ব্যবসায় উত্থান, তবুও বোনাস শেয়ার ঘোষণা

0
631

স্টাফ রিপার্টার : মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের ২০১৭ সালের শেষ প্রান্তিকের (অক্টোবর-ডিসেম্বর) ব্যবসায় ব্যাপক উত্থান হয়েছে। ব্যাংকটির পুরো অর্থবছরের মুনাফার ৭৬ শতাংশ অর্জন হয়েছে এ প্রান্তিকে। এছাড়া আগের বছরের তুলনায় শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) বেড়েছে ১৮ শতাংশ।

তারপরেও ব্যাংকটির পর্ষদ অন্যান্য বছরের মতো মুনাফার শতভাগ কোম্পানিতে রেখে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এর মাধ্যমে ব্যাংকটি শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্তির ১৫ বছরেও বোনাস শেয়ার থেকে বেরিয়ে আসতে পারল না। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের  (ডিএসই) ওয়েবসাইটে এমন তথ্য (নিচে) প্রকাশ করা হয়েছে।

কোম্পানিটির ২০১৭ সালের ৯ মাস বা ৩টি প্রান্তিকে (জানুয়ারি-সেপ্টেম্বর) মোট সমন্বিত শেয়ারপ্রতি মুনাফা হয়েছিল ০.৯৫ টাকা। তবে বছরের শেষ প্রান্তিকে এই মুনাফার পরিমাণ হয়েছে ২.৯৪ টাকা। যাতে ২০১৭ সালে মোট ইপিএস হয়েছে ৩.৮৯ টাকা। এক্ষেত্রে শেষ প্রান্তিকের অবদান ৭৬ শতাংশ ও বাকি ২৪ শতাংশ এসেছে আগের ৩টি প্রান্তিকে।

এর আগে ২০১৭ সালের প্রথম প্রান্তিকে (জানুয়ারি-মার্চ) শেয়ারপ্রতি মুনাফা হয় ০.৬৬ টাকা। যা দ্বিতীয় প্রান্তিকে (এপ্রিল-জুন) ০.২৯ টাকা ও তৃতীয় প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) ০.১২ টাকা মুনাফা হয়। যাতে ৯ মাসে মুনাফা হয়েছিল ০.৯৫ টাকা।

এদিকে আগের বছরের ৩.৩০ টাকা ইপিএস ২০১৭ সালে বেড়ে হয়েছে ৩.৮৯ টাকা। এক্ষেত্রে ইপিএস বেড়েছে ০.৫৯ টাকা বা ১৮ শতাংশ। তবে লভ্যাংশ ঘোষণার পরিমাণ কমে এসেছে। আগের বছর ১৫ শতাংশ লভ্যাংশ ঘোষণা করলেও এবার ১২.৫০ শতাংশ করা হয়েছে।

ব্যাংকটির পরিচালনা পর্ষদ ২০১৭ সালে ৩.৮৯ টাকা ইপিএসের বিপরীতে ১২.৫০ শতাংশ বোনাস শেয়ার হিসাবে প্রতিটি শেয়ারে ১.২৫ টাকা লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। যা মুনাফার মাত্র ৩২ শতাংশ। তবে শুধুমাত্র বোনাস শেয়ারের কারনে লভ্যাংশ প্রদানের অনুপাত (ডিভিডেন্ড পে আউট রেশিও) হবে শূন্য। কারণ, বোনাস শেয়ারের ফলে ব্যাংক থেকে শেয়ারহোল্ডারদের কোন ধরনের সম্পদ প্রদান করা যাবে না।

মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক ২০০৩ সালে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত হয়েছে। ওই বছর থেকে শুরু করে কোন বছরই ব্যাংকটি থেকে শেয়ারহোল্ডারদের নগদ লভ্যাংশ দেওয়া হয়নি। প্রতিবছরই বোনাস শেয়ার প্রদানের মাধ্যমে মুনাফার শতভাগ ব্যাংকেই রেখে দেওয়া হয়েছে। যদিও নগদ লভ্যাংশ প্রদানের উপর একটি প্রতিষ্ঠানের ভিত্তি কতটা মজবুত তা বোঝা যায়।

ডিএসইর তথ্যানুযায়ী, মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের তালিকাভুক্তির ২০০৩ সালের জন্য ২০ শতাংশ বোনাস শেয়ার ঘোষণা করা হয়েছিল। এরপরে ২০০৪ সালে ২০ শতাংশ, ২০০৫ সালে ১০ শতাংশ, ২০০৬ সালে ৫ শতাংশ, ২০০৭ সালে ২৫ শতাংশ, ২০০৮ সালে ১৮ শতাংশ, ২০০৯ সালে ২০ শতাংশ, ২০১০ সালে ২০ শতাংশ, ২০১২ সালে ১০ শতাংশ, ২০১৩ সালে ১০ শতাংশ, ২০১৪ সালে ২০ শতাংশ, ২০১৫ সালে ২০ শতাংশ ও ২০১৬ সালে ১৫ শতাংশ বোনাস শেয়ার ঘোষণা করে। তবে ব্যাংকটির নগদ লভ্যাংশ ঘোষণার কোন রেকর্ড নাই।

কোম্পানিটির ২০১৭ সালে শেয়ারপ্রতি ৩.৮৯ টাকা হিসেবে মোট ১৯৮ কোটি ২৬ লাখ টাকার নিট মুনাফা হয়েছে। এরমধ্যে শেয়ারপ্রতি ১.২৫ টাকা হিসাবে মোট ৬৩ কোটি ৭১ লাখ টাকার বোনাস শেয়ার প্রদানের মাধ্যমে সমপরিমান পরিশোধিত মূলধন বাড়ানো হবে। আর বাকি ১৩৪ কোটি ৫৫ লাখ টাকা রিজার্ভে যোগ হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here