শ্যামপুর সুগার, রেনউইক, ইস্টার্ন হাউজিং ও জিলবাংলার আর্থিক চিত্র

0
361

স্টাফ রিপোর্টার : শ্যামপুর সুগার, রেনউইক, ইস্টার্ন হাউজিং ও জিলবাংলার আর্থিক চিত্র নিচে প্রকাশ করা হলো-

শ্যামপুর সুগার: তৃতীয় প্রান্তিকের (জানুয়ারি’১৮-মার্চ’১৮) আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ১৪ টাকা ৯৯ পয়সা। গত অর্থবছরের যা একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ৮ টাকা ৬৩ পয়সা।

আর নয় মাসে (জুলাই’১৭-মার্চ’১৮) কোম্পানির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ৫৫ টাকা ৮৪ পয়সা। গত অর্থবছরের যা একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ৪৩ টাকা ৬২ পয়সা।

৩১ মার্চ ২০১৮ পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) লোকসান হয়েছে ৭১৫ টাকা ৪০ পয়সা।

রেনউইক যঞ্জেশ্বর: তৃতীয় প্রান্তিকের (জানুয়ারি’১৮-মার্চ’১৮) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২১ পয়সা। গত অর্থবছরের যা একই সময়ে ছিল ৮৪ পয়সা।

এদিকে, নয় মাসে (জুলাই’১৭-মার্চ’১৮) কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২ টাকা শূন্য ৮ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ছিল ২ টাকা শূন্য ১ পয়সা।

এছাড়া, ৩১ মার্চ ২০১৮ পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) লোকসান হয়েছে ৩০ টাকা ৬২ পয়সা।

জিলবাংলা সুগার: তৃতীয় প্রান্তিকের (জানুয়ারি’১৮-মার্চ’১৮) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ৬ টাকা ৫৩ পয়সা। গত অর্থবছরের যা একই সময়ে লোকসান ছিল ২ টাকা ৯৬ পয়সা।

আর নয় মাসে (জুলাই’১৭-মার্চ’১৮) কোম্পানির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ৩৬ টাকা ২৫ পয়সা। গত অর্থবছরের যা একই সময়ে লোকসান ছিল ২৬ টাকা ৯৪ পয়সা।

ইস্টার্ন হাউজিং: তৃতীয় প্রান্তিকের (জানুয়ারি-মার্চ’১৮) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৭৭ পয়সা। এর আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ৬৫ পয়সা।

আর গত ৯ মাসে (জুলাই, ১৭-মার্চ,১৮) ইপিএস হয়েছে ২ টাকা ৭৬ পয়সা। এর আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ২ টাকা ১৪ পয়সা। ৩১ মার্চ শেষে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য (এনএভি) হয়েছে  ৫৯ টাকা ৪৩ পয়সা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here