‘বিনিয়োগ বাড়াতে এক্সচেঞ্জের কর মওকুফ প্রয়োজন’

0
1408

স্টাফ রিপোর্টার : বিনোয়োগ বাড়াতে হলে কর সুবিধা প্রদান জরুরি। ২০১৫-১৬ অর্থবছরের বাজেট পুঁজিবাজারবান্ধব। তবে বিদেশী বিনিয়োগকারীদের আকৃষ্ট করতে কর সুবিধা প্রদানের সঙ্গে স্টক এক্সচেঞ্জের শতভাগ কর মওকুফ প্রয়োজন। চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) ব্যবস্থাপনা পরিচালক ওয়ালি-উল মারুফ মতিন বাজেট পরবর্তী প্রতিক্রিয়া জানাতে সোমবার দুপুরে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন।

সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন- সিএসইর উপব্যবস্থাপনা পরিচালক গোলাম ফারুক, জনসংযোগ কর্মকর্তা সানজিদা পারভীন প্রমুখ।

মারুফ মতিন বলেন, অন্যান্য বাজেটের তুলনায় এবার পুঁজিবাজারের জন্য বেশকিছু সুবিধা দেয়া হয়েছে। একই সঙ্গে তিনি আশা করেন, প্রস্তাবিত বাজেটে বিদেশী বিনিয়োগকারীদের কর সুবিধা না দেয়া হলেও চূড়ান্ত বাজেটে তা বাস্তবায়ন করা হবে।

তিনি বলেন, বিদেশি বিনিয়োগকারীদের ওপর ১০ শতাংশ হারে কর আরোপ রয়েছে। পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের ঝুঁকি থাকে। ঝুঁকি অনুযায়ী বিদেশিদের জন্য রিটার্ন ব্যালেন্সের ব্যবস্থা না থাকলে বিনিয়োগ কমে যাবে।

তিনি আরো বলেন, বাজেটের প্রস্তাবনায় পুঁজিবাজারে তালিকাভূক্ত ব্যাংক, বীমা ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের করের হার ৪২.৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৪০ শতাংশ করা হয়েছে। তালিকাভূক্ত অন্যান্য কোম্পানির করহার ২৭.৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ২৫ শতাংশ এবং কর মুক্ত লভ্যাংশ ২০ হাজার থেকে বাড়িয়ে ২৫ হাজার টাকা করা হয়েছে।

মারুফ মতিন বলেন, বিদ্যমান আইনে মূলধনী মুনাফার ওপর  ১০ শতাংশ হারে উৎসে কর কর্তনের বিধান প্রত্যাহার করা হয়েছে। বন্ড মার্কেট উন্নয়নের স্বার্থে ট্রেজারি বন্ড এবং ট্রেজারি বিলের সুদের ওপর ৫ শতাংশ হারে উৎসে  কর কর্তনের বিধান প্রত্যাহার করা হয়েছে। এছাড়া ইস্যুয়ার কোম্পানি পরিশোধিত মূলধনের ২০% শেয়ার বাজারে ছাড়লে ওই বছরের জন্য তার ১০% কর মওকুফ করার প্রস্তাব করা হয়েছে। মারুফ মতিন মনে করেন, এসব প্রস্তাব পুঁজিবাজারের জন্য ইতিবাচক।

তিনি বলেন, বিনিয়োগকারীদের আকর্ষণসহ সিএসইতে কারিগরি ও অবকাঠামোগত বিনিয়োগের জন্য মূলধনের পুনর্বিনিয়োগ প্রয়োজন। এ কারণে ক্রমহ্রাসমান হারে কর অবকাশের পরিবর্তে ৫ বছর মেয়াদী কর অব্যাহতি চায় সিএসই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here