সিএসইতে ৩ নভেম্বর চালু হচ্ছে T+2

0
472
সিএসই’র সভাপতি আল মারুফ খান
সিএসই’র সভাপতি আল মারুফ খান

স্টাফ রিপোর্টার : সাধারণ বিনিয়োগকারীদের জন্য অবশেষে চালু হচ্ছে T+2 অর্থাৎ টি+২। চলতি বছরের নভেম্বর মাসের ৩ তারিখ থেকে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) এটি চালু হচ্ছে। বিদেশে চলমান পুঁজিবাজারের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে বাংলাদেশের সিএসইতে প্রথম চালু হচ্ছে টি+২। তবে এ ক্ষেত্রে পিছিয়ে রয়েছে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই)।

এ বিষয়ে সিএসই কর্তৃপক্ষ জানায়, পুঁজিবাজারে বাজারে কারসাজি রোধ, লেনদেনের পরিমাণ বৃদ্ধি ও বিনিয়োগকৃত অর্থ দ্রুত বিনিয়োগকারীদের ফেরত দেয়ার লক্ষ্যে টি+২ চালু করা হবে। এর ফলে বিনিয়োগকারীদের লেনদেন নিষ্পত্তির সময়সীমা বা সেটেলমেন্ট সাইকেল টি+৩ থেকে কমিয়ে টি+২ করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।
সিএসই’র সভাপতি আল মারুফ খান বলেন, বিনিয়োগকারীদের সুবিধার্থে আগামী ৩ নভেম্বর থেকে শেয়ার লেনদেন নিষ্পত্তির সময়সীমা টি+২ চালু করা হবে। তার আগে সেটেলমেন্ট রেগুলেশনের সংশোধনী গেজেট দুই এক দিনের মধ্যে প্রকাশ করা হবে বলেও জানান তিনি।
এদিকে, দুই শেয়ারবাজারে লেনদেন নিষ্পত্তির সময়সীমা দুই রকম থাকলে তাতে পরিস্থিতি জটিল হতে পারে বলে বিশ্লেষকরা ধারনা করছেন। কারণ, একই কোম্পানি উভয় শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত থাকায় অধিকাংশ বিনিয়োগকারী সিএসইতে লেনদেন করতে পারেন। ফলে সেখানে শেয়ার দরের মুভমেন্ট এবং ডিএসই’র শেয়ার দরের মুভমেন্টে পার্থক্য দেখা দিতে দেবে। ফলে একই কোম্পানির শেয়ার ডিএসইতে কম দরে ক্রয় করে কেউ কেউ বেশি দরে সিএসইতে বিক্রি করতে পারে। আর এতে করে কারসাজির আংশকা আরো বেড়ে যেতে পারে বলে ধারণা করছেন বিশ্লেষকরা।এদিকে সদস্যদের ভিন্নমতের কারণে ডিএসই সেটেলমেন্ট সাইকেল কমানোর বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে পারেনি বলে জানা গেছে। তবে দুই স্টক এক্সচেঞ্জে লেনদেনে নিষ্পত্তির সময়সীমা ভিন্ন হলে তাতে অসুবিধা হওয়ার কথা নয় বলে জানান সিএসই’র প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ সাজিদ খান।
তার মতে, উভয় স্টক এক্সচেঞ্জে লেনদেন নিষ্পত্তির সময়সীমা অভিন্ন হলে ভালো হয়।প্রসঙ্গত, ২০১১ সালের ১৮ অক্টোবর বিএসইসির ৪০৩তম নিয়মিত কমিশন সভায় সেটেলমেন্ট সাইকেল কমানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। ওই সময় বিএসইসি’র নির্বাহী পরিচালক মো. ফরহাদ আহমেদ সাংবাদিকদের জানান, আগে শেয়ার লেনদেন নিষ্পত্তির সময়সীমা ছিল টি-৩। বর্তমান বাজারের সার্বিক দিক বিবেচনায় এখন তা টি+২ করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এর ফলে সেটেলমেন্ট সাইকেল আগের চেয়ে কমে আসবে। ফলে বিনিয়োগকারীরা অনেক উপকৃত হবেন। এ পদ্ধতি প্রয়োগ করা হলে বাজারে ট্র্যানজেকশন ভলিউমের ওপর ইতিবাচক প্রভাব পড়বে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here