পাইপলাইনে ৯ কোম্পানির আইপিও

1
4943

বিশেষ প্রতিনিধি : পাইপলাইনে রয়েছে ৯টি কোম্পানির আইপিও। পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনে (বিএসইসি) চূড়ান্ত পর্যায়ে অনুমোদন দিলেই কোম্পানিগুলো পুঁজিবাজার থেকে টাকা উত্তোলন করবে। বিএসইসির বিশেষ একটি সূত্র সোমবার এই তথ্য জানিয়েছে।

৯টি কোম্পানির মধ্যে আরিয়ান কেমিক্যাল বাদে বাকী ৮টি কোম্পানি প্রিমিয়ামসহ টাকা তোলার জন্য আবেদন করেছে বিএসইসির কাছে। এ কোম্পানিগুলোর সব ধরনের তথ্য নেওয়া শেষ করেছে বিএসইসি। এখন শুধু কমিশন সভায় পাশ করা বাকী।

কোম্পানিগুলো হলো- আমান ফিড, রিজেন্ট টেক্সটাইল ও লির্ডস কর্পোরেশন, ডরিন পাওয়ার ও কেডিএস এক্সোসরিজ, এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্স, আফতাব হ্যাচারি, আরিয়ান কেমিক্যাল ও সিমটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ।

আমান ফিড, রিজেন্ট টেক্সটাইল ও লির্ডস কর্পোরেশন কোম্পানির ইস্যু ম্যানেোর হিসেবে রয়েছে লংঙ্কাবাংলা। ডরিন পাওয়ার ও কেডিএস এক্সোসরিজ -এর ইস্যু ম্যানেজার হিসেবে রয়েছে অ্যালায়েন্স।

ত্রি-পল এ’র কাছে রয়েছে এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্স ও আফতাব হ্যাচারি। সোনালী  ইনভেস্টমেন্টের হাতে রয়েছে আরিয়ান কেমিক্যাল। একই সঙ্গে আইডিএলসি, এএফসি ক্যাপিটাল ও ইম্পেরিয়াল যৌথভাবে ইস্যু ম্যানেজার হিসেবে সিমটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ -এর জন্য কাজ করছে।

সূত্র জানায়, কমিশন সভায় পাশ হলেই কোম্পানিগুলো প্রাথমিক গণপ্রস্তাবে (আইপিও) মাধ্যমে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে টাকা তুলতে পারবে।

আমান ফিড : কোম্পানিটি ২ কোটি শেয়ার ছেড়ে বাজার থেকে ৭২ কোটি টাকা সংগ্রহ করতে চায়। এ জন্য কোম্পানিটি প্রিমিয়ামসহ ৩৬ টাকার জন্য আবেদন করেছে বিএসইসির কাছে। সর্বশেষ হিসাব অনুযায়ী কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ৪ টাকা ৮৯ পয়সা।

রিজেন্ট টেক্সটাইল : বস্ত্র খাতের হাবিব গ্রুপের রিজেন্ট টেক্সটাইল বাজার থেকে ১২৫ কোটি টাকা সংগ্রহ করতে চায়। এর মাধ্যমে তারা বাজারে ৫ কোটি শেয়ার ছাড়তে চায়। প্রিমিয়ামসহ তাদের অফার মূল্য আসতে পারে ২৫ টাকা। সর্বশেষ আর্থিক হিসাব অনুযায়ী কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২ টাকা ৯২ পয়সা। আর শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভি) হয়েছে ৩১ টাকা ১৭ পয়সা।

লির্ডস কর্পোরেশন : পুঁজিবাজারে আসছে আইটি কোম্পানি লির্ডস কর্পোরেশন। কোম্পানিটি বর্তমানে বিভিন্ন ব্যাংকের এটিএম সেবা দিয়ে থাকে। এ কোম্পানিটি বাজারে ১ কোটি ৬৫ লাখ শেয়ার ছাড়বে। এর মাধ্যমে তারা বাজার থেকে ৩৬ কোটি ৩০ লাখ টাকা তুলতে চায়।

কোম্পানিটি ২২ টাকা দরে বাজারে শেয়ার বিক্রি করবে। সর্বশেষ আর্থিক হিসাব অনুযায়ী কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২ টাকা ৭৭ পয়সা। আর শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভি) হয়েছে ১৭ টাকা ৮০ পয়সা।

