সিনিয়র রিপোর্টার : প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে গেল মাসে তালিকাভুক্ত হওয়া প্রকৌশল খাতের কোম্পানি বিবিএস কেবলস লিমিটেডের শেয়ারদর লাগাম ছাড়া বাড়ছে। দেশের উভয় স্টক এক্সচেঞ্জে লেনদেন শুরুর পর ১৪ কার্যদিবসে কোম্পানিটির শেয়ারদর ইস্যুমূল্যের তুলনায় প্রায় ১৪ গুণ বেড়েছে।

এ দর বৃদ্ধিকে অস্বাভাবিক বলে মনে করছে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। বিষয়টি খতিয়ে দেখার জন্য একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

কমিশন সূত্রে জানা যায়, বিএসইসির উপপরিচালক মো. শামসুর রহমানকে প্রধান করে সহকারী পরিচালক মো. রকিবুর রহমান ও ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) ইনভেস্টিগেশন অ্যান্ড এনফোর্সমেন্ট বিভাগের ব্যবস্থাপক মো. আরিফুর রহমান চৌধুরীর সমন্বয়ে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। আগামী সাত কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

বিএসইসির মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক মো. সাইফুর রহমান এ বিষয়ে বলেন, কোম্পানিটির শেয়ারের দরবৃদ্ধি কমিশনের কাছে অস্বাভাবিক মনে হয়েছে। তাছাড়া সম্প্রতি রাজধানীর একটি পাঁচতারকা হোটেলে বিবিএস গ্রুপের চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠান হয়। এটি বিবিএস কেবলসের সাবসিডিয়ারি প্রতিষ্ঠান নয় এবং অনুষ্ঠানের বিষয়টি মূল্যসংবেদনশীল তথ্য হিসেবে আসেনি।

তবে কমিশন মনে করছে, এ চুক্তির খবর তালিকাভুক্ত কোম্পানিটির শেয়ারে বিনিয়োগকারীদের প্রলুব্ধ করেছে। এর বাইরে বিবিএস কেবলস শেয়ারের লেনদেন-সংক্রান্ত কিছু পর্যবেক্ষণও রয়েছে কমিশনের। সবকিছু খতিয়ে দেখার জন্য একটি তদন্ত কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

এদিকে চুক্তি বিষয়ে জানতে বিবিএস কেবলসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী আবু নোমান হাওলাদারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, গ্রুপের অন্য কোম্পানি বিবিএস কেবলস ইউনিট-২ লিমিটেডের মেশিনারিজ আমদানির জন্য সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সম্প্রতি একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। এ অনুষ্ঠানের সঙ্গে তালিকাভুক্ত কোম্পানিটির কোনো সম্পর্ক নেই।

তথ্য পর্যালোচনায় দেখা যায়, ডিএসইতে ৩১ জুলাই লেনদেন শুরুর দিন থেকে ২২ আগস্ট পর্যন্ত ১৫ কার্যদিবসে বিবিএস কেবলসের ৪ কোটি ৯০ লাখ ৯৬ হাজার ৮৩০টি শেয়ার লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে লেনদেন শুরুর দিন সর্বোচ্চ ৮৯ লাখ ৭০ হাজার ৩১০টি শেয়ার লেনদেন হয়েছে। এদিন কোম্পানিটির শেয়ারে প্রায় ৮০০ শতাংশ মূলধনি মুনাফা এসেছে।

লেনদেন হওয়া ১৫ কার্যদিবসের মধ্যে মাত্র তিন কার্যদিবস কোম্পানির শেয়ারদর কমেছিল। ৩১ জুলাই থেকে ২১ আগস্ট পর্যন্ত ১৪ কার্যদিবসে এর শেয়ারদর ইস্যুমূল্যের তুলনায় ১ হাজার ৩৯৭ শতাংশ বেড়েছে।

প্রথম কার্যদিবসে ৫১ টাকায় লেনদেন শুরু হয়ে ৯০ টাকা ৩০ পয়সায় শেষ হয়েছে। আর সর্বশেষ গতকাল ১৪৬ টাকা ৯০ পয়সায় এ কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয়। তাছাড়া ১৫ কার্যদিবসের মধ্যে সর্বোচ্চ ১৫২ টাকা ৯০ পয়সা ও সর্বনিম্ন ৫১ টাকায় বিবিএস কেবলসের শেয়ার লেনদেন হয়েছে।

এদিকে লাগামহীন দরবৃদ্ধির প্রভাবে এরই মধ্যে কোম্পানির শেয়ারের মূল্য আয় (পিই) অনুপাত বেশ ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থানে চলে গেছে। সর্বশেষ অনিরীক্ষিত মুনাফা ও বাজারদরের ভিত্তিতে এ শেয়ারের পিই অনুপাত ৫৬ দশমিক ৫০। বিএসইসির নির্দেশনা অনুসারে পিই অনুপাত ৪০ কিংবা তার বেশি হলে সে কোম্পানির শেয়ারের মার্জিন ঋণ সুবিধা বন্ধ থাকার বিধান রয়েছে।

সর্বশেষ অনিরীক্ষিত ফলাফলে দেখা যায়, ২০১৬ সালের জুলাই থেকে গত মার্চ পর্যন্ত (প্রথম তিন প্রান্তিক) কোম্পানিটির নিট মুনাফা হয়েছে ২৩ কোটি ৩৫ লাখ ৪০ হাজার টাকা, আগের বছর একই সময়ে যা ছিল ১৭ কোটি ২২ লাখ টাকা। প্রথম তিন প্রান্তিকে আইপিও-পরবর্তী ইপিএস হয়েছে ১ টাকা ৯৫ পয়সা। ৩১ মার্চ কোম্পানির শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদমূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ১৭ টাকা ৬৭ পয়সা।

২০১৬ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাব বছরের নিরীক্ষিত প্রতিবেদন অনুসারে কোম্পানিটির নিট মুনাফা ছিল ২৪ কোটি ৬০ লাখ ৮০ হাজার টাকা। আইপিও-পরবর্তী শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ২ টাকা ৫ পয়সা।

প্রসঙ্গত, বিএসইসির ৬০১তম কমিশন সভায় পুঁজিবাজার থেকে ২০ কোটি টাকা মূলধন উত্তোলনের অনুমোদন পায় বিবিএস কেবলস। এজন্য ১০ টাকা অভিহিত মূল্যে ২ কোটি শেয়ার ইস্যু করে কোম্পানিটি। সংগৃহীত অর্থে প্লান্ট ও মেশিনারিজ ক্রয়, ভবন নির্মাণ, ঋণ পরিশোধ এবং আইপিওর খরচ বাবদ ব্যবহার করার কথা রয়েছে। কোম্পানিটির ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে ছিল বাংকো ফিন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড ও আইসিবি ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট লিমিটেড।

৩০০ কোটি টাকা অনুমোদিত মূলধনের বিপরীতে বর্তমানে কোম্পানিটির পরিশোধিত মূলধন ১২০ কোটি টাকা। রিজার্ভ ৬৮ কোটি ৭১ লাখ টাকা। কোম্পানির মোট শেয়ারের ৩৩ দশমিক ৩৩ শতাংশ রয়েছে কোম্পানির উদ্যোক্তা-পরিচালকদের কাছে, প্রতিষ্ঠান ২৯ দশমিক ৬, বিদেশী দশমিক ৩৬ ও বাকি ৩৬ দশমিক ৭১ শতাংশ শেয়ার রয়েছে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের হাতে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here