প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য ও পর্যটনের বাংলাদেশ

0
1534
বাংলাদেশে পরিচিত অপরিচিত অনেক আকর্ষনিয় স্থান রয়েছে। এদেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে যুগে যুগে ভ্রমণকারীরা মুগ্ধ হয়েছেন। এর মধ্যে প্রত্মতাত্বিক নির্দশন, ঐতিহাসিক মসজিদ এবং মিনার, পৃথিবীর দীর্ঘতম প্রাকৃতিক সমুদ্র সৈকত, পাহাড়, অরণ্য ইত্যাদি অন্যতম।
প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যের এক অনন্য বেলাভূমি বাংলাদেশ
বর্ষার ফুল কদম

বাংলাদেশের প্রত্যেকটি এলাকার রয়েছে স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্যে। দেখে নিন অপরুপ সৌন্দর্যে ভরপুর রুপসী বাংলার সেরা কিছু পর্যটন স্থানের ছবি-

দেশের দক্ষিণ-পশ্চিম প্রান্তে অবস্থিত জীববৈচিত্র্যে ভরপুর পৃথিবীর সর্ববৃহৎ ম্যানগ্রোভ বন সুন্দরবন। এই বনভূমি গঙ্গা ও রূপসা নদীর মোহনায় অবস্থিত সমুদ্র উপকূল তথা বাংলাদেশ ও ভারতের পশ্চিমবঙ্গ জুড়ে বিস্তৃত।

মাছ শিকারে প্রস্তুত সাদা বক। ধানের ক্ষেতের পাশে এভাবে বসে আছে শিকারের আশায়। বান্দরবানের লামার মংপ্রু পাড়া থেকে ছবিটি তোলা।

বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজার। প্রতিদিন অসংখ্য পর্যটক কক্সবাজারে ভ্রমণে আসছে। কক্সবাজার সৈকতে দেখা মিলবে অভাবনীয় প্রাকৃতিক সৌন্দর্য।

১৯৯৭ সালে ইউনেস্কো সুন্দরবনকে বিশ্ব ঐতিহ্য বলে স্বিকৃতি দেয়ায় সুন্দরবন এখন বিশ্ব মানবতার সম্পদ। এই বনে সুন্দরী গাছ ছাড়াও, গেওয়া, কেওড়া, বাইন, পশুর, গড়ান, আমুরসহ ২৪৫ টি শ্রেণী এবং ৩৩৪ প্রজাতির গাছ রয়েছে। পৃথিবীতে মোট ৩টি ম্যানগ্রোভ বনের মধ্যে সুন্দরবন সর্ববৃহৎ।

কক্সবাজার শহর থকে ৩২ কিলোমিটার পূর্বে ইনানি বিচ অবস্থিত। এই সৈকতের অন্যতম আকর্ষণ প্রবাল পাথর। কক্সবাজার থেকে মেরিন ড্রাইভ সড়ক দিয়ে ইনানি বিচে যেতে সময় লাগে ত্রিশ মিনিটের মত। এই রাস্তার সৌন্দর্য ভাষায় বর্ণনা করা অসম্ভব।

নৈসর্গিক সৌন্দর্যের স্থান সেন্টমার্টিন। আকাশের নীল আর সমুদ্রের নীল সেখানে মিলেমিশে একাকার, তীরে বাঁধা নৌকা, নান্দনিক নারিকেল বৃক্ষের সারি আর ঢেউয়ের ছন্দে মৃদু হাওয়ার কোমল স্পর্শ-এটি বাংলাদেশের সেন্টমার্টিন প্রবাল দ্বীপের সৌন্দর্য বর্ণনার ক্ষুদ্র প্রয়াস। বালি, পাথর, প্রবাল কিংবা জীব বৈচিত্র্যের সমন্বয়ে জ্ঞান আর ভ্রমণ পিপাসু মানুষের জন্য অনুপম অবকাশ কেন্দ্র সেন্টমার্টিন।

সিলেটের পান্তুমাই থেকে সীমান্ত রাজ্য ভারতের মেঘালয়ের ছবি

বগালেক হচ্ছে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ লেক যা সমুদ্র পৃষ্ট থেকে প্রায় ১২০০ ফুট উপরে অবস্থিত। এর আয়তন প্রায় ১৫ একর এবং গভীরতা প্রায় ১৫০ ফুট।

হামহাম জলপ্রপাত। মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার কুরমা বনবিটের গহিন অরণ্যঘেরা দুর্গম পাহাড়ী এলাকার রযেছে অপূর্ব এই জলপ্রপাত। এডভেঞ্চার প্রিয় পর্যটকদের জন্যই এই ঝর্ণা।

বান্দরবানের থানচি থেকে তোলা জলপ্রপাতের ছবি

কেবল দৃষ্টিনন্দন ঝর্ণা নয় পথের দুপাশের বুনো গাছের সজ্জা দৃষ্টি কেড়ে নেবে অনায়েসে। জারুল, চিকরাশি ও কদম গাছের ফাঁকে ফাঁকে রঙিন ডানা মেলে দেয় হাজারো প্রজাপতি।

বাংলাদেশের একমাত্র সোয়াম্প ফরেস্ট বা জলাবন রাতারগুল৷ সিলেট জেলার গোয়াইনঘাট উপজেলায় প্রায় ৩৩৮ একর জায়গাজুড়ে অবস্থিত এই বনকে ১৯৫২ সালে সংরক্ষিত বন হিসেবে ঘোষণা করে বন বিভাগ। শীতে এ বনের পানি শুকিয়ে গেলেও বছরের বাকী সময়গুলো জলমগ্ন থাকে পুরো বনটি।

রাতারগুল মাছেরও অভয়ারণ্য। ছবিতে জেলেদের মাছ ধরতে দেখা যাচ্ছে। এ বনকে কেন্দ্র করে এর আশপাশে বেশ কিছু জেলে পরিবার বসবাস শুরু করেছে।

গ্রাম বাংলার দুরন্ত শিশুর ছবি
  • গ্রন্থনা : রাহেল আহমেদ শানু

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here