সমতা লেদার সমাচার

0
541
ফাইল ছবি-

সিনিয়র রিপোর্টার : মূলধন ঘাটতিতে সমতা লেদার। কোম্পানিটির কোন ধরনের আর্থিক উন্নয়নের সংবাদ নেই। এখনও সাভারের হেমায়েতপুরে কারখানা স্থানান্তরের কার্যক্রম সম্পন্ন করতে পারেনি। যদিও কারখানার কিছু অংশ সাভারে স্থানান্তর করা হয়েছে বলে দাবি করেছে কোম্পানির কর্তৃপক্ষ। কোম্পানির নড়বড়ে পরিস্থিতি ডিএসইর বিশেষ নজরদারিতে রয়েছে।

তা সত্ত্বেও পুঁজিবাজারে এ কোম্পানির শেয়ারদর অস্বাভাবিক হারে বাড়ছে। সম্প্রতি ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জকে (ডিএসই) এই অস্বাভাবিক শেয়ারদর বৃদ্ধির কারণ জানতে চাইলে কোম্পানি কর্তৃপক্ষ এমন তথ্য দিয়েছে।

কোম্পানির কর্তৃপক্ষ বলছে, মূলধন ঘাটতির কারণে কোম্পানির আর্থিক অবস্থার উন্নতি ঘটানো যাচ্ছে না। এত দিনেও সাভারের হেমায়েতপুরে কারখানা স্থানান্তর সম্পন্ন করা যায়নি। এরই মধ্যে কোম্পানির শেয়ারদরের এমন বৃদ্ধির কোনো তথ্যও তাদের কাছে নেই। গত ২৭ আগস্ট এই অস্বাভাবিক দর বৃদ্ধির কারণ জানাতে কোম্পানিকে নোটিস দেয় ডিএসই।

বিশ্লেষণে দেখা গেছে, টানা চার কার্যদিবস ধরে শেয়ারটির দর অস্বাভাবিকভাবে বাড়ছে, যার পেছনে কোনো মূল্য সংবেদনশীল তথ্য নেই। চার কার্যদিবস আগে শেয়ার সর্বশেষ লেনদেন হয় ৩৬ টাকা ৯০ পয়সায়। মঙ্গলবার লেনদেন শেষে কোম্পানিটির শেয়ার দাঁড়ায় ৪৯ টাকা ৮০ পয়সায়।

‘জেড’ ক্যাটেগরির এ কোম্পানিটি ১৯৯৮ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়। ৩০ জুন ২০১৭ পর্যন্ত সমাপ্ত হিসাববছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে বিনিয়োগকারীদের কোনো লভ্যাংশ দেয়নি।

কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছে ১৭ পয়সা এবং শেয়ারপ্রতি সস্পদমূল্য (এনএভি) দাঁড়িয়েছে ১৪ টাকা ৫৯ পয়সা, যেক্ষেত্রে আগের বছরের একই সময়ে শেয়ারপ্রতি লোকসান ছিল ছয় পয়সা ও এনএভি ছিল ১৪ টাকা ৭৬ পয়সা।

কোম্পানিটির শেয়ার আগের কার্যদিবসের চেয়ে ছয় দশমিক ১৮ শতাংশ বা দুই টাকা ৯০ পয়সা বেড়ে প্রতিটি শেয়ার সর্বশেষ ৪৯ টাকা ৮০ পয়সায় হাতবদল হয়, যার সমাপনী দর ছিল ৪৯ টাকা ৬০ পয়সা।

দিনজুড়ে কোম্পানিটির ২৪ হাজার ৪৯১টি শেয়ার মোট ১৮০ বার হাতবদল হয়, যার বাজারদর ১২ লাখ ১৮ হাজার টাকা। শেয়ারদর সর্বনিম্ন ৪৮ টাকা ১০ পয়সা থেকে সর্বোচ্চ ৫১ টাকা ৪০ পয়সায় ওঠানামা করে। এক বছরের মধ্যে শেয়ারদর ৩৩ টাকা থেকে ৭৭ টাকা ৯০ পয়সায় ওঠানামা করে।

৫০ কোটি টাকা অনুমোদিত মূলধনের বিপরীতে পরিশোধিত মূলধন ১০ কোটি ৩২ লাখ টাকা। রিজার্ভের পরিমাণ চার কোটি ৭৪ লাখ টাকা। কোম্পানিটির মোট এক কোটি তিন লাখ ২০ হাজার শেয়ার রয়েছে।

ডিএসইর সর্বশেষ তথ্যমতে মোট শেয়ারের মধ্যে উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের কাছে রয়েছে ৫০ শতাংশ শেয়ার, প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর কাছে চার দশমিক ৮৫ শতাংশ ও সাধারণ বিনিয়োগকারীর ৪৫ দশমিক ১৫ শতাংশ শেয়ার রয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here