শীর্ষ ঋণ খেলাপি ৪টি কোম্পানির কমেছে দায়

0
805

সিনিয়র রিপোর্টার : দশম জাতীয় সংসদে ২০১৮ সালে দেশের শীর্ষ ১০০ ঋণ খেলাপি প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তির নাম প্রকাশ করা হয়। শীর্ষ ঋণ খেলাপির তালিকায় ছিল শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত ৪টি কোম্পানি। ঋণ পুনঃতফসিলের সময়সীমা বাড়ায় কোম্পানি ও ব্যাংকগুলোর ভার অনেকটা কমেছে বলে বিভিন্ন সূত্র জানায়।

শীর্ষ ঋণ খেলাপি কোম্পানিগুলো হলো- মু্নু গ্রুপের কোম্পানি মুন্নু ফেব্রিকস, সালেহ কার্পেট, ইন্ট্রাকো সিএনজি, এ্যাপেক্স উইভিং ও অলটেক্স ইন্ডাষ্ট্রিজ লিমিটেড। ইতোমধ্যে কোম্পানিগুলো খেলাপি ঋণের ২ শতাংশ টাকা কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ঘোষিত নীতিমালা অনুসারে কিছু টাকা পরিশোধ করেছে।

খেলাপি ঋণের মধ্যে শীর্ষ ১০টি ব্যাংকের কাছেও ছিল ৫২ হাজার কোটি টাকা। বাংলাদেশ ব্যাংকের ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারি মাসের প্রতিবেদন অনুসারে ১০টি ব্যাংকের মোট খেলাপি ঋণ ছিল ৬৫ ভাগ।

ব্যাংকগুলোর মধ্যে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত রয়েছে ৬ ব্যাংক রয়েছে। তা হলো- রূপালী ব্যাংক, ন্যাশনাল ব্যাংক, পূবালী ব্যাংক, ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক, প্রাইম ব্যাংক ও সিটি ব্যাংক।

বাংলাদেশ ব্যাংক মঙ্গলবার দ্বিতীয় দফা ঋণ পুনঃতফসিলের সময়সীমা বাড়ায়। হাইকোর্টের নির্দেশনা অনুযায়ী তৃতীয় দফায় আগামী ২০ অক্টোবর পর্যন্ত ঋণ পুনঃতফসিলের এ সুযোগ গ্রহণ করতে পারবেন গ্রাহক। তবে নিতে পারবেন না নতুন কোনো ঋণ।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এই সুযোগ গ্রহণ করেছে বেশ কয়েকটি কোম্পানি। ইতোমধ্যে আজিজ পাইপস লিমিটেড দুটি ব্যাংক থেকে ঋণের দায় মুক্তি পেয়েছে। ন্যাশনাল ব্যাংক লিমিটেডের ৮ কোটি ৮২ লাখ টাকা এবং সাউথইস্ট ব্যাংক লিমিটেড থেকে সুদবিহীন হিসেবে ঋণমুক্ত হয়েছে কোম্পানিটি।

একই সঙ্গে শীর্ষ ঋণ খেলাপি তালিকায় থাকা কোম্পানি ৪টির কর্তৃপক্ষ ঋণের দায় অনেক কমিয়েছে বলে বিভিন্ন সূত্র জানায়। ঋণ খেলাপির পরিমাণ ইতোমধ্যে ব্যাংকগুলো কমিয়েছে। তবে সম্প্রতি কি পারমাণ ঋণ কোম্পানিগুলো পরিশোধ করেছে তা এখনো প্রকাশ করেনি।

সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত দশম জাতীয় সংসদে দেশের শীর্ষ ১০০ ঋণ খেলাপি প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তির নাম প্রকাশ করেন।

১০০ শীর্ষ তালিকার ১৭ নম্বরে রয়েছে মুন্নু গ্রুপের মুন্নু ফেব্রিক্স, সালেহ কার্পেটের অবস্থান ২৪ নম্বরে, ইন্ট্রাকোর ৭৭ নম্বরে, এ্যাপেক্স উইভিং এন্ড অলটেক্স ফিনিশিংয়ের ৮৬ নম্বরে এবং অলটেক্স ইন্ডাষ্ট্রিজের অবস্থান ৯৭ নম্বর ক্রমিকে রয়েছে।

অন্যদিকে, মুন্নু উইভিং, সালেহ কার্পেট এবং এ্যাপেক্স উইভিং পুঁজিবাজারের ওভার দ্যা কাউন্টার (ওটিসি) মার্কেটে লেনদেন হচ্ছে।

মুন্নু গ্রুপের আরও দুটি কোম্পানি শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত রয়েছে। কোম্পানি দুটি হলো- মুন্নু সিরামিক ও মুন্নু স্ট্যাফলার্স লিমিটেড। বর্তমানে দেশের ৮৮ ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের খেলাপি ঋণ রয়েছে।

২০১৮ সালে সারাদেশে মোট খেলাপি ঋণের পরিমাণ ছিল ১ লাখ ৩১ হাজার ৬৬৬ কোটি টাকা, যা দেশের বাজেটের এক চতুর্থাংশেরও বেশি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here