বাড়ল সয়াবিন তেলের দাম

0
1330

ডেস্ক রিপোর্ট : দু’সপ্তাহ পরই ঈদুল আজহা। এই ঈদে বেশি চাহিদা থাকে এমন পণ্যের দাম এক এক করে বাড়ছে। সাম্প্রতিক সময়ে সবচেয়ে বেশি বেড়েছে পেঁয়াজের দাম। এরপর এবার বাড়ল সয়াবিন তেলের দাম। বড় কোম্পানিগুলো বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম লিটারে দুই টাকা থেকে চার টাকা বাড়িয়েছে। খুচরা বাজারেও বাড়তি দাম নেওয়া শুরু হয়েছে।

রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, এক সপ্তাহ ধরে বাড়তি দামে খুচরা দোকানে বোতলজাত সয়াবিন সরবরাহ করেছে কোম্পানিগুলো। একই সঙ্গে আগে থেকে দেওয়া কমিশনও তুলে নিয়েছে। ফলে প্রতি লিটার তেল এখন দোকানিরা ১০৬ থেকে ১০৮ টাকায় বিক্রি করছেন। আগে প্রতি লিটালের খুচরা মূল্য ছিল ১০২ থেকে ১০৬ টাকা। অথচ আন্তর্জাতিক বাজারে দাম গত তিন মাসে তেমন বাড়েনি। যদিও কোম্পানিগুলোর দাবি, উৎপাদন ব্যয় এবং ভিটামিন-এ মেশাতে খরচ বেড়েছে। এ কারণে বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম বাড়ানো হয়েছে।

অবশ্য রাজধানীর বাজারে খোলা ভোজ্যতেলের দামে তেমন হেরফের হয়নি। খোলা সয়াবিন তেল ৮৪ থেকে ৮৬ টাকা ও খোলা পাম তেল ৭০ থেকে ৭২ টাকা ও সুপার পাম তেল ৭৪ থেকে ৭৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। মিজানসহ বিভিন্ন ব্র্যান্ডের বোতলজাত সুপার পাম তেল প্রতি লিটার ৯২ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আগে খোলা তেল বেশি বিক্রি হলেও এখন পরিবারগুলো সাধারণত বোতলজাত তেলই বেশি কেনেন।

শিল্প মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, প্রতি লিটার সয়াবিন তেলে ভিটামিন-এ মেশাতে খরচ পড়ছে ২৫ পয়সা। ২০১৫ সালে এ কারণে দাম কয়েক দফা বাড়ানো হয়। এখন এ অজুহাতে নতুন করে দাম বাড়াচ্ছে কোম্পানিগুলো।

বোতলজাত সয়াবিন তেলের বাজারের বড় অংশ এখন সিটি গ্রুপ, বাংলাদেশ এডিবল অয়েল ও মেঘনা গ্রুপের হাতে। সিটি গ্রুপের তীর ব্র্যান্ডের প্রতি পাঁচ লিটারের বোতলের সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য আগে ছিল ৫২০ টাকা, এখন সেটা ৫৩০ টাকা করা হয়েছে। এক লিটারের বোতল ১০৫ টাকা থেকে বেড়ে হয়েছে ১০৭ টাকা।

বাংলাদেশ এডিবল অয়েলের রূপচাঁদা ব্র্যান্ডের পাঁচ লিটারের বোতলের সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য ছিল ৫৩০ টাকা। নতুন দরে তা হয়েছে ৫৪০ টাকা। আর এক লিটারের বোতল দুই টাকা বাড়িয়ে ১০৮ টাকায় বিক্রি করা হচ্ছে। মেঘনা গ্রুপের ফ্রেশ ব্র্যান্ডের পাঁচ লিটারের বোতলের সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য ছিল ৫২০ টাকা, এখন তা ৫৪০ টাকা করা হয়েছে।

কারওয়ান বাজারের সোনালি ট্রেডার্সের ব্যবসায়ী আবুল কাশেম জানান, গত সপ্তাহ থেকে নতুন দামের তেল বাজারে আসছে। এছাড়া কমিশন তুলে নেওয়ায় আগের মতো নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে কমে বিক্রি সম্ভব হচ্ছে না।

তেলের দাম বৃদ্ধির বিষয়ে জানতে চাইলে বাংলাদেশ ভেজিটেবল অয়েল রিফাইনার্স অ্যান্ড বনস্পতি ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও এসএ গ্রুপের চেয়ারম্যান সাহাবুদ্দিন আলম বলেন, গত দু’সপ্তাহে আন্তর্জাতিক বাজারে সয়াবিন তেলের দাম টনপ্রতি ৩৩ ডলার বেড়েছে। আমদানি খরচও বেড়েছে। একই সঙ্গে বিদ্যুৎ বিল বৃদ্ধি এবং কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের ইনক্রিমেন্ট দেওয়ার পাশাপাশি ভিটামিন আমদানিতে ব্যয় বেশি হচ্ছে। জুনে এসব খরচ সমন্বয় করায় লিটারে দুই টাকা দাম বেড়েছে।

টি কে গ্রুপের মহাব্যবস্থাপক শফিউল আক্তার তাসলিম বলেন, কোম্পানিগুলোর উৎপাদন ব্যয় বেড়েছে, যা জুনে সমন্বয় করা হয়েছে। এই বাড়তি খরচের মূল্য সমন্বয়ের জন্য বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে অনেক আগে প্রস্তাব দেওয়া হয় এবং দাম বৃদ্ধির বিষয়টি এখন জানানো হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here