মুন্নু সিরামিকস, মুন্নু জুটের শেয়ার লেনদেন নিয়ে কমার্স ব্যাংক সিকিউরিটিজে তদন্ত

0
594

সিনিয়র রিপোর্টার : মুন্নু সিরামিক, মুন্নু জুট স্টাফলার্সসহ বেশ কয়েকটি স্বল্প মূলধনি কোম্পানির শেয়ার লেনদেনে অস্বাভাবিকতা পরিলক্ষিত হওয়ায় কমার্স ব্যাংক সিকিউরিটিজ অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেডের কর্মকাণ্ড খতিয়ে দেখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে বৃহস্পতিবার জানা গেছে, বিএসইসির নির্দেশসংবলিত চিঠির বরাত দিয়ে স্টক এক্সচেঞ্জ কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, গ্রাহক ও সংশ্লিষ্ট পক্ষের হয়ে ডিএসইর সদস্য (ট্রেক নম্বর ১৮০) কমার্স ব্যাংক সিকিউরিটিজ অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেডের কিছু শেয়ার লেনদেন অস্বাভাবিক ও সন্দেহজনক মনে হওয়ায় এগুলো খতিয়ে দেখতে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে কমিশন।

নিয়ন্ত্রক সংস্থার কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, কমিশনের সার্ভিল্যান্স সিস্টেমে বেশকিছু স্বল্প মূলধনি কোম্পানির শেয়ার লেনদেনে অস্বাভাবিকতা পরিলক্ষিত হয়েছে। খুব কম সময়ে এসব শেয়ারের দাম অনেক বেশি বেড়ে গেছে, যেগুলোকে স্বাভাবিক বলা কঠিন। কমার্স ব্যাংক সিকিউরিটিজে এ ধরনের লেনদেনের আধিক্য থাকায় তাদের সংশ্লিষ্ট কর্মকাণ্ড গভীরভাবে খতিয়ে দেখা হবে।

এজন্য বিএসইসির সহকারী পরিচালক বনি ইয়ামিন খানকে দায়িত্ব দিয়ে এক সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। ১০ কার্যদিবসের মধ্যে কমিটির তদন্ত প্রতিবেদন কমিশনে জমা হবে।

কমিশনের আরেক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, আরো কয়েকটি ব্রোকারেজ হাউজেও স্বল্প মূলধনি কোম্পানির শেয়ার লেনদেনের প্রবণতা কমিশনের সার্ভিল্যান্স সিস্টেমের দৃষ্টিগোচর হয়েছে। কোথাও সিকিউরিটিজ আইনের ব্যত্যয় ঘটেছে কিনা, অসৎ উদ্দেশ্যে এসব লেনদেন সম্পাদন হয়েছে কিনা এগুলো বিশ্লেষণ করা হচ্ছে। কারো নন-কমপ্লায়েন্স বা অসৎ উদ্দেশ্য প্রমাণ হলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

প্রসঙ্গত, শেয়ারবাজারের সাম্প্রতিক সংশোধন পর্বে কোনো মূল্যসংবেদনশীল তথ্য ছাড়াই বিভিন্ন স্বল্প মূলধনি দুর্বল মৌলভিত্তির কোম্পানির শেয়ারদর অস্বাভাবিক হারে বেড়ে যাচ্ছে। কিছু ক্ষেত্রে মূল্য প্রভাবিত করার মতো মৌলভিত্তিক তথ্য উঠে এলেও সেগুলো শেয়ারদরকে এত প্রভাবিত করার জন্য যথেষ্ট নয় বলে মনে করছেন বিশ্লেষকসহ বাজারসংশ্লিষ্টরা।

কমার্স ব্যাংক সিকিউরিটিজ বিষয়ে নিয়ন্ত্রক সংস্থার নির্দেশসংবলিত পত্রে উল্লিখিত দুটি শেয়ারের দিকে তাকালে দেখা যাবে, মুন্নু গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতার মৃত্যুর পর পরবর্তী প্রজন্ম কোম্পানিগুলোর ব্যবসায় গতি আনার চেষ্টা করছে। নতুন পণ্য চালু করে তারা বিক্রি ও মুনাফা বাড়ানোর চেষ্টা করছে। অনুমোদিত মূলধন বাড়ানোর মতো কিছু পদক্ষেপও তারা নিয়েছে।

ব্যবসার নেহাত স্বাভাবিক এসব প্রক্রিয়াকে কেন্দ্র করে স্টক এক্সচেঞ্জে কোম্পানিগুলোর শেয়ারদর অস্বাভাবিক হারে বেড়ে যাচ্ছে। তিন মাসেরও কম সময়ের মধ্যে মুন্নু জুট স্টাফলার্সের শেয়ারের দাম চার গুণ হয়ে গেছে। এপ্রিলের শুরুর দিকে ডিএসইতে স্বল্প মূলধনি কোম্পানিটির একেকটি শেয়ারের দর ছিল ৮০০ টাকা। গতকাল তা ৩ হাজার ৪৫০ টাকা ছাড়িয়েছে।

দুই মাসেরও কম সময়ের ব্যবধানে ১৩০ টাকা থেকে ২৭৪ টাকায় উন্নীত হয়েছে গ্রুপের আরেক স্বল্প মূলধনি কোম্পানি মুন্নু সিরামিক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের শেয়ারদর।

একই সময়সীমার মধ্যে অস্বাভাবিক দরবৃদ্ধির তালিকায় থাকা স্বল্প মূলধনি কোম্পানিগুলোর মধ্যে বিডি অটোকারস, লিবরা ইনফিউশন্স, এপেক্স স্কিনিং, ফার্মা এইড, আজিজ পাইপস, স্ট্যান্ডার্ড সিরামিক, কেঅ্যান্ডকিউ, উসমানিয়া গ্লাস, স্টাইলক্রাফট, লিগ্যাসি ফুটওয়্যার, ইস্টার্ন লুব্রিক্যান্টস, রহিম টেক্সটাইল, সোনালী আঁশ অন্যতম।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here