রোববার সন্ধ্যায় খুলছে সিটিসেলের তরঙ্গ

0
250

সিনিয়র রিপোর্টার : বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) রোববার, ৬ নভেম্বর সন্ধ্যার মধ্যেই সিটিসেলের বরাদ্দকৃত তরঙ্গ খুলে দেবে। বিটিআরসি চেয়ারম্যান শাহজাহান মাহমুদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

বিটিআরসি চেয়ারম্যান শাহজাহান মাহমুদ জানান, আদালতের আদেশের লিখিত কপি পাওয়ার পর এ এজেন্ডা নিয়ে মিটিং করা হয়েছে। সে মিটিংয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে সন্ধ্যার মধ্যেই সিটিসেলের বরাদ্দকৃত তরঙ্গ খুলে দেয়া হবে। সেভাবেই কমিশন কাজ করছে বলেও জানান তিনি।

এর আগে গত ৩ নভেম্বর সেলফোন অপারেটর সিটিসেলের তরঙ্গ বরাদ্দ খুলে দেয়ার নির্দেশ দেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। তবে শর্ত ছিলো আগামী ১৯ নভেম্বরের মধ্যে সেলফোন অপারেটরটিকে পরিশোধ করতে হবে ১০০ কোটি টাকা।

আদালতের নির্দেশনার পরও সিটিসেলকে কেন তরঙ্গ বরাদ্দ দেয়া হয়নি তার ব্যাখ্যা রোববার (৬ নভেম্বর) দুপুরের মধ্যে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ সংস্থার (বিটিআরসির) কাছে জানতে চেয়েছেন আপিল বিভাগ।

প্রসঙ্গত, তরঙ্গ বরাদ্দ বাতিলের সিদ্ধান্ত স্থগিত বা পুনরায় তরঙ্গ বরাদ্দের নির্দেশনা চেয়ে গত ২৪ অক্টোবর আবেদন করে সিটিসেল।
বারবার তাগাদা দেয়ার পরও সরকারের পাওনা প্রায় ৪৭৭ কোটি ৫১ লাখ টাকা পরিশোধ করতে না পারায় সিটিসেলের কার্যক্রম বন্ধ করার ঘোষণা দিয়েছিল বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ (বিটিআরসি)। পরের মাসে তাদের নোটিসও দেয়া হয়। এর পর ৯ আগস্ট সিটিসেলের আবেদনে সাড়া দিয়ে টাকা পরিশোধসাপেক্ষে কার্যক্রম চালিয়ে যেতে দুই মাস সময় দেয় আপিল বিভাগ।

এরপর গত ২০ অক্টোবর সিটিসেলের তরঙ্গ স্থগিত করার পর ওই দিন সন্ধ্যায় বিটিআরসির কর্মকর্তারা র‌্যাব-পুলিশ নিয়ে মহাখালীতে সিটিসেলের প্রধান কার্যালয়ে ঢুকে তরঙ্গ বন্ধের নির্দেশনা বাস্তবায়ন করেন।

গত ২৫ অক্টোবর তরঙ্গ বাতিলের সিদ্ধান্ত স্থগিত বা পুনরায় তরঙ্গের সংযোগ দেয়ার নির্দেশ চেয়ে সিটিসেলের আবেদন শুনে চেম্বার আদালত তা ৩১ অক্টোবর পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে শুনানির জন্য পাঠিয়ে দেন।

এর আগে বকেয়া পরিশোধে ব্যর্থতার কারণে গত ৩১ জুলাই প্রতিষ্ঠানটির গ্রাহকদের বিকল্প কোনো সেবা গ্রহণের নির্দেশনা দেয় বিটিআরসি। ওই নির্দেশনায় বলা হয়, সরকারের প্রাপ্য রাজস্ব পরিশোধ না করে অপারেশনাল কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়ার মাধ্যমে লাইসেন্সের শর্ত ও টেলিযোগাযোগ আইন, ২০০১-এর বিধান লঙ্ঘন করেছে সিটিসেল। এ অবস্থায় প্রতিষ্ঠানটির সেলুলার মোবাইল ফোন অপারেটর লাইসেন্স ও রেডিও কমিউনিকেশন্স ইকুইপমেন্ট লাইসেন্স বাতিল করার নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here