ফ্যামিলি টেক্সের ভেতর-বাহির

0
2299

রাহেল আহমেদ শানু : ২০১৩ সালে প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের মাধ্যমে (আইপিও) পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়েছে ফ্যামিলি টেক্স (বিডি) লিমিটেড। বাজার থেকে ৩৪ কোটি টাকা সংগ্রহ করে দেশের উভয় স্টক এক্সচেঞ্জে শেয়ার লেনদেন শুরু করে। শেয়ার লেনদেনের শুরুতে বিনিয়োগকারীদের বেশ সাড়া যোগালেও পরবর্তীতে কোম্পানি তাদের জলে ডুবায়।

২০১৩ সালে শতভাগ বোনাস লভ্যাংশ ঘোষণা করে বিনিয়োগকারীদের বেশ আগ্রহের সৃষ্টি করেছিল। একই বছরের ২০ অক্টোবর তালিকাভুক্ত ২০৭টি কোম্পানির সঙ্গে ডিএসইএক্স সূচকভুক্ত হয়।

সে ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে পারেনি কোম্পানির কর্তৃপক্ষ। অবশেষে চলতি বছরে ৫ শতাংশ বোনাস দিয়ে ‘বি’ ক্যাটাগরী বা কূল রক্ষা করে কোম্পানিটির কর্তৃপক্ষ। কমতে থাকে কোম্পানির আয়, অন্যদিকে বাড়ে লোকসান।

কোম্পানির উদ্যোক্তাদের শেয়ার দারণের চিত্র : ডিএসই

২০১৮ সালের জুন মাসে কোম্পানির শেয়ারে চরম অনাগ্রহের সৃষ্টি হয়। তলানীতে জমতে থাকে কোম্পানির শেয়ার দর। বৃহস্পতিবার দুপুরে ডিএসইতে কোম্পানির শেয়ার প্রতি দর ছিল ৫.৭০ টাকা।

দীর্ঘ সময় চলমান ধারায় কোম্পানির মোট ৩৩ কোটি ৭২ লাখ ৯৫ হাজার ৯টি শেয়ারের মধ্যে কোম্পানির উদ্যোক্তারা মাত্র ২২.৪৩ শতাংশ শেয়ার ধারণ করেছেন। যদিও কোম্পানির উদ্যোক্তাদের ৩০ শতাংশ শেয়ার ধারণের বাধ্যবাধকতা রয়েছে।

অন্যদিকে সাধারণ বিনিয়োগকারীরা ধারণ করছেন ৭৭.৫৭ শতাংশ শেয়ার। তাদের ওপর চাপিয়ে দেয়া হয়েছে সব দায়!

কষ্টের কথা হলো- মধ্যখানে সরকার এবং প্রাতিষ্ঠানিকভাবে কেউ কোন শেয়ার ধারণ করেনি। যা একটি কোম্পানির শেয়ার দর ধরে রাখতে ভারসাম্য হিসেবে কাজ করে। পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত খুব অল্প সংখ্যক এমন কোম্পানি মেলে!

বৃহস্পতিবার দুপুরে কোম্পানির শেয়ারপ্রতি দর : ডিএসই

সরকারি এবং প্রাতিষ্ঠানিকভাবে শেয়ার ধারণ না করা সম্পর্কে জানতে চাইলে ফ্যামিলি টেক্স (বিডি) লিমিটেড কোম্পানির সিএফও যুববত মজুমদার জানান ভিন্ন রকমের তথ্য। ‘ব্যবসা বেশ ভালো চলছে’ জানিয়ে তিনি বলেন, ‘গতমাসে (মে) আইসিবি আমাদের কোম্পানির দেড় কোটি শেয়ার কিনেছে, আমরা এ বিষয়ে ডিএসইকে তথ্যও দিয়েছি’।

তবে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) ওয়েবসাইটে শেয়ার ধারণের চিত্র প্রকাশ করা হয়নি কেন? এমনটা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘কোথায় হয়তো ভুল হচ্ছে। আমরা বিষয়টি অবশ্যই দেখবো।’

শেয়ার ধারণের তথ্য প্রকাশ না করা সম্পর্কে ডিএসইতে (কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স) মঙ্গলবার সকালে জানতে চাইলে নাম প্রকাশ না করার অনুরোধে একজন বলেন, ‘তারা (কোম্পানি) আমাদের যেসব কপি (তথ্য) সরবরাহ করেছে, আমরা তাই প্রকাশ করেছি। তারপরেও বিষয়টি অনুসন্ধান করে দেখছি’। (এরপরে বিভাগ থেকে কিছু সময়ের প্রার্থনা করা হয়।)

অনুসন্ধান করে মঙ্গলবার দুপুরের পরে ডিএসই থেকে জানানো হয়, ‘কোম্পানির কর্তৃপক্ষ শেয়ার ধারণের কোন কপি আমাদের হাতে দেয়নি। আমাদের হাতে যা রয়েছে, আমরা তাই প্রকাশ করেছি’।

অন্যদিকে, শেয়ার ধারণ সম্পর্কে আইসিবির কাছে জানতে চাইলে তারাও কোন মন্তব্য করতে রাজী হননি। আরো তথ্য জানতে কোম্পানির চট্টগ্রাম অফিসের টেলিফোন নম্বরে ফোন করেও কোন সদুত্তোর মেলেনি। চিত্রটি পরিস্কার হলো না!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here