যাত্রীবীমা বাধ্যতামূলক, সম্ভাবনায় বীমাখাত

0
718
যাত্রী ও বাসের বীমা বাধ্যতামূলক করে আইনের খসড়া চূড়ান্ত
বাস চলাচলের নতুন লেন

বিশেষ প্রতিনিধি : রাজধানীর যানজট নিরসনে দ্রুতগতির পৃথক বাস লেন বা বাস র‍্যাপিড ট্রানজিট (বিআরটি) নির্মাণ করতে যাচ্ছে সরকার। এক্ষেত্রে জমি অধিগ্রহণ ও নির্মাণের সব ক্ষমতা থাকবে ঢাকা যানবাহন সমন্বয় কর্তৃপক্ষের (ডিটিসিএ) হাতে।

এটি পরিচালনা করা যাবে রাজধানী ঢাকা ও আশপাশের পাঁচ জেলায়। এজন্য প্রত্যেক যাত্রী ও বাসের বাধ্যতামূলক বীমা করতে হবে। কেউ আইন ভঙ্গ করলে দায়ীর বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে। আর বিচার হবে ভ্রাম্যমাণ আদালত আইনে।

এসব বিধান রেখে ‘বিআরটি আইন ২০১৫’-এর খসড়া চূড়ান্ত করেছে ডিটিসিএ। মতামতের জন্য এরই মধ্যে তা পাঠানো হয়েছে সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সংস্থা ও মন্ত্রণালয়ে। পাশাপাশি বিশেষজ্ঞ ও জনমত সংগ্রহ করা হচ্ছে। সব পক্ষের মতামতের ভিত্তিতে আইনটি চূড়ান্ত করা হবে।

খসড়া আইন অনুযায়ী, বিআরটির সব বাস ও যাতায়াতকারী সব যাত্রীর জন্য বাধ্যতামূলক জীবন বীমা করবে পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠান। কোনো দুর্ঘটনা ঘটলে পরিচালনাকারী নিজ উদ্যোগে জীবন বীমার অর্থ বীমা কোম্পানির কাছ থেকে আদায় করে দুর্ঘটনার শিকার ব্যক্তিকে ক্ষতিপূরণ হিসেবে প্রদান করবে। তবে বীমা না করলে বিআরটি পরিচালনাকারী কোম্পানি নিজস্ব তহবিল থেকে ক্ষতিপূরণ দিতে বাধ্য থাকবে।

এছাড়া বীমা না করলে বিআরটি পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠানকে ১০ বছরের কারাদণ্ড বা ৫ লাখ টাকা অর্থদণ্ড কিংবা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত করা হবে। যে কারণে ধারণা করা হচ্ছে- আগামীতে বীমা কোম্পানিগুরো ভালো অবস্থানে থাকবে।

বিআরটির জন্য স্থাপিত পৃথক লেনে সাধারণ বাস বা অন্য কোনো যানবাহন প্রবেশ করতে পারবে না। এ লেনে অবৈধ অনুপ্রবেশকারীকে এক বছরের কারাদণ্ড ও আড়াই লাখ টাকা অর্থদণ্ড বা উভয় দণ্ড দেয়া যাবে। বিআরটি নির্মাণ, পরিচালন, রক্ষণাবেক্ষণ ও নিরাপত্তা ব্যবস্থাপনায় সরকার ঘোষিত কারিগরি মান অনুসরণ করতে হবে। কারিগরি মান না মানলে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড বা ২৫ লাখ টাকা জরিমানা অথবা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত করা হবে।

বিআরটি আইনের আওতায় প্রাথমিকভাবে দেশের ছয়টি জেলাকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এগুলো হলো— ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, মুন্সীগঞ্জ, মানিকগঞ্জ, গাজীপুর ও নরসিংদী। তবে সরকার গেজেট প্রকাশের মাধ্যমে পরবর্তীতে যেকোনো জেলাকে এর অন্তর্ভুক্ত করতে পারবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here