ট্যাকনিক্যাল এনালাইসিসয়ে কোম্পানির শেয়ার বাই সেল নির্ধারণে RSI সিগন্যাল ব্যাবহার খুই জনপ্রিয় একটি টুলস। এই টুলস ব্যাবহার করে একজন বিনিয়োগকারী [বাই অথাবা সেল করার উদ্দেশ্যে] খুব সহজেই যেকোন দিনের কোম্পানির শেয়ার খুঁজে বের করতে পারেন। এ লক্ষ্যে কিছু ধাপ অনুসরন করে আজ আমরা বাই সেল নির্ধারণে RSI সিগন্যাল ব্যাবহার করে কোম্পানির শেয়ার খুঁজে বের করব।

প্রথমেই আমরা জেনে নেই RSI কি?

চার্ট এনালাইসিসের ক্ষেত্রে রিলেটিভ স্ট্রেন্থ ইনডেক্সকে (আরএসআই) একটি অন্যতম মুখ্য মোমেন্টাম ইনডিকেটর বা ওসিলেটর হিসেবে বিবেচনা করা হয়। একটি ওসিলেটরের সার্থকতা নির্ভর করে ওভারবট এবং ওভারসোল্ড অবস্থা যথার্থভাবে বিশ্লেষণের উপর। সুতরাং আরএসআই প্রয়োগ করে শেয়ারবাজার থেকে লাভবান হতে হলে একজন ব্যবহারকারীকে ওভারবট এবং ওভারসোল্ড অবস্থা সম্পর্কে পুরোপুরি ধারণা লাভ করতে হবে।

ফর্মুলা

আরএসআই = ১০০ – ১০০ / রিলেটিভ স্ট্রেন্থ (আরএস)

যেখানে আরএস = গড় লাভ / গড় লস

আরএস এবং আরএসআই এর মধ্যকার পার্থক্য নিয়ে একজন ট্রেডারের মনে প্রশ্ন আসতে পারে। আরএস হচ্ছে এমন একটি মান যা ২টি পৃথক এবং ভিন্ন মানকে আনুপাতিক হারে প্রকাশ করে। আর ওভারবট বা ওভারসোল্ড অবস্থার কারণে কোন শেয়ারের প্রাইসে পরিবর্তন এসেছে কিনা তা আরএসআই নির্দেশ করে।

আরএসআই কিভাবে কাজ করে?

ওসিলেটরগুলোকে সব সময় ০ থেকে ১০০ স্কেলে পরিমাপ করা হয়। থিয়োরি অনুযায়ী আরএসআই এর ক্ষেত্রে ৭০ পয়েন্টকে ওভারবট এবং ৩০ পয়েন্টকে ওভারসোল্ড অবস্থা হিসেবে বিবেচনা করা হয়। অবশ্য ট্রেডার নিজের ইচ্ছা অনুযায়ী মার্কেট ভেদে আরএসআই এর প্যারামিটার পরিবর্তন করে নিটে পারে। অর্থাৎ ট্রেডার চাইলে ৮০ বা ৬৫ পয়েন্টকে ওভারবট এবং ২০ বা ৩৫ পয়েন্টকে ওভারসোল্ড অবস্থা হিসেবে গণনা করতে পারে। গবেষণায় দেখা গেছে বাংলাদেশের মার্কেটের ক্ষেত্রে অনেক সময় ৬৫ পয়েন্ট ওভারবট এবং ৩৫ পয়েন্ট ওভারসোল্ড অবস্থা নির্দেশ করে।

কোন শেয়ারের ক্ষেত্রে আরএসআই যখন ৩০ লেভেল বা ওভারসোল্ড অবস্থায় চলে আসে তখন ট্রেডাররা বিনিয়োগের সুযোগ অনুসন্ধান করতে থাকে। ৩০ লেভেলকে ক্রস করে আরএসআই যখন নিচে চলে যায় তখন শেয়ারটি বাই করার জন্য মানসিকভাবে নিজেকে প্রস্তুত করে নেওয়াই শ্রেয়। পরবর্তীতে কোন ক্রমে আরএসআই যদি ৩০ লেভেলকে নিচে থেকে ক্রস করে উপরে উঠে যায় বা ওভারসোল্ড অবস্থা থেকে ওভারবটের দিকে ধাবিত হয় তাহলে তা বাই সিগন্যাল হিসেবে গণ্য করা হয়। ঠিক একইভাবে আরএসআই ৭০ পয়েন্টে চলে গেলে ওভারবট অবস্থা বোঝায় এবং আরএসআই যদি ৭০ লেভেলকে উপরে থেকে ক্রস করে নিচে চলে যায় তাহলে তা সেল সিগন্যাল হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

স্টক বাংলাদেশ স্ক্রিনার ব্যাবহার করে কোম্পানির শেয়ার বের করা

ব্যবহারকারী চাহিদার দিকে লক্ষ্য রেখে বাস্তবিক প্রয়োগের জন্য স্টক বাংলাদেশ লিমিটেড উপরে বর্ণিত স্ট্র্যাটেজিটি স্ক্রিনারে অন্তর্ভুক্ত করেছে। স্ক্রিনার ব্যবহারের মাধ্যমে খুব সহজেই ব্যবহারকারী আরএসআই দ্বারা সৃষ্ট ফলাফলগুলো পেতে পারে। আরএসআই ব্যবহারের জন্য নিম্নে প্রদত্ত লিঙ্কগুলোতে ক্লিক করুন-

https://stockbangladesh.com/screeners/rsi-sell-signal   (ওভারবট)

https://stockbangladesh.com/screeners/rsi-buy-signal   (ওভারসোল্ড)

স্টক বাংলাদেশ স্ক্রিনারের সাহায্যে আরএসআই বাই সেল সিগন্যাল স্ট্র্যাটেজি ব্যবহারের ভিডিও টিউটোরিয়াল