পৃথক হোল কনফিডেন্সের ব্যাটারি ও ট্রান্সফরমারের ব্যবসা

0
212

স্টাফ রিপোর্টার: ২০১৭ সালে সহযোগী কোম্পানির ব্যাটারি ও ট্রান্সফরমারের ব্যবসা পৃথক করার উদ্যোগ নেয় কনফিডেন্স সিমেন্ট লিমিটেড। এজন্য কনফিডেন্স ইলেকট্রিকের কাছ থেকে ব্যাটারির ব্যবসাটি কনফিডেন্স ব্যাটারিজ লিমিটেডের কাছে হস্তান্তর করেছে কোম্পানিটি। সম্প্রতি ব্যবসা পৃথকীকরণের এ স্কিম অনুমোদন করেছেন হাইকোর্ট যা ২৮ মার্চ থেকে কার্যকর ধরা হচ্ছে।

কনফিডেন্স ইলেকট্রিক এতদিন ট্রান্সফরমার ও ব্যাটারির ব্যবসার সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিল। পৃথকীকরণের পর এখন ট্রান্সফরমারের ব্যবসা কনফিডেন্স ইলেকট্রিকের কাছেই থাকছে। তবে ব্যাটারির ব্যবসা কনফিডেন্স ব্যাটারিজের কাছে চলে যাচ্ছে।

কোম্পানির কর্মকর্তারা বলছেন, পৃথকীকরণের ফলে দুই কোম্পানি নিজেদের ব্যবসায় আগের চেয়ে আরো বেশি মনোনিবেশ করতে সক্ষম হবে। এ কোম্পানি দুটির উজ্জ্বল ব্যবসায়িক সম্ভাবনা রয়েছে যা থেকে এর শেয়ারহোল্ডাররাও লাভবান হবেন। পৃথকীকরণের পরে দীর্ঘমেয়াদে কোম্পানি দুটি থেকে তুলনামূলক বেশি রিটার্ন আসবে বলেও আশা করছেন তারা।

ব্যবসা পৃথকীকরণ স্কিম অনুসারে কনফিডেন্স ব্যাটারিজ লিমিটেডের পক্ষ থেকে কনফিডেন্স ইলেকট্রিক লিমিটেডের কাছে আনুপাতিক হারে ইকুইটি শেয়ার ইস্যু করা হবে। তবে ব্যবসা পৃথকীকরণের কারণে সহযোগী কোম্পানিতে মূল কোম্পানি কনফিডেন্স সিমেন্টের ৪৯ শতাংশ শেয়ারহোল্ডিংয়ের কোনো পরিবর্তন হবে না।

প্রসঙ্গত, এর আগে গত বছরের জুনের শুরুতে কনফিডেন্স সিমেন্টের পর্ষদ কনফিডেন্স ব্যাটারিজ লিমিটেডের ২৪ হাজার ৫০টি শেয়ারের বিপরীতে ২ লাখ ৪৫ হাজার টাকা বিনিয়োগের সিদ্ধান্ত নেয়। এ বিনিয়োগের ফলে কনফিডেন্স ব্যাটারিজে কনফিডেন্স সিমেন্টের শেয়ারহোল্ডিং দাঁড়ায় ৪৯ শতাংশে। কনফিডেন্স ব্যাটারিজে বিনিয়োগের সিদ্ধান্তের পরেই কনফিডেন্স ইলেকট্রিকের কাছ থেকে ব্যাটারি ব্যবসা পৃথক করার সিদ্ধান্ত নেয় কনফিডেন্স সিমেন্টের পর্ষদ। এজন্য কোম্পানি আইন অনুসারে ব্যবসা পৃথকীকরণের জন্য নিয়ন্ত্রক সংস্থা ও আদালতের অনুমোদন নিতে আবেদন করে কোম্পানিটি। সর্বশেষ সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগ থেকে পৃথকীকরণ স্কিম অনুমোদনের আদেশ দেয়া হয়। হাইকোর্টের আদেশের সার্টিফায়েড কপি পাওয়ার দিন থেকে অর্থাৎ গত ২৮ মার্চ থেকে ব্যবসা পৃথকীকরণ স্কিম কার্যকর ধরা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here