সাপ্তাহিক লেনদেনের দ্বিতীয় স্থানে এবি ব্যাংক

0
432

স্টাফ রিপোর্টার : ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) গত সপ্তাহে মোট লেনদেনের ৩ দশমিক ৪৯ শতাংশ ছিল এবি ব্যাংক লিমিটেডের। ফলে কোম্পানিটি উঠে আসে লেনদেনের সাপ্তাহিক তালিকার দ্বিতীয় স্থানে। সপ্তাহজুড়ে এ কোম্পানির মোট ১১৯ কোটি ৭৯ লাখ ৯৮ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন দেয়।

লেনদেনের পাশাপাশি গত সপ্তাহে এবি ব্যাংক শেয়ারের দরেও ছিল ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা। সপ্তাহজুড়ে শেয়ারটির দর বেড়েছে ৫ দশমিক ৯৩ শতাংশ। সর্বশেষ হিসাব বছরে বিনিয়োগকারীদের লভ্যাংশ না দেয়ায় স্টক এক্সচেঞ্জে ‘এ’ থেকে ‘জেড’ ক্যাটাগরিতে নেমে গেছে এবি ব্যাংক। ২০১৭ হিসাব বছরে ব্যাংকটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৫ পয়সা, আগের বছর একই সময়ে যা ছিল ২ টাকা ২৫ পয়সা। ৩১ ডিসেম্বর এর শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদমূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়ায় ৩১ টাকা ৬৫ পয়সায়।

এর আগে ২০১৬ সালের ৩১ ডিসেম্বর সমাপ্ত হিসাব বছরের জন্য ১২ দশমিক ৫ শতাংশ স্টক লভ্যাংশ দেয় এবি ব্যাংক। ২০১৫ হিসাব বছরের জন্যও ১২ দশমিক ৫ শতাংশ স্টক লভ্যাংশ দেয় এবি ব্যাংক।

এদিকে হিসাব বছরের প্রথমার্ধে (জানুয়ারি-জুন) কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ৩৯ পয়সা, যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ৭৯ পয়সা। দ্বিতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ২৪ পয়সা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ৪৭ পয়সা। ৩০ জুন কোম্পানিটির এনএভিপিএস দাঁড়িয়েছে ৩২ টাকা ২ পয়সা।

ডিএসইতে বৃহস্পতিবার শেয়ারটির সর্বশেষ দর ২ দশমিক ৪৬ শতাংশ বা ৩ পয়সা বেড়ে দাঁড়ায় ১২ টাকা ৫০ পয়সায়। গত এক বছরে শেয়ারটির সর্বোচ্চ দর ছিল ২৬ টাকা ৮০ পয়সা ও সর্বনিম্ন ১০ টাকা ৯০ পয়সা।

১৯৮৩ সালে তালিকাভুক্ত এবি ব্যাংকের পরিশোধিত মূলধন ৭৫৮ কোটি ১৩ লাখ টাকা। রিজার্ভ ১ হাজার ৬৪১ কোটি ২৩ লাখ টাকা। কোম্পানির মোট শেয়ারের ৩৬ দশমিক ৪৭ শতাংশ এর উদ্যোক্তা-পরিচালকদের কাছে, বাংলাদেশ সরকার দশমিক ৫৭, প্রতিষ্ঠান ২৬ দশমিক ৫০, বিদেশী ১ দশমিক ৫৬ ও বাকি ৩৪ দশমিক ৯০ শতাংশ শেয়ার রয়েছে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের হাতে।

বোনাস শেয়ার সমন্বয়ের পর সর্বশেষ নিরীক্ষিত মুনাফা ও বাজারদরের ভিত্তিতে এ শেয়ারের মূল্য-আয় (পিই) অনুপাত ২৫০, হালনাগাদ অনিরীক্ষিত মুনাফার ভিত্তিতে যা ১৬ দশমিক শূন্য ৩।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here