মার্চে ব্রোকারেজ হাউসের মাধ্যমে আইপিও আবেদন

17
7154

বিশেষ প্রতিনিধি : ব্যাংকের সামনে আর দীর্ঘ লাইন ধরতে হবে না শেয়ারে বিনিয়োগকারীদের। আগামী মার্চ মাস থেকেই ব্যাংকে টাকা জমা দেয়ার এই প্রক্রিয়া শেষ হচ্ছে। নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটি এন্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) ব্রোকারেজ হাউসের মাধ্যমে আইপিও চাঁদা সংগ্রহের পদ্ধতি মার্চেই পরিবর্তন করতে পারে।

ইতিমধ্যে সকল প্রক্রিয়া সম্পন্নের পথে বলে আভাস পাওয়া গেছে। আগামী মাসেই বিনিয়োগকারীদের জন্য বিএসইসি থেকে ঘোষণা হতে পারে বলে বিশেষ একটি সূত্র রোববার এ তথ্য নিশ্চিত করে।

সংস্থার নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে, এর আগে সংস্থার পাবলিক ইস্যু রুলস বিধিমালা সংশোধনের জন্য গঠিত কমিটি গেল জানুয়ারিতে একই সুপারিশ করেছিল। গত বছরের ২ ডিসেম্বর, সোমবার এ বিষয়ে নিয়ন্ত্রক সংস্থা কার্যালয়ে কমিশনের সঙ্গে দুই স্টক এক্সচেঞ্জের শীর্ষ কর্মকর্তাদের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।
সূত্র জানায়, মার্চ থেকেই বিনিয়োগকারীরা নিজ নিজ ব্রোকারেজ হাউসে আইপিও আবেদন ও টাকা জমা দেবেন। আর নিজ বিও হিসাবে টাকা থাকলে কেবল আবেদন জমা দিতে হবে। সংশ্লিষ্ট ব্রোকারেজ হাউস বিনিয়োগকারীদের আবেদন পাওয়ার পর তার হিসাব থেকে আইপিও চাঁদার সমপরিমাণ টাকা ব্লক হিসেবে স্থানান্তর করবেন।
আবেদনকারী আইপিও পাওয়ার জন্য যোগ্য বিবেচিত হলে ওই টাকা কোম্পানির হিসাবে স্থানান্তর করা হবে। যারা আইপিওতে শেয়ার পাবেন না তাদের টাকা পুনরায় বিও হিসেবে ফেরত দেওয়া হবে। কারণ এ প্রক্রিয়ায় বিনিয়োগকারীদের ব্যাংকের মাধ্যমে টাকা জমা দিতে দীর্ঘ লাইনে ঘণ্টার পর ঘণ্টা দাঁড়িয়ে থাকতে হবে না। এতে তাদের দুর্ভোগ কমবে। রিফান্ড পাওয়ার জন্যও কাউকে ছোটাছুটি করতে হবে না।

17 COMMENTS

  1. আমার মনে হয় আইপিও লটারিতে কোনো দুর্নীতি হয়। নইলে বিগত দুই বছরে সব আইপিও ধরেও কোনো আইপিওতে বিজয়ী হলাম না। ফ্যাটাপ হয়ে গেলাম। আর কোনো আইপিও ধরতে ইচ্ছে করছে না।

  2. ব্যাঙ্ক এবং হাউস উভয় পদ্ধতি থাকা বাঞ্চনীয়, কারণ, কারো কারো ব্যাঙ্ক এ গিয়ে লম্বা লাইন ধরে জমা দেওয়া কষ্টকর এবং সময় সপক্ষে তাদের জন্য হাউস ভালো. হাউস এ জমা দিলে টাকা তারাতারি ফেরত আসে. হাউস এ দিলে সময় কম লাগে. আবার সবার হাতের কাসে হাউস নাই. তাদের জন্য ব্যাঙ্ক ছাড়া উপায় নাই.
    সুতরাং, ব্যাঙ্ক এবং হাউস উভয় পদ্ধতি থাকা উচিত, যার যেখানে সুবিধা হবে সে সেখানে জমা দিবে.

  3. IPO application Bank এর মাধ্যমে করা নিরাপদ। ব্রোকার হাউজের মাধ্যমে আবেদন করে ধরা খাইছি।ব্রোকার হাউজে ভাউচারের মাধ্যমে IPO এর টাকা জমা দেই। IPO না পাওয়াতে B/O হিসাব থেকে টাকা উঠাত গেলে ব্রোকার হাউজ জানায় আমার A/C এ কোন টাকা নাই।তখন ওদের জালিয়াতি ধরতে পারি। ব্রোকার হাউজ আমার A/C এ টাকা জমা করেনি এবং IPO আবেদন না করে টাকা আত্নসাৎ করে। ব্রোকার হাউজ ভাউচারের অফিস কপি নষ্ট করে ফেলে।পরবর্তীতে ভাউচারের গ্রাহক কপি দেখিয়ে টাকাগুলো উঠাতে সক্ষম হই।

    • আপনি এসব অভিযোগ BSEC অথবা DSE এর কাছে জানাতে পারেন। ওরা এসব ব্যাপারে খুব দ্রুত ব্যাবস্থা নিয়ে থাকে।
      ধন্যবাদ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here