‘শেয়ারহোল্ডাররা তা জানার অধিকার রাখে’

0
817
এএফপি : জলবায়ু পরিবর্তন-বিষয়ক সরকারি নীতিমালা জ্বালানি খাতে কেমন প্রভাব ফেলবে, এ খাতের শেয়ারহোল্ডাররা তা জানার অধিকার রাখে। শেয়ারহোল্ডারদের এ অধিকার সংক্রান্ত একটি প্রস্তাবের বিরুদ্ধে এক্সনমবিল ও শেভরনের আবেদনের জবাবে যুক্তরাষ্ট্রের নিয়ন্ত্রক সংস্থা এ কথা বলেছে।

পরিবেশবাদী সংগঠনের পাশাপাশি ক্যালিফোর্নিয়া ও নিউইয়র্কের কয়েকটি পেনশন তহবিল জ্বালানি কোম্পানিগুলোর দীর্ঘমেয়াদি সম্ভাবনা ও পূর্বাভাস জানতে চেয়ে একটি প্রস্তাব উত্থাপন করে। এতে বলা হয়েছে, শেয়ারহোল্ডার হিসেবে পেনশন তহবিল ও অন্য বিনিয়োগকারীরা জলবায়ু-বিষয়ক সরকারি নীতি জ্বালানি কোম্পানিগুলোকে কীভাবে প্রভাবিত করবে, তা জানার অধিকার রাখে।

প্রস্তাবে জ্বালানি কোম্পানিগুলোর প্রতি জলবায়ু পরিবর্তন ও তেল-গ্যাসের সম্ভাব্য চাহিদা হ্রাসের প্রভাব সম্পর্কে প্রতিবেদন প্রকাশের দাবি জানানো হয়।

এক্সনমবিল ও শেভরন এ প্রস্তাব প্রত্যাহারের অনুমতি চেয়ে নিয়ন্ত্রক সংস্থার দ্বারস্থ হয়েছিল। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রের সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (এসইসি) তাদের সে আবেদন নাকচ করে দেয়।

এসইসিকে পাঠানো এক চিঠিতে এক্সনমবিল প্রস্তাবটিকে ‘অসাড় ও অস্পষ্ট’ অভিহিত করে তা প্রত্যাহারের অনুমতি প্রার্থনা করে। এক্সনমবিল বলেছে, শেয়ারহোল্ডাররা কোম্পানির ওপর সরকারের জলবায়ু নীতির প্রভাব নিরূপণ করতে পারবেন না।

জবাবে ২২ মার্চ এক চিঠিতে এসইসি বলেছে, প্রস্তাবকে ‘অসাড় ও অস্পষ্ট’ বলে এক্সনমবিল যে মত দিয়েছে, তাকে আমরা সমর্থন করছি না। ‘শেয়ারহোল্ডারা কোম্পানির ওপর সরকারের জলবায়ু নীতির প্রভাব নিরূপণ করতে পারবেন না’, এ কথায়ও এসইসি একমত নয়।

এসইসি বলেছে, ‘কোম্পানির পক্ষ থেকে যে তথ্য উপস্থাপন করা হয়েছে, তাতে মনে হচ্ছে না যে, এক্সনমবিলের দেয়া তথ্য প্রস্তাবের নির্দেশনা অনুসরণ করেছে।’ এসইসি আরো বলে, কাজেই আমরা এক্সনমবিল এ প্রস্তাব এড়াতে পারে বলে মনে করছি না।

নিউইয়র্ক স্টেট কম্পট্রোলার টমাস ডিন্যাপোলি এসইসির সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়ে বলেছেন, আমাদের পোর্টফোলিওতে জলবায়ু পরিবর্তন যে ঝুঁকি উপস্থাপন করছে, তা নিয়ে উদ্বিগ্ন বিনিয়োগকারীদের জন্য এটা বড় বিজয়।

এক্সনমবিলের একজন মুখপাত্র বলেছেন, এসইসির সিদ্ধান্ত সম্পর্কে কোম্পানির পর্ষদের বক্তব্য আগামী মাসে জানানো হবে।

ডিন্যাপোলি বলেন, স্বল্প কার্বন বাস্তবতায় ব্যবসার প্রস্তুতি হিসেবে এক্সনমোবিল কি পদক্ষেপ নিচ্ছে, বিনিয়োগকারীদের তা জানা দরকার।

কার্বন নিঃসরণে কঠোর সীমারেখার কারণে জ্বালানি কোম্পানিগুলোর কিছু সম্পদ উন্নয়ন সম্ভব হচ্ছেনা। এসব ‘আটকে পড়া সম্পদ’ কোম্পানির ব্যবসায় যে ঝুঁকি সৃস্টি করছে তা কাটিয়ে উঠতে মুলধন বিতরণ জোরদার করা দরকার— শেয়ারহোল্ডারদের পক্ষে এ মর্মে আরেকটি প্রস্তাব এসইসিতে জমা দেয়া হয়। এক্সনমোবিল ও শেভরন এ প্রস্তাবটিও মুছে ফেলার অনুমতি চেয়েছিল। কিন্তু এসইসি তাদের এ সংক্রান্ত আবেদনও  নাকচ করে দিয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here