রাইট ঘিরে জি কিউ বলপেনের পালে হাওয়া

0
2281

সিনিয়র রিপোর্টার : জিকিউ বলপেন ইন্ডাস্ট্রিজের পরিচালনা পর্ষদ ২০১৩ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর রাইট শেয়ার দেয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ ও সাধারণ সভায় (এজিএম) অনুমোদন করা হয়েছে। প্রথম দিকে প্রিমিয়ামসহ আবেদন করা হলেও পরবর্তীতে তা সংশোধণ করে চলতি বছরে প্রিমিয়াম ছাড়া নিয়ন্ত্রক সংস্থায় আবেদন করা হয়।

নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ১:১.৫০ অর্থাৎ একটি সাধারণ শেয়ারের বিপরীতে বিনিয়োগকারীরা ১.৫টি রাইট শেয়ার নিতে পারবে। ইতোমেধ্যে এই রাইট ঘিরে বিনিয়োগকারীদের বিশেষ আগ্রহে জি কিউ বলপেনের শেয়ারে পালে হাওয়া লাগতে শুরু করে। ১০ টাকা ফেসভ্যালু হওয়ায় বাড়ছে শেয়ারপ্রতি দর।

বৃহস্পতিবার ডিএসই থেকে নেয়া

বিবিধ খাতের কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ বিনিয়োগকারীদের জন্য রাইট শেয়ার দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয় ২০১৩ সালে। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ১:১.৫০ অর্থাৎ একটি সাধারণ শেয়ারের বিপরীতে ১.৫টি রাইট শেয়ার দেয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

এজন্য কোম্পানিটি বাজারে ১ কোটি ১৬ লাখ ৪৫ হাজার ৩৩৭টি রাইট শেয়ার প্রস্তুতি গ্রহণ করে। প্রতিটি রাইট শেয়ারের মূল্য ধরা হয় ৩০ টাকা। এরমধ্যে ১০ টাকা ফেস ভ্যালু ও ২০ টাকা প্রিমিয়াম। নতুন করে আবেদন তা এখন সব ভেস্তে গেছে।

তবে বাংলাদেশ ‍সিকিউরিটিজ এন্ড একচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) বিশেষ একটি সূত্র নাম না প্রকাশ শর্তে জানিয়েছে, জিকিউ বলপেন ইন্ডাস্ট্রিজের রাইট পাওয়ার সম্ভাবনা খুব কম। কারণ হিসেবে তিনি বলেন, তারা ২০১২ সালে বিএসইসির বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেছিল। যে কারণে রাইট আটকা পড়তে পারে।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, জিকিউ বলপেন আর্থিক প্রতিবেদনে ‘বানোয়াট’ কিছু তথ্য উপস্থাপন করায় ২০১২ সালের মে মাসে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এন্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) কোম্পানির চার পরিচালকের জরিমানা করে। পরিচালকরা হলেন- কাজী সালেমুল হক, সালমা হক, কাজী এম সারোয়ার সালমান এবং সারা হক।

ঘটনায় জরিমানা প্রদান এবং তথ্য উপস্থাপন নিয়ে উভয় প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের মধ্যে ক্রমে দূরত্ত্ব বাড়তে থাকে।

আপত্তির মুখে বিএসইসি পরে জরিমানা কমিয়ে ২ লাখ টাকা নির্ধারণ করলেও এই অর্থ দিতে নারাজ কোম্পানি কর্তৃপক্ষ। পরে উচ্চ আদালতে গিয়ে নিয়ন্ত্রক সংস্থার বিরুদ্ধে রিট করেন জিকিউ বলপেন কোম্পানির কর্তৃপক্ষ। তবে শেষ পর্যন্ত মামলার কি ফলাফল হয়েছে, তা জানতে কোম্পানিতে অনেকবার যোগাযোগ করা হলেও কেউ কথা বলতে রাজী হননি।

একই সঙ্গে ১৯৮১ সালে শুরু হওয়া জিকিউ বলপেন ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের ব্যবসা পূর্বের তুলনায় অনেক কমেছে। যে কারণে কোম্পানির দীর্ঘ সময়ের ঐতিহ্যগত ইপিএস বৃদ্ধির ধারা অব্যহত রাখতে পারেনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here