রূপসী বাংলার সংস্কারকাজ সেপ্টেম্বরে শেষ

0
260

স্টাফ রিপোর্টার : চলতি বছরের আগস্টের মধ্যে হোটেল রূপসী বাংলার সংস্কারকাজ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও নির্ধারিত সময়ের মধ্যে তা সম্পন্ন করা সম্ভব হয়নি। তবে সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে সংস্কারকাজ শেষ করে ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেলস গ্রুপের (আইএইচজি) কাছে হস্তান্তর করা সম্ভব হবে বলে মনে করছে হোটেলটির স্বত্বাধিকারী প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ সার্ভিসেস লিমিটেড (বিডি সার্ভিস)। হোটেলটি চালুর বিষয়ে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) চিঠির জবাবে এ তথ্য জানিয়েছে কোম্পানিটি।

বিডি সার্ভিস কর্তৃপক্ষ ডিএসইকে জানিয়েছে, সংস্কার শেষে হোটেলটি আইএইচজির কাছে হস্তান্তরের পর এর টেস্টিং ও কমিশনিং কার্যক্রম শুরু হবে। আর টেস্টিং ও কমিশনিংয়ের পর হোটেলটির বাণিজ্যিক কার্যক্রম শুরুর তারিখ চূড়ান্ত করবে আইএইচজি।

জানা গেছে, হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টাল হিসেবে নতুন নামে চালু করার লক্ষ্যে ২০১৪ সালে রূপসী বাংলা হোটেলের সংস্কারকাজ শুরু করে সরকার। পরিকল্পনা অনুযায়ী সব কাজ শেষ না হওয়ায় এর আগে কয়েক দফা সময় বাড়িয়ে সর্বশেষ চলতি বছরের জানুয়ারিতে ইন্টারকন্টিনেন্টাল নামে পরিচালন কার্যক্রম শুরু করার ঘোষণা আসে ডিএসইতে। এজন্য গত বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে সব ধরনের সংস্কার ও উন্নয়নকাজ শেষ করার কথাও জানিয়েছিল প্রতিষ্ঠানটি। তবে সে সময় এর সংস্কারকাজ শেষ না হওয়ায় এ বছরের আগস্টে কাজ শেষ করার সময়সীমা নির্ধারণ করা হয়।

উল্লেখ্য, সংস্কার শেষে হোটেলের বর্তমান রুম সংখ্যা পূর্বের ২৭৭ থেকে হবে ২৩১। চুক্তি অনুযায়ী ইন্টার কন্টিনেন্টাল হোটেলস গ্রুপের ব্র্যান্ড স্ট্যান্ডার্ড অনুযায়ী সংস্কার সম্পন্ন হওয়ার পর হোটেলটি ‘ইন্টার কন্টিনেন্টাল ঢাকা’ নামে ব্র্যান্ডিং করা হবে। ইন্টার কন্টিনেন্টালের জেনারেল ম্যানেজারের দায়িত্বে রয়েছেন জেমস ম্যাকডোনাল্ড। হোটেল সংস্কারের পর বিনিয়োগের অর্থ উত্তোলনে প্রয়োজনে মার্কেটে শেয়ার ছাড়ার পরিকল্পনার রয়েছে হোটেল কর্তৃপক্ষের।

এদিকে চলতি হিসাব বছরের প্রথম তিন প্রান্তিকে (জুলাই-মার্চ) শেয়ারপ্রতি ৩ টাকা ৪৬ পয়সা লোকসান দেখিয়েছে বিডি সার্ভিস। যেখানে আগের বছর একই সময়ে লোকসান ছিল ২ টাকা ৪৩ পয়সা। ৩০ মার্চ এর শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদমূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়ায় ২ টাকা ৬৩ পয়সায়। আলোচ্য সময়ে কোম্পানিটির টার্নওভার হয়েছে ২০ কোটি ৩৭ লাখ ৩০ হাজার টাকা। রূপসী বাংলা ছাড়াও বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের (বিআইসিসি) ব্যবসা থেকেও আয় করে থাকে বিডি সার্ভিস।

লোকসানের কারণে ৩০ জুন সমাপ্ত ২০১৭ হিসাব বছরের জন্য শেয়ারহোল্ডারদের কোনো লভ্যাংশ দেয়নি বিডি সার্ভিস। নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন ও অন্যান্য এজেন্ডা অনুমোদনের জন্য গত ২৮ ডিসেম্বর সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় রাজধানীর বঙ্গবন্ধু ইন্টারন্যাশনাল কনফারেন্স সেন্টারে (বিআইসিসি) বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) আয়োজন করে কোম্পানিটি। রেকর্ড ডেট ছিল ৪ ডিসেম্বর।

নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুসারে, সর্বশেষ হিসাব বছরে বিডি সার্ভিসের শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছে ৫ টাকা ৪ পয়সা, যেখানে আগের হিসাব বছরে লোকসান ছিল ৫ টাকা ১০ পয়সা। ৩০ জুন এর শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদমূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়ায় ৬ টাকা ৯ পয়সায়।

২০১৬ সালের ৩০ জুন ১৮ মাসে সমাপ্ত হিসাব বছরের জন্যও কোনো লভ্যাংশ দেয়নি বিডি সার্ভিসেস। জুন ক্লোজিংয়ের বাধ্যবাধকতায় সেবার ১৮ মাসে হিসাব বছর গণনা করেছে ভ্রমণ-অবকাশ খাতের কোম্পানিটি। সর্বশেষ ২০১৪ হিসাব বছরে ১৫ শতাংশ স্টক লভ্যাংশ পান কোম্পানিটির শেয়ারহোল্ডাররা। সে বছর এর শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ৩৮ পয়সা।

উন্নয়নকাজ চলমান থাকায় কোম্পানিটির নিয়ন্ত্রণাধীন পাঁচ তারকা রূপসী বাংলা হোটেলের পরিচালন কার্যক্রম বন্ধ। আর এ কারণে জেড ক্যাটাগরিতে চলে আসে বিডি সার্ভিসেস। দীর্ঘদিন ধরেই স্টক এক্সচেঞ্জে বিডি সার্ভিসেসের কোনো শেয়ার হাতবদল হয় না।

১৯৮৪ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানিটির পরিশোধিত মূলধন ৯৭ কোটি ৭৮ লাখ ৮০ হাজার টাকা, পুঞ্জীভূত লোকসান ৩৮ কোটি ২৭ লাখ টাকা। এর মোট শেয়ারের ৯৯ দশমিক ৬৮ শতাংশ সরকারের কাছে, শূন্য দশমিক ১৯ শতাংশ বিদেশী ও শূন্য দশমিক ১৩ শতাংশ শেয়ার রয়েছে সাধারণ বিনিয়োগকারীর কাছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here