স্টাফ রিপোর্টার :  টানা ৩ কার্যদিবস ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতায় প্রায় ৮১ পয়েন্ট বৃদ্ধির পর আজ বুধবার  পুঁজিবাজারে প্রায় ৩৯ পয়েন্ট মূল্য সংশোধন হয়েছে। এ সময়ে ঢাকা ও চট্টগ্রাম উভয় স্টক এক্সচেঞ্জেই মূল্য সূচক ও লেনদেন কমেছে।

 সূত্র ডিএসই।

এদিন ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) ইন্ডেক্স বিগত দিনের ৫৮৩০.৭৭ পয়েন্ট থেকে শুরু করে ৫৭৯০.৭৮ পয়েন্টে শেষ হয় যা আগের দিনের তুলনায় ০.৬৮% কম

বাজার বিশ্লেষণে দেখা গেছে, আজ ডিএসইতে ৯১৪ কোটি ২৮ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে, যা গতকালের তুলনায় ৪০৬ কোটি ৩৯ লাখ টাকা কম।

বাজারে সর্বমোট ৩৩০টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার লেনদেন হয়েছে যার মধ্যে দাম বৃদ্ধি পেয়েছে ৬৫ টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার এর, হ্রাস পেয়েছে ২৩২টির আর অপরিবর্তিত ছিল ৩৩টি কোম্পানির শেয়ারের দাম। আজকের মোট লেনদেনের মূল্য দাঁড়িয়েছে ৯১৪.২ কোটি টাকায় আর মোট লেনদেন হয়েছে      ১ লক্ষ ৪৩ হাজার ৭৮০টি শেয়ার

অন্যদিকে আজ চট্টগ্রাম স্টক এক্সেঞ্জে (সিএসই) ৫৬ কোটি ৯৯ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে।

সিএসইর সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ১৬৬ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১৭ হাজার ৯৪৭ পয়েন্টে। সিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ২৮১টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৫৪টির, কমেছে ২১২টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৫টি কোম্পানির শেয়ার।

গত কয়েক দিনের ধারবাহিক উত্থানের পর বিনিয়োগকারীদের মধ্যে মুনাফা তুলে নেয়ার ঝোঁক বিরাজ করে। টানা পতন কিংবা টানা উত্থান কোনোটাই বাজারের জন্য ইতিবাচক নয়। তাই গত ৩ দিনের উত্থানের পর কিছুটা দর পতন স্বাভাবিক এবং বাজারের সুস্থ্যতার লক্ষণ। আর বাজারে এমন ধারা বিদ্যমান থাকলে বিনিয়োগকারীদের আস্থা শক্তিশালী হয়।

বিনিয়োগকারী মোশারেরফ হোসেন বলেন টানা উত্থান বা পতন উভয়ই খারাপ। বাজার হালকা কারেকশন হওয়াতে স্বস্তি অনুভাব করছি। আশা করছি খুব দ্রুত বাজার আবার ঘুরে দাঁড়াবে।

টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস অনুযায়ী মার্কেটে বেয়ারিশ ক্যান্ডেল  দেখা  দিলেও মার্কেট অপট্রেন্ডে আছে এবং মেজর রেজিস্টেন্সের উপরে অবস্থান করছে। আগামী দিন ভাল ক্রয় চাপ থাকলে আবার মার্কেট ঘুরে দাড়াতে পারে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here