শাশা ডেনিমসের একমাত্র বিদ্যুৎকেন্দ্রের উৎপাদন বন্ধ

0
182
-ফাইল ছবি।

সিনিয়র রিপোর্টার : বাংলাদেশ পাওয়ার ডেভেলপমেন্ট বোর্ডের (বিপিডিবি) সঙ্গে পাঁচ বছরের চুক্তির মেয়াদ ১১ জুলাই শেষ হয়েছে। যে কারণে ১২ জুলাই, সোমবার থেকে বন্ধ হয়েছে শাশা ডেনিমসের একমাত্র বিদ্যুৎকেন্দ্রের উৎপাদন।

তবে কোম্পানিটি আরো দুই বছরের জন্য চুক্তির মেয়াদ নবায়নের আবেদন করেছে। বিপিডিবির কাছ থেকে মেয়াদ বাড়ানোর অনুমোদন পেলে বিদ্যুৎকেন্দ্রটি আবারো উৎপাদনে যাবে বলে জানিয়েছেন কোম্পানিটির কর্মকর্তারা।

কোম্পানির চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ চট্টগ্রাম-৫ আসনের সংসদ সদস্য। মন্ত্রী হিসেবেও তিনি বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালন করেছেন।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) মাধ্যমে কোম্পানিটি জানায়, শাশা ডেনিমসের সাবসিডিয়ারি এনার্জিস পাওয়ার করপোরেশন লিমিটেড (ইপিসিএল) ২০১৪ সালের ৯ ফেব্রুয়ারি বিপিডিবির সঙ্গে ৫৫ মেগাওয়াট বিদু্যুৎ সরবরাহের চুক্তি করে। চুক্তির মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ার কারণে ১১ জুলাই থেকে কেন্দ্রটিতে বিদ্যুৎ উৎপাদন বন্ধ থাকবে। তবে এরই মধ্যে আরো দুই বছরের জন্য চুক্তির মেয়াদ নবায়ন করতে গত বছরের ৩০ আগস্ট বিপিডিবির কাছে আবেদন করা হয়েছে। তাদের কাছ থেকে অনুমোদন পেলে আবারো বিদ্যুৎকেন্দ্রটিতে উৎপাদন শুরু হবে।

জানতে চাইলে শাশা ডেনিমসের কোম্পানি সচিব আসলাম আহমেদ খান বলেন, চুক্তির মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ার কারণে বিপিডিবি থেকে উৎপাদন বন্ধ রাখার কথা বলা হয়েছে। তাই আমরা উৎপাদন বন্ধ রাখছি। তবে আমাদের পক্ষ থেকে চুক্তির মেয়াদ বাড়ানোর আবেদন করা হয়েছে, যা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। আশা করছি খুব দ্রুতই মেয়াদ বাড়ানোর অনুমোদন পেয়ে যাব।

২০১৭-১৮ হিসাব বছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুসারে, শাশা ডেনিমসের সমন্বিত রেভিনিউ হয়েছে ৭৫১ কোটি টাকা, যা এর আগের বছরে ছিল ৬২৫ কোটি টাকা। আলোচ্য হিসাব বছরে কোম্পানিটির কর-পরবর্তী মুনাফা হয়েছে ৫৫ কোটি টাকা, যা এর আগের বছরে ছিল ৫৯ কোটি টাকা।

৩০ জুন সমাপ্ত ২০১৮ হিসাব বছরের জন্য ১৫ শতাংশ নগদ ও ৭ শতাংশ স্টক লভ্যাংশ দিয়েছে রফতানিমুখী ডেনিম কোম্পানিটি। বার্ষিক শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ৪ টাকা ৬৪ পয়সা ও শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদমূল্য (এনএভিপিএস) ৪৯ টাকা ৬৯ পয়সা।

এর আগে ২০১৭ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাব বছরে ১২ দশমিক ৫ শতাংশ অন্তর্বর্তী নগদ লভ্যাংশ, ১২ দশমিক ৫ শতাংশ চূড়ান্ত নগদ ও ৬ শতাংশ স্টক লভ্যাংশ দেয় শাশা ডেনিমস। সে বছর প্রতিষ্ঠানটির ইপিএস হয় ৫ টাকা ২৩ পয়সা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here