সাইফ পাওয়ারের ‘আয় আগামী বছরে দ্বিগুণ হবে’, রাইট শেয়ার অনুমোদন

0
3137

সিনিয়র রিপোর্টার : সাইফ পাওয়ারটেক লিমিটেডের ‘আয় আগামী বছরে দ্বিগুণ হবে। কারণ কোম্পানির গ্রোথ অনেক ভালো।’ কোম্পানির বিশেষ সাধারণ সভায় (ইজিএম) এমন কথা বলেন কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক তরফদার রুহুল আমিন।

রাইট শেয়ার সম্পর্কে তিনি বলেন, শেয়ারবাজারের অনেক কোম্পানির তুলনায় আমাদের কোম্পানির গ্রোথ অনেক ভালো। আগামী বছরে কোম্পানির আয় দ্বিগুণ হবে। আইপিওতে আমরা যে ৩৬ কোটি টাকা নিয়েছি, আধুনিক একটি ব্যাটারি কারখানা তৈরি করতে তার চেয়ে অনেক বেশি আমরা বিনিয়োগ করেছি। আমরা বিশ্বমানের একটি ব্যাটারি কারখানা করতে চাই।

saif.. 2রাজধানীর আর্মি গলফ ক্লাবে রোববার বিকালে বিশেষ সাধারণ সভায় (ইজিএম) তিনি এসব কথা বলেন। ইজিএমে বিপুল সংখ্যক শেয়ারহোল্ডারের উপস্থিতিতে রাইট শেয়ারের অনুমোদন করা হয়েছে। ব্যাটারি প্রকল্পের জন্য বিনিয়োগকারীর বিদ্যমান প্রতি শেয়ারের বিপরীতে দুটি করে (2R:1) শেয়ার ইস্যুর সিদ্ধান্তকে গ্রহণ করেন শেয়ারহোল্ডাররা।

এজন্য ১০ টাকা ফেসভ্যালুর সঙ্গে ১০ টাকা প্রিমিয়ামসহ ২০ টাকায় রাইট ছাড়তে চায় কোম্পানিটি।

গাজীপুরের পূবাইলে চলমান আধুনিক ব্যাটারি প্রকল্পের আকার ও মুলধন বৃদ্ধি করতে কোম্পানির কর্তৃপক্ষ রাইট শেয়ার ইস্যু করার সিদ্ধান্ত নিলে রোববার ইজিএমে তা অনুমোদন করা হয়। ইজিএমে শেয়ারহোল্ডাররা অনুমোদন করলে এখন নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) অনুমোদনের জন্য আবেদন করবে কোম্পানির কর্তৃপক্ষ।

SAIF 1সাইফ পাওয়ারটেক লিমিটেডের চেয়ারম্যান তরফদার নিগার সুলতানার সভাপতিত্বে ইজিএমে উপস্থিত ছিলেন কোম্পানির পরিচালক তরফদার রুহুল সাঈফ, রুবায়া চৌধুরী, ইন্ডিপেনডেন্ড ডিরেক্টর জালাল আহমেদ চৌধুরী, ডিএমডি নাসির উদ্দিন চৌধুরী, ডেপুটি কোম্পানি সেক্রেটারি শম্ভু চন্দ্র পাল, সিএফও মো. হাসান রেজা, সিনিয়র ম্যানেজার আবুল কাশেম পরাগ, কোম্পানি সেক্রেটারি সালেহীন ও কোম্পানির কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

সভায় কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক তরফদার রুহুল আমিন বলেন, কোম্পানির মুলধন আরো বাড়ানো হবে। আমাদের বিশ্বমানের একটি ব্যাটারি কারখানা তৈরি হচ্ছে। এজন্য আইপিওতে নেয়া টাকা কারখানার কাজে ব্যবহারের পরেও আরো ১৫০ কোটি টাকা আমাদের বিনিয়োগ করতে হয়েছে।

বিনিয়োগকারীরা তাদের মুলধনের লভ্যাংশ ফেরত পাবেন বলে জানান কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক।

