বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ ব্যবস্থাপনায় বেক্সিমকো

0
1780

সিনিয়র রিপোর্টার : বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ মহাকাশে সফলভাবে উৎক্ষেপণ হয়েছে। স্যাটেলাইটের মাধ্যমে বাংলাদেশের সম্প্রচার জগত ও যোগাযোগের ক্ষেত্রে বৈপ্লবিক পরিবর্তন হবে বলে প্রত্যাশা। পাশাপাশি বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের ফ্রিকোয়েন্সি বরাদ্দ ও সিগন্যাল বাণিজ্য নিয়েও চলছে নানা বিতর্ক।

সম্প্রতি নিউইয়র্কের বাংলাদেশ কনস্যুলেটে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) এক সংবাদ সম্মেলনকে কেন্দ্র করে এই বিতর্কের সুষ্টি হয়। তৈরি হয়েছে নানা ধরনের বিতর্ক।

বিভিন্ন গণমাধ্যমের কর্মীদের উপস্থিতিতে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, স্যাটেলাইট সিগন্যাল ফ্রিকোয়েন্সি বরাদ্দের দায়িত্বে থাকবে দুটি প্রতিষ্ঠান। তা হলো- বেক্সিমকো গ্রুপ ও বায়ার মিডিয়া টিভি চ্যানেল ফ্রিকোয়েন্সি বরাদ্দ ও সিগন্যাল বাণিজ্যের পুরো ব্যবসায়িক দিক উপভোগ করবে। এই দুই প্রতিষ্ঠান ছাড়া অন্য কেউ ডিটিএস প্রযুক্তির ব্যবসায় নামতে পারবে না।

এমন বক্তব্যের পরপরই সাংবাদিকের প্রশ্নবানে জর্জরিত হতে থাকেন সেখানে থাকা বিটিআরসির কর্মকর্তারা। সাংবাদিকদের নানা প্রশ্নের মুখে বিষয়গুলো তখন এড়িয়ে চেষ্টা করেন তারা।

বিভিন্ন গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে বেক্সিমকো ও বায়ারকে নিয়ে স্যাটেলাইট সম্পর্কিত যা বলা হচ্ছে, তা গুজব কি না–এমন প্রশ্নের উত্তরে বন্ধু স্যাটেলাইট কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘আমি জানি না, আমি শুনি নাই। এ রকম কিছু আমার কানে আসে নাই।’

এ পর্যায়ে বিটিআরসির চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ বলেন, সমস্ত টেলিভিশনগুলো বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটে চলে আসবে। এটির জন্য তাদের বেক্সিমকো বা বায়ার মিডিয়ার পারমিশন নিতে হবে না। শুধুমাত্র ডিটিএস সেবা দেবে এই দুই প্রতিষ্ঠান।

বিসিএসবি চালু হওয়ার আগেভাগে চুক্তি কীভাবে হয় জানতে চাইলে বিটিআরসির চেয়ারম্যান বলেন, ‘এই চুক্তি আমাদের (বিটিআরসি) এখানে হয়নি। মিনিস্ট্রি অব ইনফরমেশন থেকে এই চুক্তিটি করা হয়েছে, সেখান থেকে তাদের এই অনুমতি দেওয়া হয়েছে। আপনি যদি সঠিক জানতে চান এই চুক্তির মাধ্যমে বেক্সিমকো ও বায়ার কী পাবে, সেটা আপনি ওদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেন।’

তিনি বলেন, ‘তারা কী মারফতে বা কীভাবে লাইসেন্স পেয়েছে, তা আমি বলতে পারব না। আমার ধারণা, সরকার আইনকানুন মেনেই তাদের এই অনুমতি দিয়েছে। তথ্য মন্ত্রণালয় তাদের এই লাইসেন্স দিয়েছে।’

কত সালের দিকে তারা এই লাইসেন্স পায় জানতে চাইলে শাহজাহান মাহমুদ বলেন, ‘আমি বলতে পারব না। আমি আসার আগে, মনে হয় এখন থেকে বছর আগে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here