সূচকের মিশ্র প্রবণতা : উভয় পুঁজিবাজারে মোট লেনদেন ৭৩৬ কোটি টাকা

0
375
স্টাফ রিপোর্টার : দেশের উভয় পুঁজিবাজারে সূচকের মিশ্র প্রবণতা দেখা গেছে। দিনব্যাপী সূচক ওঠানামার মধ্য দিয়ে লেনদেন শেষ হয়েছে। মঙ্গলবার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) ৬৯০ কোটি ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) লেনদেন হয়েছে৪৬ কোটি টাকা। উভয়পুঁজিবাজারে লেনদেন হয়েছে মোট ৭৩৬ মোট টাকা।
বাজার পর্যবেক্ষণে দেখা যায়, সূচকের উর্ধ্বমুখী প্রবণতায় দিনের কার্যক্রম শুরু হয়ে তা বেলা দুইটা পর্যন্ত বজায় থাকে। তবে দুপুর ১টার পর থেকেই বাজার নিম্নগামী হতে থাকে। শেষ পর্যন্ত দুই বাজারে দুই রকম চিত্রে লেনদেন শেষ হয়েছে।
বাজারসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা জানিয়েছেন, বিক্রি চাপ বাড়ার কারণেই বাজারের এমন অবস্থা। মুনাফালোভী এক শ্রেণীর বিনিয়োগাকারী অস্থিরতা সৃষ্টির জন্য বাজারে বিক্রি চাপ বাড়াচ্ছে। তাদের অনৈতিক আচরণের কারণেই বাজার পুনরায় অস্থিতিশীল হয়ে ওঠছে। তাদের মতে, এ সময় সর্তকতার সঙ্গে লেনদেন করতে হবে।
এদিকে, মঙ্গলবার সপ্তাহের তৃতীয় কার্যদিবসে প্রধান দুই শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ(ডিএসই) এবং চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে(সিএসই) লেনদেন শেষ হয়েছে সূচকের ভিন্ন ভিন্ন আচরণে মধ্য দিয়ে। ডিএসইতে সূচকের সামান্য পতন হলেও সিএসইতে বেড়েছে। অর্থ্যাত্ ডিএসইতে সূচক প্রায় ২ পয়েন্ট কমলেও সিএসইতে প্রায় ৭৬ পয়েন্ট বেড়েছে। সূচকের ভারসাম্যমূলক আচরণের ফলে দিন শেষে উভয় বাজারে  অধিকাংশ প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের দাম কমেছে। সার্বিক লেনদেনে কিছুটা উন্নতি হয়েছে। আজ দুই বাজারেই গতকালের চেয়ে লেনদেন বেড়েছে। ডিএসইতে প্রায় সাতশ’(৬৯০)কোটি টাকার কাছাকাছি লেনদেন হয়েছে।
ডিএসই’তে মঙ্গলবার লেনদেন হয়েছে ২৮৯টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ডিবেঞ্চার। এদের মধ্যে দর কমেছে ১৫২টির, বেড়েছে ১১৩টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২৪টি কোম্পানির শেয়ারের দাম। মোট লেনদেন হয়েছে ৬৯০ কোটি ২১ লাখ ৮৩ হাজার টাকা, যা আগের দিনের চেয়ে ৮৭ কোটি ৭৪ লাখ টাকা বেশি। শেয়ার, ডিবেঞ্চার ও মিচ্যুয়াল ফান্ড বিক্রি হয়েছে ১১ কোটি ৩৯ লাখ ৫৩ হাজার ৮৩৪টি।দিনের শেষে ডিএসইর লেনদেনের শীর্ষ দশে রয়েছে- গ্রামীণফোন, বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবল, স্কয়ার ফার্মা, পদ্মা অয়েল, মেঘনা পেট্রোলিয়াম, তাল্লু স্পিনিং, অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজ, এপেক্স অ্যাডেলকি ফুটওয়ার, হাইডেলবার্গ সিমেন্ট ও ইউনাইটেড এয়ার।
এদিকে, দেশের আরেক শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে(সিএসই) লেনদেন শেষ হয়েছে সূচকের উর্ধ্বমুখী প্রবণতায়। বেলা আড়াইটায় সিএসসিএক্স সূচক ৭৫ দশমিক ৫৪ পয়েন্ট বেড়ে ৮ হাজার ৫৬ দশমিক ৫৭ পয়েন্টে গিয়ে পৌছেছে। এর আগে সকাল ১১টায় সূচক ১৬১ দশমিক ১৭ পয়েন্ট বেড়ে ৮ হাজার ১৪২ দশমিক ২০ পয়েন্টে, দুপুর ১২টায় সূচক ১৬২ দশমিক ৫৯ পয়েন্ট বেড়ে ৮ হাজার ১৪৩ দশমিক ৬২ পয়েন্টে এবং দুপুর ১টায় সূচক ১৫৬ দশমিক ২৮ পয়েন্ট বেড়ে ৮ হাজার ১৩৭ দশমিক ৩১ পয়েন্টে গিয়ে দাঁড়ায়। বেলা ২টায় সূচক ৮৫ দশমিক ৪৬ পয়েন্ট বেড়ে ৮ হাজার ৬৬ দশমিক ৪৯ পয়েন্টে গিয়ে পৌছায়।
সিএসই’তে  আজ লেনদেন হয়েছে মোট ২১৮টি প্রতিষ্ঠানের। এর মধ্যে দর কমেছে ১২৬টির, বেড়েছে ৭৮টির ও অপরিবর্তিত রয়েছে ১৪ কোম্পানির শেয়ারের দাম। টাকার পরিমাণে লেনদেন হয়েছে ৪৬ কোটি ১৩ লাখ ৪০ হাজার ১০৯ টাকা, যা আগের দিনের চেয়ে  ৪ কোটি ১০ লাখ টাকা বেশি। হাতবদল হওয়া শেয়ার, ডিবেঞ্চার ও মিচ্যুয়াল ফান্ডের পরিমাণ ১ কোটি ৯৭ হাজার ৬৮৪টি।বেলা শেষে সিএসই’র লেনদেনের শীর্ষ দশ কোম্পানি হলো- বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবলস, গ্রামীণফোন, স্কয়ার  ফার্মা, বাংলাদেশ শিপিং কর্পোরেশন, ইউনাইটেড এয়ার, আর.এন স্পিনিং,  পদ্মা অয়েল, তাল্লু স্পিনিং, মেঘনা পেট্রোলিয়াম ও জেনারেশন নেক্সট ফ্যাশন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here