‘মার্জিন ঋণের ইন্টারেস্ট বন্ধ করতে হবে’

0
704

মার্জিন ঋণের ফাঁদ থেকে বের হতে হবে। আমরা সবাই বিচ্ছিন্নভাবে চেষ্টা করছি। কোনভাবেই বিচ্ছিন্ন সে চেষ্টার কোন ফল আসছে না। আমাদের উচিত সম্মিলিতভাবে চেষ্টা করা। প্রথমত আমাদের মার্জিন ঋণের ওপর ইন্টারেস্ট বন্ধ করতে হবে।

monzurual-alam-0
মনজুরুল আলম, পোর্টফোলিও ম্যানেজার

কিভাবে করা যায়। তা হলো- আমাদের ইকুইটি নেগেটিভ কোডগুলোতে এটা বন্ধ করতে হবে। তা যেকোন উপায়ে-ই হোক।

  • অনেকে ইতোমধ্যে সাবসিডিয়ারীকে দেয়া মার্জিন ঋণ paid up capital convert করে Interest charge বন্ধ করে দিয়েছে।
  • অনেক প্রতিষ্ঠান সাবসিডিয়ারীকে দেয়া মার্জিন লোনের Interest rate শূন্য করে দিয়েছে।
  • অনেক প্রতিষ্ঠান Equity negative Client code -এ Interest charge বন্ধ করেছে।
  • অনেক প্রতিষ্ঠান Equity negative Margin A/C এর Interest charge Accrued করে রাখছে।
  • অনেক প্রতিষ্ঠান Equity negative Client -এর সুদ মওকুফ করে দিচ্ছে।
  • বাংলাদেশ ব্যাংক এগিয়ে আসলে কাজটা আরো অনেক সহজে হবে। যেমন- কম লাভে একটা ফান্ড দেয়া যেতে পারে। যার মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানগুলো Equity negative Client code -গুলোতে Interest charge বন্ধ করতে পারে। যেকোন ভাবেই হোক Existing Equity negative A/C -এর Interest charge বন্ধ করতে হবে।

এরপরে Margin A/C -এর Existing Equity negative Recovery করার চেষ্টা। এ জন্য যা করা যেতে পারে-

  • যে সব কোম্পাান ভাল লভ্যাংশ দেয় বা Dividend Yield বেশি, সেসব কোম্পানির শেয়ার Equity negative Portfolio তে কেনা যেতে পারে। যেমন- মিউচুয়াল ফান্ড ও ব্যাংক।
  • Equity negative Portfolio গুলোতে Close End Mutual Fund কিনে রাখা যেতে পারে। যেসব ফান্ডের এনএভি ভালো। কারণ নির্দিষ্ট সময় শেষে ফান্ডগুলো আপনাকে এনএনভি হিসেবে অনেক বেশি আপনাকে ফেরত দেবে।
  •  মার্কেট প্রাইস, এনএভি প্রাইস এবং Difference ভাল এবং ভাল লভ্যাংশ দেয়, সে কোম্পানির শেয়ার কেনা যেতে পারে।
  • Equity negative Portfolio -এর জন্য আইপিও কোটা বরাদ্দ করা যেতে পারে। যাতে এ ফান্ড দিয়ে আইপিও আবেদন করে লাভবান হওয়া যায়। বর্তমানে ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য কোটা বরাদ্দ রয়েছে।
  • Equity negative Portfolio -এর টাকা দিয়ে প্লেসমেন্ট শেয়ার কিনে রাখা যেতে পারে। অন্যদিকে আইপিওতে পাওয়া কোম্পানিগুলোর শেয়ার প্রথমে দ্বিগুণ-তিন গুণ দামে বিক্রি করে টাকা উঠানো যেতে পারে।
  • Equity negative Portfolio -এর বিনিয়োগ ভাল কোম্পানিতে করা যেতে পারে। যাদের শেয়ার মূল্য ভবিষ্যতে দ্বিগুণ বা তিনগুণ হওয়ার সম্ভাবনা আছে। এ বিষয়ে অনেক ভাল কিছু এনালিস্ট আছেন, প্রয়োজনে তাদের সহযোগিতাও নেয়া যেতে পারে।

সর্বশেষে কথা বা শারাংশ। No Risk no gain, সবাইকে Margin Loan -এর দুষ্টচক্র থেকে বের হতে হলে সদিচ্ছার প্রয়োজন। একই সঙ্গে Portfolio Manager কে Risk নেয়ার ক্ষমতা প্রদান করতে হবে। তা ছাড়া মার্জিণ ঋণ থেকে মুক্তি অসম্ভব। (পুরো নিবন্ধটি দেখুন)

  • মনজুরুল আলম, পোর্টফোলিও ম্যানেজার

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here