লাইসেন্স পাচ্ছে বেঙ্গল কমার্শিয়াল ব্যাংক, এরপরে সিটিজেন

0
314

সিনিয়র রিপোর্টার : চলতি মাসেই লাইসেন্স পেতে যাচ্ছে বেঙ্গল কমার্শিয়াল ব্যাংক। আগামী ডিসেম্বরের মধ্যেই এটি চালু করতে চান উদ্যোক্তারা। এছাড়া দ্য সিটিজেন ব্যাংকেরও এ মাসেই লাইসেন্স পাওয়ার কথা।

দুটি ব্যাংকের নামে লেটার অব ইনটেন্ট বা এলওআই ইস্যু করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। তবে লাইসেন্স পেতে আরও সময় লাগতে পারে পিপলস ব্যাংকের। এখনও এটির চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়নি কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক আবু ফারাহ মো. নাছের বলেন, এ পর্যন্ত ৫৯টি ব্যাংকের লাইসেন্স দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট একজন কর্মকর্তা বলেন, রাজনৈতিক বিবেচনায় ব্যাংকের অনুমোদন দেওয়া হলেও লাইসেন্স পেতে উদ্যোক্তাদের বাংলাদেশ ব্যাংকের বেঁধে দেওয়া ৩১টি শর্ত পূরণ করতে হয়। লাইসেন্স পাওয়ার পর ব্যাংকের কার্যক্রম চালু করার ক্ষেত্রে কোনও সময়সীমা নেই।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংক লাইসেন্স দেওয়ার পর ব্যাংক পরিচালনার জন্য ব্যাংকটির পর্ষদকে ১৬টি শর্ত বেধে দেওয়া হয়। এসব শর্ত ভঙ্গ করলে ব্যাংকের লাইসেন্স বাতিল হতে পারে বলে জানান তিনি।

বেঙ্গল কমার্শিয়াল ব্যাংকের প্রধান উদ্যোক্তা বেঙ্গল গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান মো. জসিম উদ্দিন বলেন, আগামী ডিসেম্বরের মধ্যেই যাতে বেঙ্গল কমার্শিয়াল ব্যাংক চালু করা যায়, সেভাবে কাজ এগিয়ে চলছে। এ মাসেই আমরা লাইসেন্সের জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে আবেদন করবো। এরই মধ্যে গুলশানের খন্দকার টাওয়ারে ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ের জন্য অফিস নেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, বেঙ্গল কমার্শিয়াল ব্যাংক এসএমই খাতকে বেশি গুরুত্ব দেবে। বেঙ্গল ব্যাংক থেকে ছোট উদ্যোক্তারা যাতে সুবিধা পেতে পারেন, সে ব্যাপারেও বেশি নজর থাকবে বলে জানান তিনি।

এদিকে, এ মাসেই চালু হতে পারে পুলিশের মালিকানাধীন কমিউনিটি ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড। গুলশানের পুলিশ প্লাজায় প্রধান কার্যালয়ের পাশাপাশি প্রিন্সিপাল শাখাসহ ৬টি শাখা দিয়ে এটির কার্যক্রম চালু হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ব্যাংকটির উদ্বোধন করার কথা রয়েছে।

প্রসঙ্গত, আওয়ামী লীগ সরকার রাজনৈতিক বিবেচনায় ২০১২ সালে ৯টি বেসরকারি ব্যাংকের লাইসেন্স দেওয়ার পর ব্যাপক সমালোচনা হয়। এছাড়া ঋণ জালিয়াতি ও তারল্য-সংকট বেড়ে যাওয়ায় ব্যাংকিং খাত নিয়েও ব্যাপক সমালোচনা হয়। এরই মধ্যে ‘রাজনৈতিক বিবেচনায়’ ৪টি ব্যাংকের অনুমোদন দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। অনুমোদন পাওয়া এসব ব্যাংকের মালিকানায় আছেন মন্ত্রী, এমপি ও সরকারি দল সমর্থক ব্যবসায়ীরা।

এ ৪টি ব্যাংক চালু হলে দেশে বাণিজ্যিক ব্যাংকের সংখ্যা দাঁড়াবে ৬২টিতে।

এর আগে রাজনৈতিক বিবেচনায় ৯টি ব্যাংকের অনুমোদন দেওয়া হয়। এছাড়া সেনাবাহিনীর ব্যবস্থাপনায় পরিচালিত ট্রাস্ট ব্যাংকের আদলে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের মালিকানাধীন সীমান্ত ব্যাংক নামে আরও একটি ব্যাংক চালু হয়।

গত ১৭ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের সভায় বেঙ্গল কমার্শিয়াল, সিটিজেন ও পিপলস নামে নতুন ৩টি ব্যাংকের নীতিগত অনুমোদন দেওয়া হয়।

বেঙ্গল কমার্শিয়াল ব্যাংকের প্রধান উদ্যোক্তা বেঙ্গল গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান মো. জসিম উদ্দিন। তিনি আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য মোরশেদ আলমের ভাই। দ্য সিটিজেন ব্যাংকের মালিক আইনমন্ত্রী আনিসুল হকের মা জাহানারা হক। পিপলস ব্যাংকের উদ্যোক্তা চট্টগ্রামের বাসিন্দা যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের নেতা এম এ কাশেম।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here