সেবা ও নির্মাণ খাতের কোম্পানিটি রাইট শেয়ারের মাধ্যমে সংগৃহিত ৩৬৬ কোটি টাকার মধ্যে ১৯৫ কোটি টাকা ব্যবসা সম্প্রসারণে এবং বাকি ১৬৫ কোটি টাকা গাজীপুরের পূবাইলে প্রকল্পের আকার বৃদ্ধি করতে ব্যয় করবে।

কোম্পানিটির বর্তমান পরিশোধিত মূলধন ৯১ কোটি ৫৭ লাখ টাকা। এ হিসাবে রাইট শেয়ারের মাধ্যমে তারা ৩৬০ কোটি টাকার বেশি মূলধন সংগ্রহ করবে।

সাইফ পাওয়ারটেক লিমিটেড সাম্প্রতিক সময়ে জেনারেটর, বিদ্যুতের সাবস্টেশন, ইলেকট্রনিক যন্ত্রাংশ ও বিদ্যুৎসামগ্রী আমদানি করে সংযোজন করছে। একই সঙ্গে সোলার হোম, সোলার পাওয়ার গ্রিড, সোলার সলিউশন, আইপিএস, ইউপিএসসহ বিভিন্ন ধরনের বৈদ্যুতিক সরঞ্জামাদি সংযোজন করে গত বছরের তুলনায় মুনাফা বেশি করেছে।

এছাড়া সাইফ প্লাস্টিক অ্যান্ড পলিমার ইন্ডাস্ট্রিজ নামে সাইফ পাওয়ারের একটি অঙ্গপ্রতিষ্ঠান রয়েছে, যার ৮০ শতাংশ শেয়ারের মালিক এ কোম্পানি। মূল ব্যবসা সম্প্রসারণের জন্য গত বছর চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ, আশুগঞ্জ সার কারখানার মতো বেশ কিছু প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সম্প্রতি কয়েকটি চুক্তি সম্পন্ন করেছে কো্ম্পানি।

সর্বশেষ অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুসারে, চলতি হিসাব বছরের প্রথম তিন প্রান্তিকে (জুলাই-মার্চ) সাইফ পাওয়ারটেকের শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) দাঁড়িয়েছে ৩ টাকা ২৭ পয়সা, আগের বছর একই সময়ে যা ছিল ১ টাকা ৫৬ পয়সা। ৩১ মার্চ কোম্পানির শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদমূল্য ছিল ২২ টাকা ২৬ পয়সা, সম্পদ পুনর্মূল্যায়নজনিত উদ্বৃত্ত বিবেচনায় না নিলে যা ২১ টাকা ২১ পয়সা।

৩০ জুন সমাপ্ত ২০১৫ হিসাব বছরে কোম্পানিটি ২৯ শতাংশ স্টক লভ্যাংশ দেয়। সে বছর ইপিএস ছিল ৩ টাকা ৭ পয়সা। গেল হিসাব বছরে কোম্পানিটির নিট মুনাফা হয় ২১ কোটি ৪১ লাখ ৪০ হাজার টাকা, আগের বছর যা ছিল ১১ কোটি ১৫ লাখ টাকা। চলতি হিসাব বছরের প্রথম নয় মাসেই তা ২৯ কোটি টাকা ছাড়িয়েছে।

২০১৪ সালে শেয়ারবাজারে আসা কোম্পানির অনুমোদিত মূলধন ৫০০ কোটি ও রিজার্ভ ৪০ কোটি ৫৩ লাখ টাকা। কোম্পানির মোট শেয়ারের ৪০ দশমিক শূন্য ৬ শতাংশ এর উদ্যোক্তা-পরিচালকদের কাছে, প্রতিষ্ঠান ১৭ দশমিক ৮১ ও বাকি ৪২ দশমিক ১৩ শতাংশ শেয়ার রয়েছে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের হাতে।

ক্রেডিট রেটিং এজেন্সি অব বাংলাদেশের বিবেচনায়, সাইফ পাওয়ারটেকের দীর্ঘমেয়াদি ঋণমান ‘ট্রিপল বি১’।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here