের প্রতি কার্যদিবস ডিএসইতে দৈনিক গড় শেয়ার লেনদেন কমেছিল ৫.৮৫ শতাংশ বা ১৩ কোটি ৯৭ লাখ ৫২ হাজার ৫২২ টাকা।

গত সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে মোট শেয়ার লেনদেন হয়েছে ২১ কোটি ২৫ লাখ ৭৬ হাজার ৩১৬টি। আগের সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে মোট শেয়ার লেনদেন হয়েছিল ২৩ কোটি ২৪ লাখ ৬৪ হাজার ৯২২টি। অর্থাৎ শেয়ারের হিসাবে লেনদেন কমেছে ৮.৫৬ শতাংশ বা ১ কোটি ৯৮ লাখ ৮৮ হাজার ৬০৬টি।

সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবস রবিবার লেনদেন হয়েছিল ১৫৬ কোটি ৭৪ লাখ ৪১ হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট, সোমবার ১৮৯ কোটি ৫৮ লাখ ৩৩ হাজার টাকা, মঙ্গলবার ২৬৫ কোটি ৪০ লাখ ৯৫ হাজার টাকা ও বুধবার লেনদেন হয়নি এবং বৃহস্পতিবার লেনদেন হয়েছিল ২২৭ কোটি ৫৪ লাখ ৯ হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট।

সপ্তাহজুড়ে লেনদেন হওয়া ৩১৭টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ২৩১টির, কমেছে ৫৮টির, দর অপরিবর্তিত রয়েছে ২৪টির এবং লেনদেন হয়নি ৪টি কোম্পানির শেয়ার।

গত সপ্তাহে ডিএসইর বাজার মূলধন বেড়েছে ৫ কোটি ৬৯১ কোটি ৯ লাখ ৩৩ হাজার ১৫৮ টাকা বা ০.৭৬ শতাংশ। আগের সপ্তাহে ডিএসইর বাজার মূলধন বেড়েছিল ৩২৯ কোটি ৬৪ লাখ ২৯ হাজার ৩৮৮ টাকা বা ০.১০ শতাংশ।

সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবস বাজার মূলধন ছিল ৩ লাখ ২৩ হাজার ৬৬৫ কোটি ৫৪ লাখ ৫৩ হাজার ৭৯৭ টাকা এবং শেষ কার্যদিবসে বাজার মূলধন ছিল ৩ লাখ ২৯ হাজার ৩৫৬ কোটি ৬৩ লাখ ৮৬ হাজার ৯৫৫ টাকা।

গত সপ্তাহে ডিএসইতে ‘এ’ ক্যাটাগরির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৮২.৫৪ শতাংশ, ‘বি’ ক্যাটাগরির ৩.৭৪ শতাংশ, ‘এন’ ক্যাটাগরির ৬.১৫ শতাংশ এবং ‘জেড’ ক্যাটাগরির ৭.৫৮ শতাংশ। আগের সপ্তাহে সপ্তাহে ডিএসইতে ‘এ’ ক্যাটাগরির শেয়ার লেনদেন হয়েছিল ৮২.৭৯ শতাংশ, ‘বি’ ক্যাটাগরির ৩.২৫ শতাংশ, ‘এন’ ক্যাটাগরির ৭.৩৬ শতাংশ এবং ‘জেড’ ক্যাটাগরির ৬.৬৯ শতাংশ।

সপ্তাহশেষে অপর পুঁজিবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সাধারণ মূল্যসূচক বেড়েছে ১.৬২ শতাংশ বা ১৪৬ পয়েন্ট। আগের সপ্তাহশেষে সিএসইর সাধারণ মূল্যসূচক কমেছিল ০.৯১ শতাংশ বা ৮৩ পয়েন্ট।

সপ্তাহ শেষে সিএসইর সিএসসিএক্স মূল্যসূচক অবস্থান করছে ৯১৬৫ পয়েন্টে। আগের সপ্তাহ শেষে অবস্থান করে ৯০১৯ পয়েন্টে।

সপ্তাহজুড়ে সিএসইতে লেনদেন হওয়া ২৬৮টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ১৬৮টির, কমেছে ৬৬টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৬টি কোম্পানির শেয়ার দর।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here