ডেস্ক রিপোর্টঃ  দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের পুঁজিবাজারকে বিনিয়োগের ‘স্বর্গ’ হিসেবে অভিহিত করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। স¤প্রতি দেশের অর্থনীতির গতি-প্রকৃতি নিয়ে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এমন মন্তব্য করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। প্রতিবেদন তৈরি করেছেন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ইকোনমিক অ্যাডভাইজর ড. আখতারুজ্জামান। খবর ইনকিলাবের।

প্রতিবেদনে কেন্দ্রীয় ব্যাংক দেখিয়েছে ডিভিডেন্ড ইয়েল্ড (কোম্পানিগুলোর লভ্যাংশ দেয়ার হার) ও মূল্য আয় অনুপাতে (পিই রেশিও) দক্ষিণ এশিয়ার অন্য দেশগুলোর তুলনায় বাংলাদেশের পুঁজিবাজার অনেক দূর এগিয়ে রয়েছে। তাই বর্তমান সময়ে দেশি ও বিদেশি বিনিয়োগকারীদের কাছে বাংলাদেশের পুঁজিবাজার অত্যন্ত আকর্ষণীয় অবস্থানে পরিণত হয়েছে বলে মন্তব্য করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ পর্যন্ত দেশের পুঁজিবাজারের ডিভিডেন্ড ইয়েল্ডের পরিমান ৩.৬৯। যা উপমহাদেশের বড় দুই পুঁজিবাজার ভারত ও শ্রীলংকার তুলনায় অনেকটাই বেশি। একই সময়ে ভারত ও শ্রীলংকার ডিভিডেন্ড ইয়েল্ডের পরিমাণ হয়েছে ১.৪১ ও ৩.০৪। পাশাপাশি থাইল্যান্ডের পুঁজিবাজারের ডিভিডেন্ড ইয়েল্ডের পরিমান ৩.১৯। প্রতিবেদনে কেন্দ্রীয় ব্যাংক দেখিয়েছে ডিভিডেন্ড ইয়েল্ড (কোম্পানিগুলোর লভ্যাংশ দেয়ার হার) ও মূল্য আয় অনুপাতে (পিই রেশিও) দক্ষিণ এশিয়ার অন্য দেশগুলোর তুলনায় বাংলাদেশের পুঁজিবাজার অনেক দূর এগিয়ে রয়েছে। তাই বর্তমান সময়ে দেশি ও বিদেশি বিনিয়োগকারীদের কাছে বাংলাদেশের পুঁজিবাজার অত্যন্ত আকর্ষণীয় অবস্থানে পরিণত হয়েছে বলে মন্তব্য করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

এর আগের তিন মাসে অর্থাৎ এপ্রিল থেকে ৩০ জুন, ২০১৬ পর্যন্ত দেশের পুঁজিবাজারের ডিভিডেন্ড ইয়েল্ডের পরিমাণ ছিল ৩.৭৪। একই সময়ে ভারত ও শ্রীলংকার ডিভিডেন্ড ইয়েল্ডের পরিমাণ ছিল ১.৪৪ ও ৩.০৪। উল্লেখ্য, কোম্পানির শেয়ারদরের সঙ্গে বাৎসরিক ডিভিডেন্ড দেয়ার অনুপাতকে ডিভিডেন্ড ইয়েল্ড বলে উল্লেখ করা হয়।

বাজার বিশ্লেষকদের মতে, দেশের পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করার জন্য এখনই সেরা সময়। তাই অপেক্ষাকৃত কম বিনিয়োগেই অধিক মুনাফা করা সম্ভব। বিশ্লেষকরা বলছেন, যথাযথ প্রচার-প্রচারণা ও উদ্বুদ্ধকরণ কর্মসূচির মাধ্যমে বিদেশি বিনিয়োগ বাড়ানো সম্ভব।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ইকোনমিক অ্যাডভাইজর ড.আখতারুজ্জামান বলেন, ডিভিডেন্ড ইয়েল্ড এবং পিই রেশিওতে দেশের পুঁজিবাজার অনেক এগিয়ে রয়েছে। যা দেশি ও বিদেশি বিনিয়োগকারীদের আকৃষ্ট করতে সহায়ক হবে। কারণ ডিভিডেন্ড ইয়েল্ড এবং পিই রেশিও’র হিসেবে আমাদের পুঁজিবাজারে বিনিয়োগে নিশ্চিত মুনাফা পাওয়া যাবে।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY