শ্যামল রায়: শেয়ার বাজার বিকল্প পেশা হিসেবে বহুল পরিচিত। দুঃখের বিষয় বেশ কয়েক বছর ধরেই বাংলাদেশের শেয়ার বাজার বিভিন্ন কারনে ছিল আলোচনার কেন্দ্র বিন্দুতে। আবার কখনও কখনও তা সরকারের বিরক্তিরও উদ্রেক করেছিল। সরকারিভাবে অনেক আশ্বাস, আশা ভরসার কথা শোনা গেলেও বাস্তবে এর কোন সুফল ভোগ করতে পারেনি সাধারণ বিনিয়োগকারীরা। তবুও সর্বস্ব খুইয়ে এসব  বিনিয়োগকারী এখনও দিন গুনছে ভাল কিছু প্রত্যাশায়।

কেন উঠে দাড়াতে পারছেনা বাংলাদেশের শেয়ার বাজার। সম্ভাবনাই বা কতটুকু এই নিয়ে স্টক বাংলাদেশের সাথে বিশেষজ্ঞের মতামত জানালেন একটি প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতির অধ্যাপক গোলাম কিবরিয়া।

শেয়ারবাজার কখনও স্ট্রেট কিংম্বা সমান্তরালে চলে না; এর ধরনই হল আঁকা বাঁকা চলা। তা না হলে বিনিয়োগকারীরা এখানে বিনিয়োগ করবেন কেন বললেন গোলাম কিবরিয়া। অর্থাৎ এখানে কারও লাভ হবে, কারও লস হবে এটাই নিয়ম।  কিন্তু এটারও একটা নিয়ম আছে।

শেয়ার বাজারতো জুয়ার আড্ডা খানা নয় কিংম্বা লটারী খেলাও নয় যে, ভাগ্যের পরীক্ষা দিয়ে লাভ তুলতে হবে। কিন্তু বাংলাদেশের শেয়ার মার্কেট এর অবস্থা হয়েছে এখন অনেকটা তাই পরিলক্ষিত হচ্ছে। অর্থাৎ একটা স্বাভাবিক বাজারের যে সমস্ত টার্ম কন্ডিশন্স আছে সেগুলো সঠিকভাবে মেনে চলা হয় না ফলে এখানে ইনসাইডার ট্রেডিং হয়,  কোম্পানির ওয়েব সাইটে ভূল তথ্য প্রকাশিত হয়, ইপিএস বাড়িয়ে দেখানোর সুযোগ দেয়া হয়।

আবার কোম্পানির লাভে টাকা উদ্দ্যেক্তার পকেটে চলে যায়। এতসব অনিয়মের কারনেই বাংলাদেশের শেয়ার ভাল হতে পারেনা। একটি কোম্পানি অনিয়ম করলে এর প্রভাব পড়ে অন্য আর দশটা কোম্পানিতে। ফলে ভাল কোম্পানিগুলো ভাল করতে পারেনা।

একটু খেয়াল করলে দেখবেন নাম সর্বস্ব অনেক কোম্পানি, যারা স্বল্প মূলধন কিন্তু এসব কোম্পানির স্টকের দাম বাড়ছে লাফিয়ে লাফিয়ে। অন্যদিকে অনেক ভাল ভাল কোম্পানি যারা সব কিছু নিয়ম মেনে চলে, ইপিএস, পিই রেশিও কিংম্বা অন্যান্য সব তথ্যই সঠিক সেগুলোর দাম বাড়েনা। এটার কোন সমাধান বিনিয়োগকারী কিংম্বা মালিকপক্ষের কারও হাতে নেই। বরং এটা দেখভাল করার জন্য যে কর্তৃপক্ষ আছে দায়টা তাদের।

তাই এ মার্কেটে বিনিয়োগ করতে গেলে এসব জেনে শুনেই বিনিয়োগ করতে হবে। নইলে মূলধন খোয়াতে হবে। অধিক স্মার্ট বিনিয়োগকারী হয়ে এসব ফাঁক ফোকর বুঝে তাদের সাথে সমান তালে চলে সুযোগটি গ্রহন করতে হবে। অন্তত প্রফিট নিতে চাইলে তাই করতে হবে।

কর্তৃপক্ষ এসব অনিয়ম দূর করার ব্যাপারে কতটুকু আন্তরিক জানতে চাইলে তার উত্তর-কর্তৃপক্ষ হয়ত চায় মার্কেট ভাল হোক, কিন্তু যাদের দিয়ে এসব পরিচালনা করা হয় তারা নিজেরা ততটা আন্তরিক নন, কিংম্বা স্বচ্ছ নয়। তা না হলে দিনের পর দিন একটা মার্কেট খারাপ করছে, অনিয়ম, ভূল চিহ্নিত হবে আবার তারা পার পেয়ে যাবে কেমন করে। এজন্য বিনিয়োগকারীদেরও নতুন নতুন পলিসী নিয়ে শেয়ার বাজারে বিনিয়োগ করতে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here