স্টাফ রিপোর্টার : নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান বলেছেন, বিদ্যুৎকেন্দ্রের জন্য কয়লা ও এলএনজি বহনের জন্য কোনো জাহাজ এখন বাংলাদেশে নেই। চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে বিএসসির বহরে মাদার ট্যাঙ্কারসহ আরো ২৬টি জাহাজ যুক্ত হবে। আমাদের নিজেদের টাকা এবং বন্দরের টাকায় লোন নিয়ে নতুন জাহাজ কিনেছি। এসব নতুন জাহাজ বহরে যুক্ত হলে বিএসসি অনেক দূর এগিয়ে যাবে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে চট্টগ্রাম বন্দরের অডিটরিয়ামে বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশনের (বিএসসি) বার্ষিক সাধারণ সভায় তিনি এসব কথা বলেন। সভায় নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারাও ছিলেন।

সভায় জানানো হয়, বিএসসির বহরে আছে মাত্র দুটি জাহাজ। সেই জাহাজের পরিচালনাসহ মোট চারটি খাত থেকে আয়ের তথ্য দিয়েছে বিএসসি। আর ১৮৮ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী ও জাহাজের অফিসার-নাবিক মিলিয়ে ৯২ জনের বেতনভাতা, জ্বালানি, জাহাজের রক্ষণাবেক্ষণসহ ১০টি ব্যয়ের খাত উল্লেখ করেছে বিএসসি।

বিএসসির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) কমডোর ইয়াহইয়া সৈয়দ বলেন, এবার বিএসসির আয় ও ব্যয় দুটোই কমলেও আগের অর্থবছরের চেয়ে প্রায় দুই কোটি টাকা বেশি লাভ হয়েছে। লাভের টাকা থেকে বিএসসি গত অর্থবছরের জন্য শেয়ারহোল্ডারদের ১০ শতাংশ হারে মুনাফা ঘোষণা করেছে।

তিনি বলেন, ২০১৬-২০১৭ অর্থবছরে বিএসসি আয় করেছে ১১৭ কোটি ৯৯ লাখ টাকা। ২০১৫-২০১৬ অর্থবছরে আয় ছিল ১১৮ কোটি ৮১ লাখ টাকা। আয় কমেছে প্রায় ৮২ লাখ টাকা। ২০১৬-২০১৭ অর্থবছরে বিএসসির ব্যয়ের পরিমাণ ছিল ১০৯ কোটি ৩৫ লাখ টাকা। ২০১৫-২০১৬ অর্থবছরে ব্যয় ছিল ১১২ কোটি ১৪ লাখ টাকা। ব্যয় কমেছে ৩ কোটি ২১ লাখ টাকা। এবার বিএসসি মুনাফা করেছে ৮ কোটি ৬৫ লাখ টাকা। গতবার মুনাফা করেছিল ৬ কোটি ৭২ লাখ টাকা।

নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান বলেন, ২০১৯ সালের বার্ষিক সাধারণ সভায় শেয়ারহোল্ডারদের আরো বেশি মুনাফা দেয়া যাবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here