বাজার মূলধন কমেছে ৬টির, বেড়েছে ৪টি কোম্পানির

0
375

সিনিয়র রিপোর্টার : ২০১৮ সালে বাজার মূলধনে শীর্ষ স্থানে রয়েছে ১০টি কোম্পানি। মোট মূলধনের ৪৩.০৭ শতাংশ শীর্ষ দশ কোম্পানির দখলে।  তবে এক বছরে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) বাজার মূলধন কমেছে সাড়ে ৩৫ হাজার কোটি টাকা। এর মধ্যে বাজার শীর্ষ ৬টি কোম্পানির মূলধন কমেছে প্রায় ২৫ হাজার কোটি টাকা।

ডিএসই ও ইবিএল সিকিউরিটিজের তথ্যানুসারে, পুঁজিবাজারের উত্থান-পতনে কোম্পানিগুলোতে বড় ধরনের প্রভাব পড়ে। গত বছরের তুলনায় চলতি বছর পুঁজিবাজারের সূচক ও লেনদেন ছিল নিম্নমুখী। এর প্রভাবে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) বাজার মূলধন কমেছে।

২০১৮ সালে বাজার মূলধনে শীর্ষ স্থানে ছিল- গ্রামীণফোন, ব্রিটিশ আমেরিকা টোব্যাকো বাংলাদেশ লিমিটেড (বিএটিবিসি), স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড, ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন লিমিটেড। শীর্ষে থাকা কোম্পানিগুলোর মধ্যে আরো রয়েছে- রেনাটা লিমিটেড, ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশন অব বাংলাদেশ লিমিটেড (আইসিবি), ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেড, বার্জার পেইন্টস বাংলাদেশ লিমিটেড, লাফার্জ হোলসিম বাংলাদেশ লিমিটেড ও অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড।

তবে গত এক বছরে লাফার্জ হোলসিম বাংলাদেশ, অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজ, আইসিবি, গ্রামীণফোন, ব্র্যাক ব্যাংক ও স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালসের বাজার মূলধন কমেছে ২৪ হাজার ৫৫০ কোটি টাকা।

বিপরীতে বাজার মূলধন বেড়েছে ৯ হাজার ৬৯৯ কোটি টাকা। কোম্পানিগুলো হলো- ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন, বার্জার পেইন্টস বাংলাদেশ, রেনাটা ও বিএটিবিসির।

এক বছরে সবচেয়ে বেশি ৩৭ দশমিক ৮ শতাংশ বা ৩ হাজার ৬৬ কোটি টাকা মূলধন হারিয়েছে বহুজাতিক সিমেন্ট কোম্পানি লাফার্জ হোলসিম বাংলাদেশ। যেখানে ২০১৭ সালে কোম্পানিটির বাজার মূলধন ছিল ৮ হাজার ১১৮ কোটি টাকা, সেটি ২০১৮ সালে এসে দাঁড়িয়েছে ৫ হাজার ৫২ কোটি টাকায়। ডিএসইর মোট বাজার মূলধনের দেড় শতাংশ বহুজাতিক কোম্পানিটির দখলে রয়েছে।

দেশের বিস্কুট ইন্ডাস্ট্রির শীর্ষ প্রতিষ্ঠান অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজ এক বছরে ২৫ শতাংশ বা ১ হাজার ৪৪১ কোটি টাকার মূলধন হারিয়েছে। ২০১৭ সালে কোম্পানিটির বাজার মূলধন ছিল ৫ হাজার ৭৬৪ কোটি টাকা, যা ২০১৮ সালে এসে ৪ হাজার ৩২২ কোটি টাকা হয়েছে। কোম্পানিটির দখলে ছিল ডিএসইর মোট বাজার মূলধনের ১ দশমিক ৩ শতাংশ।

রাষ্ট্রায়ত্ত বিনিয়োগ প্রতিষ্ঠান আইসিবির এক বছরে মূলধন কমেছে ২৩ দশমিক ৭ শতাংশ বা ২ হাজার ৫২৪ কোটি টাকা। ২০১৮ সালে প্রতিষ্ঠানটির বাজার মূলধন দাঁড়িয়েছে ৮ হাজার ১০৭ কোটি টাকায়, যা আগের বছরে ছিল ১০ হাজার ৬৩১ কোটি টাকা। ডিএসইর মোট বাজার মূলধনের আড়াই শতাংশ ছিল আইসিবির দখলে।

