সিএসইতে আইপিও সূচক চলতি মাসেই

0
593
স্টাফ রিপোর্টার : চলতি মাসের শেষে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) চালু করা হতে পারে আইপিও সূচক। সর্বশেষ দুই বছরে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানি নিয়ে এ সূচকটি চালু করা হবে। এ সূচকের মাধ্যমে আইপিওতে আসা কোম্পানির শেয়ারবাজারে শেয়ারদর ওঠানামার প্রকৃতি বোঝা যাবে। সম্প্রতি সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান স্টক এক্সচেঞ্জটির এমডি সৈয়দ সাজিদ হোসেন।
নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) সম্মতি পেলে চলতি মাসের শেষে আইপিও ইনডেক্সসহ নতুন তিনটি মূল্যসূচক চালুর পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করছে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ (সিএসই)। অপর দুই সূচক হলো- শরীয়াহ সূচক ও বেঞ্জমার্ক সূচক।
সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি আরও বলেন, ‘যদিও স্টক এক্সচেঞ্জ শেয়ারবাজারের প্রাথমিক নিয়ন্ত্রক হিসেবে কাজ করে, তবে আইনে এ প্রতিষ্ঠানকে অনিয়মের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার অধিকার দেওয়া হয়নি।’
প্রসঙ্গত, সার্বিক শেয়ারবাজার পরিস্থিতি ও দেশে সংঘটিত নানা ঘটনা ও আইনি পরিবর্তন বিষয়ে নিজস্ব মতামত জানাতে গত মাস থেকে সিএসই সংবাদ সম্মেলন করে আসছে। স্টক এক্সচেঞ্জটি জানিয়েছে, প্রতি মাসের প্রথম ও তৃতীয় সোমবার এ সংবাদ সম্মেলন করা হবে।
আইপিও সূচক চালুর বিষয়ে পরে সিএসই এমডি  বলেন, সর্বশেষ দুই বছরে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানি নিয়ে এ সূচকটি চালু করা হবে। এ সূচকের মাধ্যমে আইপিওতে আসা কোম্পানির শেয়ারবাজারে শেয়ারদর ওঠানামার প্রকৃতি বোঝা যাবে। এজন্য ভারতের ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জের (এনএসসি) সহায়তা নেওয়া হয়েছে।
সংশ্লিষ্টরা জানান, গত বছর সিএসইর পক্ষ থেকে আইপিও সূচক চালুর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল। কিন্তু বিএসইসি এ ধরনের সূচক গঠনে অনুমতি দিতে আগ্রহী নয়।
তারা মনে করেন, গত কয়েক বছরে কমিশনের অনুমোদন নিয়ে আইপিও প্রক্রিয়ায় আসা কোম্পানির শেয়ারদর শুরুর তুলনায় কমেছে। এ নিয়ে সংস্থাটির বিরুদ্ধে আইপিও অনুমোদনে অস্বচ্ছতা ও অনিয়মের অভিযোগ রয়েছে। ভবিষ্যতে এ ঘটনার পুনরাবৃত্তি হলে তা আরও স্পষ্ট হবে ও সমালোচনা বাড়বে- তাই অনভিপ্রেত পরিস্থিতি এড়াতেই আইপিও সূচক গঠনে অনুমতি দিচ্ছে না সংস্থাটি।
এদিকে, সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে সিএসই এমডি জানান, অনিয়মের প্রমাণ পেলেও তালিকাভুক্ত কোম্পানির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পারে না স্টক এক্সচেঞ্জ। কেবল সংঘটিত অনিয়ম বিষয়ে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসিকে অবহিত করে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ করতে পারে।
তিনি বলেন, স্টক এক্সচেঞ্জ তালিকাভুক্ত কোম্পানির মূল্য সংবেদনশীল তথ্যসহ আর্থিক হিসাবের তথ্য প্রকাশ করে থাকে। কিন্তু লক্ষ্য করা গেছে, আইনি বাধ্যবাধকতা সত্ত্বেও অনেক তালিকাভুক্ত কোম্পানি নিজস্ব ওয়েবসাইটে কোম্পানির আর্থিক হিসাব ও মূল্য সংবেদনশীল তথ্য যথাযথভাবে প্রকাশ করে না।
গত কয়েকদিনের শেয়ারবাজার পরিস্থিতি বিষয়ে মূল্যায়ন জানতে চাইলে সিএসই এমডি বলেন, ‘শেয়ারবাজার অনেকটাই স্থিতিশীল। বিনিয়োগ বাড়ছে। তবে বাজারটি পুরোপুরি শেয়ার নির্ভর হওয়ায় এ ধরনের বাজারে উন্নতি সীমাবদ্ধ। এজন্য সিএসইর পক্ষ থেকে ডেরেভেটিভ মার্কেট চালু করা দরকার।
মূল্যসূচকের বৃদ্ধি কিছু বিনিয়োগকারীদের মনস্তাত্ত্বিকভাবে আতঙ্কিত করে- স্বীকার করে তিনি বলেন, এটা ঠিক নয়। বরং বিনিয়োগকারীদের উচিত নিজ নিজ পোর্টফোলিওর দিকে মনোযোগী হওয়া। সঠিক মূল্যে শেয়ার কিনলে এবং দর বাড়লে যৌক্তিক পর্যায়ে তা বিক্রি করে মুনাফা তুলে নেওয়া হলে লোকসানের সম্ভাবনা থাকে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here