বুলিঙ্গার স্কুইজ

0
684

বলিংঙ্গার স্কুইজ দেখেই আমরা এর বৈশিষ্ট্য বুঝতে পারি। যখন ব্যান্ডগুলো পরস্পর সংকুচিত হয় তার অর্থ হলো ব্রেকাউটের অনেক সম্ভাবনা রয়েছে। যদি
bollinger squezক্যান্ডেলস্টিকগুলো উপরের ব্যান্ডকে অতিক্রম করে যায় তবে তা  আপট্রেন্ড নির্দেশ করে। আর যদি ক্যান্ডেলস্টিকগুলো নিচের ব্যান্ডকে অতিক্রম করে তবে তা ডাওন ট্রেন্ড নির্দেশ করে।

পাশের চিত্রে আপনারা একটি বলিংঙ্গার স্কুইজের উদাহরন দেখতে পাচ্ছেন। এবং ক্যান্ডেলস্টিকটি উপরের ব্যান্ডকে ভেদ করে বেড় হয়ে যাচ্ছিল। এই তথ্যের উপর ভিত্তি করে আপনি কি সিদ্ধান্ত নিবেন?

যদি আপনি ভাবেন আপট্রেন্ড তবে আপনার ধারনা সঠিক। সাধারণতঃ এইভাবে বলিংঙ্গার স্কুইজ কাজ করে। এই স্ট্র্যাটিজি এভাবে তৈরি করা হয়েছে যাতে আপনি তাড়াতাড়ি একটি ট্রেন্ড বুঝতে পারেন। এ  ধরনের বৈশিষ্ট্য প্রতিদিন খুঁজে পাওয়া যায় না কিন্তু আপনি সপ্তাহের কোন কোন সময় এই বৈশিষ্ট্য খুঁজে পাবেন যদি আপনি সব সময় চার্ট পর্যবেক্ষন করেন।

এখন আপনি জানতে পারলেন বলিংঙ্গার ব্যান্ড কি এবং কিভাবে এটি কাজ করে। বলিংঙ্গার ব্যান্ড bsqএর মাধ্যমে আপনি অনেক কিছুই করতে পারেন। মূলতঃ উপরে উল্লেখিত দু’টি স্ট্র্যাটিজি ব্যবহৃত হয়। সুতরাং, এখন আপনি আপনার টুলবক্সে রেখে এটি কাজে লাগাতে পারেন ।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here