দেশের শীর্ষস্থানীয় টেলিকম অপারেটর গ্রামীণফোনের বাজার মূলধন ২০১৮ সালে ২২ শতাংশ বা ১৩ হাজার ৯৭৫ কোটি টাকা কমে ৪৯ হাজার ৫৯৬ কোটি টাকায় দাঁড়িয়েছে, যা আগের বছরে ছিল ৬৩ হাজার ৫৭২ কোটি টাকা। ডিএসইর মোট বাজার মূলধনের ১৫ দশমিক ২ শতাংশই হচ্ছে গ্রামীণফোনের।

২০১৮ সালে ব্র্যাক ব্যাংকের বাজার মূলধন কমেছে ১৬ দশমিক ২ শতাংশ বা ১ হাজার ৪৯৮ কোটি টাকা। ২০১৭ সালে ব্যাংকটির বাজার মূলধন ছিল ৯ হাজার ২৭০ কোটি টাকা, যা এ বছর এসে ৭ হাজার ৭৭১ কোটি টাকায় দাঁড়িয়েছে। ডিএসইর মোট বাজার মূলধনের ২ দশমিক ৪ শতাংশ ব্র্যাক ব্যাংকের।

দেশের ওষুধ খাতের অন্যতম শীর্ষস্থানীয় কোম্পানি স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালসের বাজার মূলধন এক বছরে ৯ দশমিক ৯ শতাংশ বা ২ হাজার ৪৪ কোটি টাকা কমেছে। ২০১৭ সালে কোম্পানিটির বাজার মূলধন ছিল ২০ হাজার ৭০১ কোটি টাকা, যা ২০১৮ সালে এসে ১৮ হাজার ৬৫৭ কোটি টাকায় দাঁড়িয়েছে। ডিএসইর মোট বাজার মূলধনের ৫ দশমিক ৭ শতাংশ স্কয়ার ফার্মার।

অন্যদিকে পুঁজিবাজারে বাজার মূলধনে শীর্ষ ১০ কোম্পানির মধ্যে চারটির মূলধন গত এক বছরে ৯ হাজার ৬৯৯ কোটি টাকা বেড়েছে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ৯২ দশমিক ৬ শতাংশ বা ৬ হাজার ৫৭২ কোটি টাকা মূলধন বেড়েছে ইউনাইটেড পাওয়ারের। ২০১৭ সালে কোম্পানিটির বাজার মূলধন ছিল ৭ হাজার ৩৫৫ কোটি টাকা। ডিএসইর মোট বাজার মূলধনের ৩ দশমিক ৯ শতাংশ ছিল ইউনাইটেড পাওয়ারের দখলে।

বার্জার পেইন্টস বাংলাদেশের বাজার মূলধন বেড়েছে ৩০ দশমিক ৩ শতাংশ বা ১ হাজার ৪৪৯ কোটি টাকা। ২০১৭ সালে কোম্পানিটির বাজার মূলধন ছিল ৪ হাজার ৭৮৩ কোটি টাকা। ডিএসইর মোট বাজার মূলধনের ১ দশমিক ৯ শতাংশ বার্জার পেইন্টসের দখলে।

রেনাটার বাজার মূলধন বেড়েছে ১৬ দশমিক ৮ শতাংশ বা ১ হাজার ৩২১ কোটি টাকা। ২০১৭ সালে কোম্পানিটির বাজার মূলধন ছিল ৭ হাজার ৮৭২ কোটি টাকা। ডিএসইর মোট বাজার মূলধনের ২ দশমিক ৮ শতাংশ রেনাটার দখলে।

তামাক খাতের বহুজাতিক জায়ান্ট বিএটিবিসির বাজার মূলধন এক বছরে ৪ দশমিক ১ শতাংশ বা ৮৪০ কোটি টাকা বেড়েছে। ২০১৭ সালে কোম্পানিটির বাজার মূলধন ছিল ২০ হাজার ৪০৯ কোটি টাকা। ডিএসইর মোট বাজার মূলধনের ৬ দশমিক ৫ শতাংশ বিএটিবিসির।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here