স্টাফ রিপোর্টার: জাতীয় সংসদে বাজেট আলোচনায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পুঁজিবাজারের জন্য নেওয়া বিভিন্ন পদক্ষেপ তুলে ধরে বলেন, পুঁজিবাজার নিয়ে অনেক কথা হয়েছে। বাজেটে এ বিষয়ে কিছু নেই বলে অনেকে প্রশ্ন তুলেছেন। যেহেতু সুস্থভাবে পুঁজিবাজার চলছে, সেখানে করার কী আছে। পুঁজিবাজার এখন বিশ্বের বিনিয়োগের গন্তব্য হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে।

পুঁজিবাজারের জন্য যা যা করা দরকার তার সবই করা হয়েছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, একটি উন্নত সমৃদ্ধশালী বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে আমরা পুঁজিবাজারকে উন্নয়নের মূল ধারায় সম্পৃক্ত করার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিয়েছি, কাজ করে যাচ্ছি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের সরকার একটি শক্তিশালি পুঁজিবাজার গড়ে তোলার জন্য ধারাবাহিকভাবে পলিসি সাপোর্ট, আইনগত সংস্কার অবকাঠামো নির্মাণসহ নানাবিধ সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছে। শিল্প অবকাঠামো সেবা খাতে অর্থায়নের ক্ষেত্রে পুঁজিবাজারের অবদান দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। পুঁজিবাজারের বিভিন্ন পর্যায়ে অনিয়ম দূর করে জবাবদিহিতা ও সুশাসন নিশ্চিত করার ব্যবস্থা গৃহীত হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের প্রণীত বিধিমালার আলোকে ইতিমধ্যে ভেঞ্চার ক্যাপিটাল ও ইম্প্যাক্ট ফান্ড গঠনের জন্য বাংলাদেশে অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে উদ্দীপনা সৃষ্টি হয়েছে এবং তাদের অংশগ্রহণ বাড়ছে।

পুঁজিবাজারের উন্নয়নে যেসব কর্মসূচি নেওয়া হবে তাও তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী।

এসব উদ্যোগের মধ্যে রয়েছে- স্টক এক্সচেঞ্জগুলোতে স্মল ক্যাপ প্ল্যাটফর্মের কার্যক্রম চালু করা, নতুন ফিক্সড ইনকাম ফিন্যান্সিয়াল প্রোডাক্টসহ বন্ড মার্কেটের উন্নয়ন করা।

এছাড়াও ই-ফাইলিং থেকে সর্বস্তরে ডিজিটাল ব্যবস্থা প্রবর্তন, সার্ভেইলেন্স ও তদারিক ব্যবস্থা উন্নয়ন ও জোরদার করার মাধ্যমে পুঁজিবাজারে সুশাসন ও শৃঙ্খলা নিশ্চিত করা এবং বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষকে বিনিয়োগ শিক্ষার মৌলিক বিষয়বস্তু অবহিত করা, বিশ্ব অর্থনীতির ক্রমাগত পরিবর্তনের ফলে নিত্যনতুন বিষয়সমূহ আয়ত্ব করতে কমিশনের কর্মচারীদের দেশে-বিদেশে প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here