সিএসই ডিমিউচুয়ালাইজেশন বাস্তবায়নে সিআরও নিয়োগ দিচ্ছে

0
425
CSE- Logoস্টাফ রিপোর্টার : দেশের উভয় স্টক এক্সচেঞ্জের মালিকানা থেকে ব্যবস্থাপনা পৃথকীকরণ বা ডিমিউচুয়ালাইজেশন হচ্ছে। আর এ প্র্রক্রিয়া বাস্তবায়নের জন্য একটি ব্যবসায়িক পরিকল্পনা করেছে স্টক এক্সচেঞ্জ। বতর্মানের তদারকি কার্যক্রমকে (রেগুলেটরি ফাংশন) বিঘ্নিত না করে সাংগঠনিক কাঠামোতে নতুন কিছু সংযোজন করা হচ্ছে।
এক্ষেত্রে স্টক এক্সচেঞ্জে চীফ রেগুলেটরি অফিসার (সিআরও) নামে একটি নতুন পদ সৃষ্টি করা হবে বলে জানিয়েছেন চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সভাপতি আল মারুফ খান। সম্প্রতি ডিমিউচুয়ালাইজেশন পরবর্তী স্টক এক্সচেঞ্জের কার্যক্রম নিয়ে একান্ত আলাপকালে তিনি এ কথা বলেন।
সিএসই’র সভাপতি আল মারুফ খান
সিএসই’র সভাপতি আল মারুফ খান

তিনি বলেন, স্টক এক্সচেঞ্জের বর্তমান রেগুলেটরি বা তদারকি সংক্রান্ত কাজগুলোকে সিইওর দায়িত্ব বা কাজ থেকে সম্পূর্ণ পৃথক করা হবে। আর স্টক এক্সচেঞ্জের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) প্রতিষ্ঠান চালানো এবং বাণিজ্যিক লক্ষ্য অর্জন, শেয়ারহোল্ডারদের স্বার্থ সংরক্ষণসহ ইত্যাদি কাজে নিয়োজিত থাকবে। এখন থেকে সিআরও স্টক এক্সচেঞ্জের বর্তমান রেগুলেটরি বা তদারকি কাজগুলো বাস্তবায়নের জন্য কাজ করবেন।

এ দুইজনের কাজের মধ্যে কোন সংঘর্ষ না হয় বা কনফ্লিক্ট না ঘটে তা নিশ্চিত করা হবে। এ সবই আমাদের প্রধান কাজ। এর ফলে আমাদের তদারকি কার্যত্রম অক্ষুণ্ন থাকবে বা কোন ক্ষতি হবে না। মারুফ খান বলেন, এটা ডিমিউচুয়ালাইজেশনের একটি অংশ। আগামী ৫ বছর স্টাক এক্সচেঞ্জ বাণিজ্যকভাবে কী কী কার্যক্রম করবে তার একটা রূপরেখা তৈরি করা হয়েছে। যা বাস্তবায়নে কাজ করছে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ (সিএসই)। তিনি আরও বলেন, স্টক এক্সচেঞ্জ একটা বাণিজ্যিক বা লাভজনক প্রতিষ্ঠান হিসেবে পরিচালিত হবে। কাজেই আমরা এক্সচেঞ্জের কমার্শিয়াল টার্মসের মধ্যে ডিভিডেন্ড ও শেয়ারহোল্ডার গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হবে।

শেয়ারহোল্ডার ও ডিভিডেন্ডকে সামনে রেখে আমরা স্টক এক্সচেঞ্জের ভায়াবিলিটি বা আর্থিক সক্ষমতা নির্ধারণ করার জন্য এ ব্যবসায়িক পরিকল্পনা করা হয়েছে। সিএসইর সভাপতি বলেন, আর যে কোন স্টক এক্সচেঞ্জ যখন ডিমিউচুয়ালাইজড হয় তখন সাংগঠনিক কাঠামোতে পরিবর্তন আনতে হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here