সুচকের ওঠানামা : ডিএসই’তে ২ ঘণ্টায় লেনদেন ২৮১ কোটি টাকা

0
267
0000স্টাফ রিপোর্টার : সপ্তাহের তৃতীয় কার্যদিবসে সূচকের উত্থান-পতন মধ্য দিয়ে লেনদেন হয়েছে। মঙ্গলবার লেনদেন শুরুর দেড় ঘণ্টা শেষে দুই বাজারে অধিকাংশ প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের দাম কমে। সার্বিক লেনদেনে শ্লথ গতি দেখা যায়। দুই ঘণ্টায় ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ২৮১ কোটি টাকা।
ডিএসইর ওয়েব সাইটে দেখা  গেছে, মঙ্গলবার দুপুর ১:১৮ মিনিটে ৩৩ টি কোম্পানির শেয়ারের দাম বেড়েছে, কমেছে ২২৩ টি প্রতিষ্ঠানের। দর অপরিবর্তিত ছিলো ২১ টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার দর। দর বৃদ্ধির শীর্ষ অবস্থানে ছিলো- জ্বালানি খাতের  মেঘনা পেট্রোলিয়াম।
দেখা গেছে, এর আগে দুপুর ১২টা থেকে পুনরায় বাজার পতনমুখী হতে থাকে। বর্তমানেও প্রধান দুই শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) এবং চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সূচক বড় পতনের মধ্যে লেনদেন হয়।
ডিএসই’র ওয়েবসাইট সূত্রে জানা যায়, দুপুর সাড়ে ১২টায় ডিএসইএক্স সূচক ২৬ দশমিক শুন্য ৯ পয়েন্ট কমে ৪ হাজার ২৮ দশমিক ৬৫ পয়েন্টে গিয়ে পৌছে। এর আগে সকাল সাড়ে এগারটায় সূচক ১৫ দশমিক ৬৩ পয়েন্ট বেড়ে ৪ হাজার ৭০ দশমিক ৩৮ পয়েন্টে এবং দুপুর ১২টায় সূচক ১০ দশমিক ৪৯ পয়েন্ট কমে ৪ হাজার ৪৪ দশমিক ২৫ পয়েন্টে  গিয়ে দাঁড়ায়।
এ প্রতিবেদন তৈরির সময় পর্যন্ত ডিএসই’তে লেনদেন হয়েছে ২৬৪টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ডিবেঞ্চার। এদের মধ্যে দর বেড়েছে ৭৯টির, কমেছে ১৫৬টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২৯টি কোম্পানির শেয়ারের দাম। মোট লেনদেন হয়েছে ১৭২ কোটি ৪ লাখ ৯৮ হাজার টাকা। শেয়ার, ডিবেঞ্চার ও মিচ্যুয়াল ফান্ড বিক্রি হয়েছে ২ কোটি ৭৬ লাখ ৪৭ হাজার ৬২৫টি।
এই সময়ের মধ্যে ডিএসইর লেনদেনের শীর্ষ দশে ছিল-বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবলস, মেঘনা পেট্রোলিয়াম, পদ্মা অয়েল, অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজ, যমুনা অয়েল, গ্রামীণফোন, তিতাস গ্যাস, অ্যাক্টিভফাইন কেমিক্যালস, স্কয়ার ফার্মা ও বাংলাদেশ শিপিং কর্পোরেশন।
এদিকে, দেশের আরেক শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই)ও একইভাবে লেনদেন হয়। দুপুর সাড়ে ১২টায় সিএসসিএক্স সূচক ৭০ দশমিক ১৭ পয়েন্ট কমে ৭ হাজার ৯৩৭ দশমিক ৫৯ পয়েন্টে গিয়ে পৌছে। এর আগে সকাল সাড়ে ১১টায় সূচক ১২ দশমিক ১৪ পয়েন্ট বেড়ে ৮ হাজার ২০ দশমিক ১১ পয়েন্টে এবং দুপুর ১২টায় ১৬ দশমিক ৬৪ পয়েন্ট কমে ৭ হাজার ৯৯১ দশমিক ১২ পয়েন্টে গিয়ে দাঁড়ায়।
এ সময় পর্যন্ত সিএসই’তে লেনদেন হয়েছে মোট ১৫০টি প্রতিষ্ঠানের। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৪১টির, কমেছে ৯৪টির ও অপরিবর্তিত রয়েছে ১৫ কোম্পানির শেয়ারের দাম। টাকার পরিমাণে লেনদেন হয়েছে ১৫ কোটি ৪ লাখ ৭২ হাজার ৪৭৮ টাকা। হাতবদল হওয়া শেয়ার, ডিবেঞ্চার ও মিচ্যুয়াল ফান্ডের পরিমাণ ২৬ লাখ ২৪ হাজার ৮৬৫টি।
এই সময়ের মধ্যে সিএসই’র লেনদেনের শীর্ষ দশ কোম্পানি হলো- বাংলাদেশ শিপিং কর্পোরেশন, গ্রামীণফোন, পদ্মা অয়েল, জেএমআই সিরিঞ্জ, বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবলস, অ্যাক্টিভফাইন কেমিক্যালস, ইউনাইটেড এয়ার, যমুনা অয়েল,  মেঘনা পেট্রোলিয়াম ও অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here