শ্যামল রায়ঃ শেয়ার বাজারে একটি ভাল ব্রোকারেজ হাউজের চাহিদা সব সময় লক্ষ্য করা যায়।  বর্তমানে দেশের ঢাকা সহ বিভাগীয় শহরগুলোতেও অনেক ব্রোকারেজ হাউজ ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে। তবে সবগুলোর সেবার মান সেবার ধরন এক নয়। তাইতো বিনিয়োগকারীরা বিনিয়োগের পূর্বে একটি ভালো ব্রোকারেজ হাউজের সন্ধান করে থাকেন। তাদের এই কাজটি সহজ করে দেবার জন্য স্টক বাংলাদেশ ধারাবাহিকভাবে ভালো ব্রোকারেজ হাউস সমূহের প্রোফাইল তুলে ধরছে। এবারে তুলে ধরা হল শার্প সিকিউরিটিজ লিঃ এর প্রোফাইল।

শার্প সিকিউরিটিজ লিমিটেড

বিনিয়োগকারীদের দোরগোড়ায় সেবা পৌছে দেওয়ার লক্ষ্য নিয়ে ২০০৫ সালে যাত্রা শুরু করে শার্প সিকিউরিটিজ। তাদের সেবার মান বিনিয়োগকারীদের দ্রুত আকর্ষণ করে। ফলশ্রুতিতে দিনকে দিন বাড়তে থাকে তাদের বিনিয়োগকারীর সংখ্যা। বিনিয়োগকারীদের চাহিদার কারণে তাদের ব্রাঞ্চের সংখ্যাও বৃদ্ধি করতে হয়। বর্তমানে শার্প সিকিউরিটিজে রয়েছে ৬টি ব্রাঞ্চ। এর মধ্যে ঢাকায় ৫টি এবং সিলেটে রয়েছে ১টি শাখা।

বর্তমানে ডিজিটাল যুগ প্রযুক্তির ছোয়া সর্বত্তই। এই বিষয়টাকে গুরুত্ব দিয়ে শার্প তাদের সেবা প্রদানের ক্ষেত্রে প্রযুক্তির সর্বোত্তম ব্যবহার সর্বচ্চ চেষ্টা করে যাচ্ছে। এই জন্য রয়েছে তাদের বিশাল একটি রিসার্স এন্ড ডেভেলপমেন্ট টিম।  যারা বিনিয়োগকারীদের উন্নয়নকল্পে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। দিচ্ছে প্রযুক্তির সহায়তা। এই জন্য তারা ফান্ডামেন্টাল, টেকনিক্যাল এবং সাইকোলজিকাল এন্যালাইসিস এর মাধ্যমে ইনভেস্টরদের সচেতন করে তুলছে। তাদের পাবলিকেশনের ব্যবস্থা রয়েছে। প্রয়োজনে তারা বাংলায় অনুবাদ করেও বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ প্রসপেকটাস ও বই থেকে তথ্য সংগ্রহ করছে। মাঝে মাঝেই সভা সেমিনার এবং ওয়ার্কসপগুলোতে শার্প সিকিউরিটিজের বিনিয়োগকারীরা যাতে পার্টিসিপেট করতে পারে সেই চেষ্টা তারা অব্যাহত রাখছে।

সুবিধার কথা বলতে গিয়ে শার্প সিকিউরিটিজের ডেপুটি ম্যানেজার সায়েম মাহমুদ খান জানালেন ক্লায়েন্টরা যাতে ঘরে বসে ট্রেড করতে পারে সেই ধরনের সুবিধা দিচ্ছি আমরা।  বাংলাদেশের  যেকোন জায়গা থেকে ইনভেষ্টররা আমাদের মাধ্যমে ট্রেড সুবিধা গ্রহন করতে পারবেন।  এই জন্য মোবাইল ট্রেড চালু রয়েছে আমাদের।

আফটার ট্রেড পোর্টফোলিও ইমেইলে পাঠানোর  ব্যবস্থা রয়েছে আমাদের। আমাদের আইপিএ সিস্টেম অত্যন্ত সহজতর। হাউজে ইনফর্ম করলে কিংবা আমাদের ওয়েবসাইটে গিয়ে রিকোয়েষ্ট পাঠালেও আমরা আইপিএ সুবিধা দিয়ে থাকি।

টাকা তুলার  ক্ষেত্রেও গ্রাহকরা যাতে অতি সহজে তুলতে পারে এই জন্য সর্বাত্তক চেষ্টা থাকে আমাদের। ইমেইলেও ট্রেড সুবিধা প্রদান করে থাকি আমরা। এই মূহুর্তে আমাদের প্রায় ১৬ হাজার অধিক বিনিয়োগকারী রয়েছে। প্রতিদিন প্রায় ৩০/৩৫ জন করে উপস্থীত থাকে প্রত্যেকটি হাউজে।

বিনিয়োগকারীরা যাতে বোর ফিল না করে সে জন্য রিফ্রেশমেন্ট এর ব্যবস্থা রয়েছে আমাদের। এছাড়া বিশেষ বিশেষ দিনগুলোতে বিশেষ বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া হয় আমাদের হাউজগুলোতে। আমরা বিনিয়োগকারীদের অর্থের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা দিয়ে থাকি। এছাড়া আমাদের কমিশন রেটও অত্যান্ত ভালো । আমাদের আইটি সিস্টেম অত্যান্ত ভালো। ডিএসই মোবাইল এপস চালু রয়েছে আমাদের। ক্লায়েন্টদের অবস্থা বিচার করে মার্জিন ঋণ সুবিধাও দিয়ে থাকি আমরা।

বর্তমান বাজার সম্পর্কে বলতে গিয়ে ডেপুটি ম্যানেজার সায়েম মাহমুদ খান জানালেন, শেয়ার বাজারে অনেকগুলো সংস্কার হয়েছে। যা পুজিবাজারকে অনেক শক্তিশালী করেছে। তবে আমরা আশা করছি। আরও শক্তিশালী হবে আমাদের পুজিবাজার।

সাম্প্রতিক বাজারে যে ডিজাস্টার লক্ষ্য করা যাচ্ছে এটা সাময়িক। এটা অনেকটা ডিভিডেন্ট এর প্রভাব বাজেটের প্রভাব অবশ্যই পড়বে আমাদের পূজিবাজারে। আশা করবো এটা পজেটিভলী ইম্পেক্ট ফেলবে। কোন কোন সেক্টর খুব ভালো হবে। এর মধ্যে আইটি ও পাওয়ার সেক্টর ভালো করবে আশা করা যাচ্ছে। সব মিলিয়ে শেয়ার বাজারে স্বাভাবিক গতি ফিরে আসবে।

বিঃ দ্রঃ শার্প সিকিউরিটিজের সকল বিনিয়োগকারীদের দৃষ্টি আকর্ষন করছি আগামী ২০ জুন এর মধ্যে তাদের বার্ষিক নবায়ন ফি জমা দিতে বলা হচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here