সংশোধিত আইপিও নীতিমালা অনুমোদন

13
3233

স্টাফ রিপোর্টার : প্রাথমিক গণপ্রস্তাবে (আইপিও) সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কোটা কমেছে। ফিক্সড প্রাইস মেথড এবং বুকবিল্ডিং-উভয় পদ্ধতির আইপিওতেই সাধারণ বিনিয়োগকারীরা আগের চেয়ে কম শেয়ার বরাদ্দ পাবেন।

আইপিও আবেদনে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের জন্য কোটা পদ্ধতি বাতিলের দাবিতে মানববন্ধনের ফাইল ছবি

সংশোধিত আইপিও বিধিমালায় (Public Issue Rules) এমন ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। সোমবার বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) বিধিমালার সংশোধনী অনুমোদন করেছে। কিছু দিনের মধ্যে এই বিষয়ে গেজেট জারি করা হবে। এর পর পরই আইনটি কার্যকর হবে।

অন্যদিকে অনেক বছর পর ফিক্সড প্রাইস পদ্ধতির আইপিওতে ফিরিয়ে আনা হয়েছে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কোটা। এছাড়া বুক বিল্ডিং পদ্ধতির আইপিওতে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কোটা বাড়ানো হয়েছে।

সংশোধনী অনুসারে ফিক্সড প্রাইস পদ্ধতির আইপিওতে ব্যক্তি বিনিয়োগকারীদের কোটা থাকছে ৪০ শতাংশ।বর্তমানে তাদের জন্য ৬০ শতাংশ কোটা সংরক্ষিত আছে। প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের জন্যও ৪০ শতাংশ কোটা রাখা হচ্ছে। বর্তমানে এদের জন্য কোনো কোটা সংরক্ষিত নেই।

এছাড়া মিউচুয়াল ফান্ড এবং অনিবাসী বাংলাদেশীদের জন্য ১০ শতাংশ হারে কোটা বহাল রয়েছে।

বুকবিল্ডিং পদ্ধতিতে ব্যক্তি বিনিয়োগকারীর কোটা ৪০ শতাংশ থেকে কমে ৩০ শতাংশ হয়েছে। এ পদ্ধতির আইপিওতে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের জন্য কোটা রাখা হচ্ছে ৫০ শতাংশ।

উভয় পদ্ধতিতে ক্ষতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারীর ১০ শতাংশ কোটা সমন্বয় করা হবে সাধারণ বিনিয়োগকারীর কোটার সঙ্গে। এ হিসেবে ফিক্সড প্রাইস পদ্ধতিতে সাধারণ বিনিয়োগকারীর প্রকৃত কোটা হয় ৩০ শতাংশ, আর বুকবিল্ডিং পদ্ধতিতে এটি কমে হয় ২০ শতাংশ।

এছাড়া সংশোধিত আইপিও বিধিমালা অনুসারে ফিক্সড প্রাইস মেথডে কেবল অভিহিত মূল্যে (Face Value) শেয়ার ইস্যু করা যাবে। শেয়ারের দামের সঙ্গে প্রিমিয়াম চাইলে সংশ্লিষ্ট কোম্পানিকে বুকবিল্ডিং পদ্ধতির আইপিওতে আসতে হবে।

13 COMMENTS

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here