বৃহস্পতিবার রেজিস্টেন্সের উপরে মার্কেটে বেয়ারিশ ক্যান্ডেল

0
1164
স্টাফ রিপোর্টার :  ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) ইনডেক্স বৃহস্পতিবার, ৬ জুলাই প্রবল সেল পেশারে বেয়ারিশ ক্যান্ডেল দেখা গেছে। মার্কেটে শুরু থেকেই সেলারদের প্রভাব বেশি ছিল। সেই কারণে দর পতন হয় বেশিরভাগ কোম্পানির। এই ধারা বজায় রেখে ধীরে ধীরে মার্কেট আরও নিচে নামতে থাকে। শেষ পর্যন্ত আগের দিনের চেয়ে ৩২ পয়েন্টের মত নিচে অবস্থান করছে সূচক।
টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস অনুযায়ী আজকে মার্কেট আগের দিনের চেয়ে একটু নিচে শুরু হয়। তবে আস্তে আস্তে আরও সূচক কমতে থাকে। বেলা বাড়ার সাথে আরও বেশি পরিমাণ সেল পেশার চলে আসে বাজারে। তাই দর পতনের সাথে সাথে সূচক নামতে থাকে। ফলে দেখা যায় লাল বর্ণের বড় এক বেয়ারিশ ক্যান্ডেল।
মুলত সেই কারণে রেজিস্টেন্স ভেদ করতে পারে নি মার্কেট। সবচেয়ে উপরের রেজিস্টেন্স ছুয়ে আবারও নিম্ন মুখী প্রবনতা দেখা দিয়েছে। রেজিস্টেন্সের উপর এই বড় আকৃতির বেয়ারিশ ক্যান্ডেল একটা বেয়ারিস এনগালফিং প্যাটার্ন তৈরি করেছে। এই অবস্থায় মার্কেট কয়েকদিন নিচে থাকতে পারে। তবে ভাল পরিমাণ বাই পেশার থাকলে বাজার আবারও উপরে চলে আসবে।

ডিএসই সাধারন সূচক দিন শেষে আগের চেয়ে কয়েক পয়েন্ট নিচে আছে। দিন শেষে ইনডেক্স গত দিনের চেয়ে ৩৩.২১ পয়েন্ট নিচে অবস্থান করছে। ইন্ডেক্স বিগত দিনের ৫৭৮২.৬৫ পয়েন্ট থেকে শুরু করে ৫৭৪৯.৪৪ পয়েন্টে শেষ হয় যা আগের দিনের তুলনায় ০.৫৭% কম।

বাজারে সর্বমোট ৩৩০টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার লেনদেন হয়েছে যার মধ্যে দাম বৃদ্ধি পেয়েছে ১০০ টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার এর, হ্রাস পেয়েছে ১৮৯টির আর অপরিবর্তিত ছিল ৪১টি কোম্পানির শেয়ারের দাম। আজকের মোট লেনদেনের মূল্য দাঁড়িয়েছে ১০০৫.৪ কোটি টাকায় আর মোট লেনদেন হয়েছে ১ লক্ষ ৫৫ হাজার ৮৭৭টি শেয়ার।
পরিশোধিত মূলধনের দিক থেকে দেখা যায়, বেশিরভাগ শেয়ারের লেনদেন কমেছে। দেখা যাচ্ছে ৫০ থেকে ১০০ কোটি টাকার শেয়ার এবং ১০০ থেকে ৩০০ কোটি টাকার বেশি মূলধনী প্রতিষ্ঠানের লেনদেন কমেছে ১৪.১৬% এবং ১৬.২%। সেই সাথে ৩০০ কোটি অধিক টাকা পরিশোধিত মূলধনী প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের ট্রেড কমেছে ৬.৮৮%। এবং ২০ থেকে ৫০ মূলধনী প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের লেনদেন আগের দিনের তুলনায় কমেছে ১৮.২৬%।
পিই রেশিওর ভিত্তিতে দেখলে দেখা যায় ট্রেড কমেছে বেশিরভাগ মানের শেয়ারের। দেখা যাচ্ছে ০-২০ পিই রেশিওর শেয়ারের লেনদেন কমেছে ৯.৯৪%। সেই সাথে ৪০ এর বেশি পিই রেশিওর শেয়ারের ট্রেড কমেছে ৮.২৭% । তবে ২০-৪০ পিই রেশিওর শেয়ারের লেনদেন কমেছে ২০.০২%।
ক্যাটাগরির দিক থেকেও দেখা যায় একই চিত্র। এ এবং বি ক্যাটাগরির লেনদেন কমেছে ১১.৩১ শতাংশ এবং ২৪.৪৫ শতাংশ। সেই সাথে এন ক্যাটাগরি কমেছে ৩৭.১৬ শতাংশ। তবে জেড ক্যাটাগরির লেনদেন বেড়েছে ১.৬২ শতাংশ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here