সুহৃদ ইন্ডাস্ট্রিজে নতুন পরিচালক!

0
794

স্টাফ রিপোর্টার : সুহৃদ ইন্ডাস্ট্রিজের নবযাত্রা শুরু হলো। শুরুতেই কোস্পানিটি নতুন চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক পেয়েছে। ইউরোদেশ গ্রুপের চেয়ারম্যান মাহমুদুল হাসানকে সুহৃদ ইন্ডাস্ট্রিজের চেয়ারম্যান এবং জাহিদুল আহাদকে ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

এছাড়া নোমান রশিদ চৌধুরীকে ভাইস-চেয়ারম্যান নির্বাচিত করা হয়েছে।

এদিকে সুহৃদ ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের সাবেক চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালকসহ (এমডি) সব পরিচালক পদত্যাগ  করায় তারা নতুন রুপে এসেছেন। প্রকৌশল খাতের এ কোম্পানির চেয়ারম্যান ছিলেন মো. আনিস আহমেদ, ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) জাহিদুল হক এবং পরিচালক সৈয়দা সায়মা আখতার।

বৃহস্পতিবার কোম্পানিটির বিশেষ সাধারণ সভায় (ইজিএম) ব্যবস্থাপনা পরিচালকসহ পুরো পরিচালনা পর্ষদের পদত্যাগপত্রের সঙ্গে নতুন তিন পরিচালক নিয়োগ অনুমোদন করা হয়। এর মাধ্যমে প্রকৌশল খাতের কোম্পানি সুহৃদ ইন্ডাস্ট্রিজের ব্যবস্থাপনায় প্রবেশ করে ইউরোদেশ গ্রুপের সহযোগী প্রতিষ্ঠান ইউরোদেশ কনজ্যুমারস প্রোডাক্টস লিমিটেড।

২০১৪ সালের পর থেকে লভ্যাংশ দিতে না পারায় বর্তমানে ‘জেড’ ক্যাটাগরিতে থাকা কোম্পানিটির ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব নিয়েছে ইউরোদেশ কনজ্যুমার প্রোডাক্ট লিমিটেড। সম্প্রতি ইউরোদেশ কনজ্যুমার প্রোডাক্টের সঙ্গে সুহৃদ ইন্ডাষ্ট্রিজের এ সংক্রান্ত একটি চুক্তি স্বাক্ষর হয়।

কৃষি খাতের প্রতিষ্ঠান ইউরোদেশ লিমিটেড উৎপাদিত পণ্যের মধ্যে রয়েছে পশুখাদ্য, হাঁস-মুরগির খাবার এবং মাছের খাবার।আর ওষুষধ পণ্যের জন্য পিভিসি ফিল্ম এবং খাদ্য পণ্যের জন্য পিপি ফিল্ম তৈরি করে সুহৃদ ইন্ডাস্ট্রিজ।

২০১৪ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভূক্ত হওয়ার মাধ্যমে বাজার থেকে ১৪ কোটি টাকা তোলে এ কোম্পানি; বিনিয়োগকারীদের জন্য ১৪ শতাংশ লভ্যাংশও দেয়।

কিন্তু এরপর থেকেই লোকসান গুণতে শুরু করে কোম্পানিটি। ২০১৫ ও ২০১৬ সালে প্রকৃত লোকসানের পর ২০১৭ সালে তৃতীয় প্রান্তিকে (জুলাই ২০১৬-মার্চ ২০১৭) পর্যন্ত ১০ টাকার প্রতিটি শেয়ারে ১১ পয়সা করে লোকসান করেছে। প্রতিটি শেয়ারের বিপরীতে সম্পমূল্য পরিমাণ ১১ টাকা ৮৯ পয়সা।

বৃহস্পতিবার ১৬ টাকা ২০ পয়সা দরে লেনদেন শেষ করা এ কোম্পানিটির বাজার মূলধন ৮০ কোটি টাকা। রিজার্ভ রয়েছে ১০ কোটি টাকার বেশি; দীর্ঘমেয়াদে চার কোটি ও স্বল্প মেয়াদে সোয়া কোটি টাকার ঋণ রয়েছে।

চলমান লোকসানের মধ্যেই সুহৃদ ইন্ডাস্ট্রিজের উদ্যোক্তা পরিচালকরা তাদের হাতে থাকার শেয়ার বেচতে চলমান লোকসানের মধ্যেই সুহৃদ ইন্ডাস্ট্রিজের উদ্যোক্তা পরিচালকরা তাদের হাতে থাকার শেয়ার বেচতে শুরু করেন।

লভ্যাং না দেওয়ায় জেড ক্যাটগরিতে নেমে যাওয়া এ কোম্পানিতে প্রাতিষ্ঠানিক ও বিদেশি বিনিয়োগকারীদের কাছে কোনও শেয়ার না থাকায় সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছে রয়েছে ৯০ শতাংশের বেশি শেয়ার।

গত ৩০ অগাস্ট সুহৃদ ইন্ডাস্ট্রিজ থেকে ডিএসইর ওয়েবসাইটের মাধ্যমে জানানো হয়, গ্যাস ও বিদ্যুত সংকটের কারণে ক্রমাগত লোকসানের মুখে থাকা কোম্পানিটি ইউরোদেশ গ্রুপের কাছে ব্যবস্থাপনা হস্তান্তরে খসড়া চুক্তি করেছে।

ইউরোদেশ গ্রুপের এমডি মাহমুদুল জানান, নতুন তিন পরিচালক ২০১০ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত সুহৃদ ইন্ডাস্ট্রিজের সঙ্গে ছিলেন। তাদের কাছে কোম্পানিটির সাড়ে ছয় শতাংশ শেয়ারও রয়েছে।

পরিচালনা পর্ষদের পরিবর্তনের ফলে আগের পাঁচ পরিচালকের হাতে থাকা শেয়ার নতুন পরিচালকদের কাছে বিক্রি হবে না বাজারে বিক্রি হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সেটা তারাই নির্ধারণ করবেন।

সংকট কাটিয়ে কোম্পানিটি মুনাফায় ফিরবে বলে শতভাগ আশাবাদী মাহমুদ।

পর্যাপ্ত বিদ্যুৎ ও গ্যাস সরবরাহ না থাকায় সুহৃদ ইন্ডাস্ট্রিজের উৎপাদন ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় ইউরোদেশ গ্রুপের কাছে ব্যবস্থাপনা হস্তান্তরের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

স্বল্প ও দীর্ঘমেয়াদী ঋণগ্রস্ত কোম্পানিটির ৯০.৬০ শতাংশ শেয়ার সাধারণ বিনিয়োগকারীর কাছে। আর উদ্যোক্তা ও পরিচালকের কাছে রয়েছে ৯.৪০ শতাংশ শেয়ার। কোম্পানিটির পরিশোধিত মূলধন ৫২ কোটি ১৫ লাখ ৩০ হাজার টাকা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here