বাড়তি বিনিয়োগ প্রস্তাব মঙ্গলবার

2
4149

ডেস্ক রিপোর্ট : পুঁজিবাজারে ব্যাংক ও নন-ব্যাংকিং আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর বাড়তি বিনিয়োগ সমন্বয়ে সংশ্লিষ্ট সাবসিডিয়ারি প্রধানদের দেওয়া প্রস্তাব অর্থমন্ত্রীর কাছে জমা দিয়েছে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)।

প্রস্তাবটি অর্থমন্ত্রণালয় থেকে আগামীকাল মঙ্গলবার বাংলাদেশ ব্যাংকে পাঠানো হবে জানায় বিএসইসি।

সোমবার বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের এক প্রতিনিধি দল অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সঙ্গে দেখা করে এই প্রস্তাব জমা দেন। ওই প্রস্তাব অর্থমন্ত্রণালয় থেকে আগামীকাল বাংলাদেশ ব্যাংকে পাঠানো হবে। এদিকে সোমবার বিকেলে এনিয়ে সাবসিডিয়ারি প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রধান নিবার্হীদের নিয়ে সভা করে বিএসইসি।

সেখানে বিএসইসি পর্যায়ক্রমে ব্রোকারেজ হাউসের নতুন শাখা খোলার অনুমতি দেওয়া, মার্জিন রুলস, ১৯৯৯-এর ৩(৫) উপধারা স্থগিতের মেয়াদ বাড়ানো ও লোকসানের বিপরীতে প্রভিশনিং এর মেয়াদ বাড়ানো হবে বলে প্রধান নিবার্হীদের আশ্বাস্ত করা হয়।

এদিকে কয়েক দিন আগে এই সাবসিডিয়ারি প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রধান নিবার্হীরা সভা করে বিএসইসির কাছে পুঁজিবাজারে ব্যাংক ও নন-ব্যাংকিং আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর বাড়তি বিনিয়োগ সমন্বয়ে ২০২০ সাল পর্যন্ত সময় চেয়ে প্রস্তাব পাঠায়। একইসঙ্গে শুধু তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর বিনিয়োগকেই এক্সপোজারে গণনা করার দাবি জানায় ওই প্রস্তাবে।

প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রধানরা মনে করেন পুঁজিবাজারের চলমান পতন ঠেকাতে হলে এর বিকল্প কিছু নেই। পুঁজিবাজার ও দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের স্বার্থে তাদের এই প্রস্তাব গ্রহণের অনুরোধ জানান তারা।

তাতে জানানো হয়, সংশোধিত ব্যাংক কোম্পানি আইন অনুযায়ী, ২০১৬ সালের ২১ জুলাইয়ের মধ্যে পুঁজিবাজারে ব্যাংক ও নন-ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠানগুলোর অতিরিক্ত বিনিয়োগ প্রত্যাহার করতে হবে।

পুঁজিবাজারের বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনায় এ সময়সীমা ২০২০ সাল পর্যন্ত বাড়ানোসহ তালিকাভুক্ত নয়, এমন কোম্পানির শেয়ার, কর্পোরেট বন্ড ও তালিকাভুক্ত শেয়ারে দীর্ঘমেয়াদি-কৌশলগত বিনিয়োগও ব্যাংকের বিনিয়োগসীমার গণনা থেকে বাদ দেওয়া উচিত বলে মনে করে সাবসিডিয়ারি প্রতিষ্ঠানগুলো।

2 COMMENTS

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here