রানারের আইপিও আবেদন ৩১ জানুয়ারি থেকে শুরু

0
2410

স্টাফ রিপোর্টার : রানার অটোমোবাইলসের প্রাথমিক গণপ্রস্তাব (আইপিও) ৩১ জানুয়ারি, বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হয়ে চলবে ১০ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। বুক বিল্ডিং পদ্ধতির মাধ্যমে পুঁজিবাজার থেকে ১০০ কোটি টাকা মূলধন উত্তোলন করছে রানার অটোমোবাইলস।

আইপিওতে এরমধ্যে ৬৭ টাকা দরে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের অনুকূলে ৫৫ লাখ ৯৭ হাজার ১৫টি শেয়ার ইস্যু করবে কোম্পানিটি।

এর মধ্যে নিলামে নির্ধারিত মূল্য (কাট অফ প্রাইস) ৭৫ টাকা দরে  যোগ্য প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের (ইআই) কাছে ৬০ শতাংশ বা ৮৩ লাখ ৩৩ হাজার ৩৩৩টি শেয়ার বিক্রি করে ৬২ কোটি ৪৯ লাখ টাকা সংগ্রহ করেছে কোম্পানিটি। সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছে কাট-অফ প্রাইসের চেয়ে ১০ শতাংশ কম দামে বাকি ৪০ শতাংশ শেয়ার বিক্রি করবে তারা। আর এর মাধ্যমে ৩৭ কোটি ৫০ লাখ টাকা সংগ্রহ করা হবে।

আইপিওর মাধ্যমে পুঁজিবাজার থেকে উত্তোলিত অর্থ গবেষণা ও উন্নয়ন, যন্ত্রপাতি ক্রয়, ব্যাংক ঋণ পরিশোধ এবং আইপিওর ব্যয় নির্বাহে খরচ রানার অটোমোবাইলস।

আর্থিক প্রতিবেদন অনুসারে, পুনর্মূল্যায়নজনিত উদ্বৃত্তসহ কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ৫৫ টাকা ৭০ পয়সা। এ উদ্বৃত্ত হিসাব না করলে কোম্পানিটির এনএভিপিএস দাঁড়ায় ৪১ টাকা ৯৪ পয়সা।

৩০ জুন ২০১৭ সমাপ্ত হিসাববছরে কোম্পানির সম্পদ পুনর্মূল্যায়ন পরবর্তী শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভি) ছিল ৫৫ টাকা ৭০ পয়সা। আর পুনর্মূল্যায়ন ছাড়া এনএভি ৪১ টাকা ৯৪ পয়সা।ভারিত গড় হিসাবে শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) ৩ টাকা ৩১ পয়সা।

২০০০ সালে যাত্রা শুরু করা রানার অটোমোবাইলস বর্তমানে ৮০ থেকে ১৫০ সিসি সেগমেন্টের বিভিন্ন মডেলের মোটরসাইকেল উৎপাদন ও বাজারজাত করছে। কোম্পানির ভাষ্য অনুসারে, ১০০ সিসির কম সক্ষমতার মোটরসাইকেলের বাজারে তাদের একক আধিপত্য।

২০১৭ সাল থেকে নেপালের বাজারে মোটরসাইকেল রফতানি করছে কোম্পানিটি। সম্প্রতি কোম্পানিটি শুধু রফতানি বাজারের উদ্দেশ্যে ৫০০ সিসি মোটরসাইকেল উৎপাদনেরও অনুমোদন পেয়েছে সরকারের কাছ থেকে। দেশে ইউএম ব্র্যান্ডের বেশ কয়েকটি মডেলের মোটরসাইকেল উৎপাদনে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক ইউনাইটেড মোটরসের সঙ্গে কারিগরি অংশীদারিত্বে গেছে রানার। মোটরসাইকেল ব্যবসার বাইরে কোম্পানিটি এখন দেশের বাজারে ভারতীয় বাজাজ অটোর এলপিজিচালিত থ্রি হুইলারের পরিবেশক হিসেবেও কাজ করছে।

রানার অটোমোবাইলসের দুটি সাবসিডিয়ারি প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এর মধ্যে রানার মোটরস লিমিটেডের ৬১ দশমিক ৬৭ শতাংশ শেয়ার এবং ফ্রিডম মোটরস লিমিটেডের ৯৯ দশমিক ৯৯ শতাংশ শেয়ার রানার অটোমোবাইলসের হাতে। রানার মোটরস বাংলাদেশে ভলভো-আইশারের বাণিজ্যিক যান বিপণন করছে।

ময়মনসিংহের ভালুকায় নিজস্ব কারখানা কমপ্লেক্সে ভলভো-আইশারের বাণিজ্যিক যান সংযোজনেরও প্রস্তুতি নিয়েছে কোম্পানিটি। অন্যদিকে ভারতীয় একটি টু হুইলার (মোটরসাইকেল) ব্র্যান্ডের কারিগরি অংশীদারিত্বে ব্যবসা করার পরিকল্পনা নিয়ে প্রতিষ্ঠিত অন্য সাবসিডিয়ারি ফ্রিডম মোটরসের পরিচালন কার্যক্রম শুরু হয়নি।

বর্তমানে রানার অটোমোবাইলসের অনুমোদিত মূলধন ২০০ কোটি টাকা এবং পরিশোধিত মূলধন ৯৪ কোটি ২০ লাখ টাকা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here