মেঘনাঘাটে বিদ্যুৎ উৎপাদন করবে ভারতের রিলায়েন্স ও জাপানের জেরা

0
206

স্টাফ রিপোর্টার : ভারতের রিলায়েন্স পাওয়ার ও জাপানি প্রতিষ্ঠান জেরা যৌথভাবে মেঘনাঘাট ৭৫০ মেগাওয়াট কম্বাইন্ড বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ করবে। এ সংক্রান্তে উভয় প্রতিষ্ঠানের মধ্যে চুক্তি হয়েছে। চুক্তি অনুযায়ী, রিলায়েন্স প্রকল্পের ৫১ শতাংশ ও জেরা ৪৯ শতাংশের মালিকানায় থাকবে।

বিদ্যুৎকেন্দ্রটি নির্মাণে রিলায়েন্সের সঙ্গে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের চুক্তির দুদিন পর এক বিবৃতিতে জেরা ও রিলায়েন্সের অংশীদারত্ব চুক্তির বিষয়টি জানানো হয়। পরিকল্পনা অনুযায়ী, আগামী তিন বছরের মধ্যে মেঘনাঘাট বিদ্যুৎকেন্দ্র উৎপাদনে যাবে। উৎপাদিত ৪০০ ভোল্টের বিদ্যুৎ পিজিসিবির মেঘনাঘাট সাব-স্টেশন হয়ে জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হবে।

এলএনজি ব্যবসায় বিশের সবচেয়ে বড় প্রতিষ্ঠান হচ্ছে জাপানের জেরা। মঙ্গলবার জেরার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, জেরা গ্যাসভিত্তিক মেঘনাঘাট বিদ্যুৎ প্রকল্পটি রিলায়েন্স পাওয়ারের সঙ্গে অংশীদারত্বের ভিত্তিতে নির্মাণ করবে। জেরার এটাই হবে বাংলাদেশে কোনো প্রকল্পে অংশগ্রহণ।

ধারাবাহিক উন্নয়ন, অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির উচ্চহার এবং বিদ্যুতের চাহিদার বিবেচনায় বাংলাদেশে বিনিয়োগের বিষয়টির ওপর জেরা গুরুত্ব দিচ্ছে। এই প্রকল্পে অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে জেরা ভবিষ্যতে আরো ব্যবসা ও বিনিয়োগের সুযোগ খুঁজতে চায়, যা বাংলাদেশের অর্থনীতিতে বড় ধরনের ভূমিকা রাখবে।

এক বিবৃতিতে জেরার প্রেসিডেন্ট সাতোশি ওনোদা বলেন, অংশীদারত্বের ভিত্তিতে রিলায়েন্স পাওয়ারের সঙ্গে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় ইনডিপেনডেন্ট পাওয়ার প্রজেক্টে যুক্ত হতে পেরে আমরা আনন্দিত। বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতি এবং নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করার কাজে জেরা ভূমিকা রাখতে চায়।

রিলায়েন্স গ্রুপের চেয়ারম্যান অনীল আম্বানি বলেন, এই যৌথ মূলধনী প্রকল্প বাংলাদেশের অর্থনৈতিক ও শিল্পোন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখার পাশাপাশি জ্বালানি নিরাপত্তা ও পরিবেশবান্ধব জ্বালানির সরবরাহ নিশ্চিত করতে সহায়তা করবে। জেরার সঙ্গে অংশীদারত্বে বাংলাদেশের এই উন্নয়নযজ্ঞে অংশ নিতে পেরে আমরা উচ্ছ্বসিত।

উল্লেখ্য, গত রবিবার মেঘনাঘাট বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের জন্য ঢাকার বিদ্যুৎ ভবনে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের সঙ্গে ভারতীয় কোম্পানি রিলায়েন্সের প্রকল্পের বাস্তবায়ন, সরবরাহ ও ক্রয় চুক্তি হয়। বিদ্যুৎ বিভাগের পক্ষে যুগ্ম সচিব শেখ ফয়েজুল আমিন, পিডিবির সচিব সাইফুল ইসলাম আজাদ, পিজিসিবির সচিব মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আজাদ, তিতাসের সচিব মাহমুদুর রব এবং রিলায়েন্স বাংলাদেশ এলএনজি এন্ড পাওয়ারের পক্ষে কোম্পানির পরিচালক সমীর কুমার গুপ্ত চুক্তিপত্রে স্বাক্ষর করেন। এই চুক্তির দুদিনের মাথায় এক বিবৃতিতে জেরার সঙ্গে রিলায়েন্সের অংশীদারত্বের বিষয়টি জানানো হয়।

এই বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে প্রথম পর্যায়ে ৭৫০ মেগাওয়ার্ট বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হবে। উৎপাদন শুরু হওয়ার পর ২২ বছর পিডিবিকে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হবে। রিলায়েন্স ভারতের বিদ্যুৎ খাতের অন্যতম বড় বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান। বাংলাদেশের বিদ্যুৎ খাতে এটাই হবে সবচেয়ে বড় সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগ। অন্ধ্র প্রদেশের সামালকোটে রিলায়েন্সের বিদ্যুৎ প্রকল্প থেকে বিশমানের যন্ত্রপাতির একটি মডিউল মেঘনাঘাটে স্থানান্তর করা হবে।

বাংলাদেশের তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন এন্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের কাছ থেকে গ্যাস কিনে বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হবে। প্রতি ডলারের বিনিময় হার ৮০ টাকা ধরে তিতাস গ্যাস প্রতি মিলিয়ন ব্রিটিশ থারমাল ইউনিট (এমএমবিটিইউ) গ্যাস বা এলএনজি সরবরাহ করবে ৭ দশমিক ২৬২৫ ডলার মূল্যে। বিদ্যুৎ উৎপাদনের পর রিলায়েন্স তাদের উৎপাদিত প্রতি ইউনিট বিদ্যুৎ ৭ দশমিক ৩১২৩ সেন্ট বা ৫ টাকা ৮৪ পয়সা দামে পিডিবির কাছে বিক্রি করবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here