 ডরিন পাওয়ার জেনারেশন : কোম্পানিটি বাজার থেকে প্রায় ৬২ কোটি টাকা সংগ্রহ করতে চায়। কোম্পানিটি ১০ টাকা অভিহিত মূল্যের সঙ্গে ২১ টাকা প্রিমিয়ামসহ ৩১ টাকা দরে শেয়ার বিক্রির জন্য আবেদন করেছে বিএসইসির কাছে। বিএসইসির অনুমোদন পেলে এ কোম্পানিটি বাজার থেকে টাকা তোলার কাজ শুরু করবে।

কোম্পানিটির সর্বশেষ হিসাব অনুযায়ী শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ২ টাকা ৯৫ পয়সা। একই সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য বা এনএভি হয়েছে ৩৪ টাকা ৮৭ পয়সা।

অ্যালায়েন্সের হাতে থাকা আরেকটি কোম্পানি হলো- কেডিএস এক্সেসরিজ। কোম্পানিটি বাজার থেকে ২৪ কোটি টাকা সংগ্রহ করতে চায়। কোম্পানিটি ১০ টাকা অভিহিত মূল্যের সঙ্গে ১০ টাকা প্রিমিয়ামসহ ২০ টাকা দরে শেয়ার বিক্রি করতে চায়।

কোম্পানিটির সর্বশেষ হিসাব অনুযায়ী শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ২ টাকা ১৪ পয়সা। একই সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য বা এনএভি হয়েছে ১৯ টাকা ৬৩ পয়সা।

এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্স : বাজার থেকে প্রায় ৪৩ কোটি ৪৬ লাখ টাকা সংগ্রহ করতে চায়। তবে সব কিছুই নির্ভর করবে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) অনুমোদনের উপর। কোম্পানিটি ১০ টাকা অভিহিত মূল্যের সঙ্গে ১০ টাকা প্রিমিয়ামসহ ২০ টাকা দরে শেয়ার বিক্রির জন্য আবেদন করেছে বিএসইসির কাছে।

কোম্পানিটির ২০১২ সালে শেয়ার প্রতি আয় ছিল ২ টাকা ৯৫ পয়সা ও ২০১৩ সালে তা হয়েছে ২ টাকা ৬২ পয়সা। একই সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য বা এনএভি ছিল ১৬ টাকা ৬১ পয়সা ও ১৬ টাকা ৪৭ পয়সা।

এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্স শেয়ারহোল্ডাদের ২০১১ সালে ২০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছিল। ২০১২ সালে এর পরিমাণ ছিল ২৪ শতাংশ। এর মধ্য ১২ শতাংশ নগদ ও ১২ শতাংশ বোনাস। ২০১৩ সালে দিয়েছে ২০ শতাংশ। এর পুরোটাই নগদ।

যোগাযোগ করা হলে এএএ ফিন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেডের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক ওবায়েদুর রহমান বলেন, আমরা  বর্তমানে ৩টি কোম্পানি আইপিওর মাধ্যমে বাজারে আনার জন্য কাজ করছি। এদের মধ্যে এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্সের কাজ শেষ পর্যায়ে। এখন শুধু কমিশনের অনুমোদন পেলে কোম্পানিটি বাজার থেকে মূলধন সংগ্রহ করতে পারবে। বাকী দুটি কোম্পানি বাজারে আনার প্রক্রিয়া চলছে।

এদিকে আরিয়ান কেমিক্যাল এক কোটি ৫০ লাখ শেয়ার ছেড়ে বাজার থেকে ১৫ কোটি টাকা সংগ্রহ করতে চায়।

সিমটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ : কোম্পানিটি ১৫ টাকা প্রিমিয়ামে শেয়ার বিক্রির আবেদন করেছে। ১৫ টাকা প্রিমিয়ামসহ শেয়ারের প্রস্তাবিত বিক্রি মূল্য ২৫ টাকা। বিএসইসি অনুমোদন পেলে এ কোম্পানি তিন কোটি শেয়ার ইস্যু করবে। আর এর মাধ্যমে বাজার থেকে সংগ্রহ করবে ৭৫ কোটি টাকা।

এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে এএফসি ক্যাপিটালের প্রধান নির্বাহী মাহবুব এইচ মজুমদার বলেন, আমরা বিএসইসিতে প্রতিষ্ঠানটির আইপিওর প্রসপেক্টাস জমা দিয়েছি। কমিশনের অনুমোদন পেলে কোম্পানিটি বাজার থেকে মূলধন সংগ্রহ করতে পারবে।

1 COMMENT

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here