শ্যামল রায়ঃ মোঃ শিমুল পারভেজ শেয়ার বাজারে একজন ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারী। এন এল আই সিকিউরিটিজে বিনিয়োগ করছেন দীর্ঘদিন ধরে। এই মূহুর্ত্যের বাজার পরিস্থিতি নিয়ে কথা হল স্টক বাংলাদেশের সাথে।

বাজারে কিছুদিন কারেকশন থাকলেও এই মূহুর্তে ভালই মনে হচ্ছে। অনেকদিন ধরে বাজার ভাল হবার চেষ্টা করেও পারছে না। এর অনেকগুলো কারনও ছিলো। একটার পর একটা ইভেন্টের কারণে মার্কেট ভাল হতে পারেনি। তবে এখন আশা করা যাচ্ছে, মার্কেট বোধহয় ভাল হবে।

যে সমস্ত বিনিয়োগকারী ধারাবাহিক সূচক পতনের কবলে পড়ে মার্কেট থেকে দূরে ছিল তারা আবার বাজারে ফিরতে শুরু করেছে। ঈদের পর বেশ টাকার অংকেও লেনদেনের পরিমান বেড়েছে। বিনিয়োগকারীরা ভরসা পাচ্ছেন। তবে বেশ কিছুদিন ধরে ব্যাংকের শেয়ারে উদ্ধমূখী প্রবণতা দেখা যাচ্ছে এর কারণ ব্যাংক ৩/৪ বছর ধরে আন্ডার প্রাইসে ছিল। কম বেশী সব ব্যাংকের শেয়ারই বেড়েছে। এ বাড়াটা স্বাভাবিক। যারা হিসাব-নিকাশ করে বিনিয়োগ করে তারা ব্যাংক কিনে রেখেছিল এরই ফল স্বরুপ তারা এখন মুনাফা ঘরে তুলছে।

সিমেন্ট খাতএ সম্প্রতি বেড়েছে-কারণ হিসেবে তিনি বললেন- গত এক বছর ধরে সিমেন্ট খাত তেমনভাবে বাড়েনি তবে সিমেন্ট খাত এখন না বাড়ার তেমন তো কারন নাই। কজেই এটা এখন যথাযথ নিয়মেই বাড়ছে। তবে বস্ত্র খাত তেমনভাবে এখনও বাড়েনি মাঝখানে দু/চারদিন উর্দ্ধগতি থাকলেও আবার পড়তে শুরু করেছে। আশা করছি বস্ত্র খাত আবারও ভালো হবে।

আপনার পোর্টফোলিওর অবস্থা কেমন- জানতে চাইলে তিনি বলেন- আমি এর আগে শুধু ব্যাংক কিনে রেখেছিলাম। আমার বিশ্বাস ছিল ব্যাংক একসময় ভাল হবে। তাই হচ্ছে সুবিধা মত প্রফিট নিয়ে আস্তে আস্তে বের হচ্ছি। এই যেমন- রূপালী ব্যাংক দীর্ঘদিন ধরে ৩০/৩৫ টাকার মধ্যে ছিল। আমি কিনে অপেক্ষায় ছিলাম। সবাই আমাকে বলেছিল রূপালি ব্যাংক কোনদিন বাড়বে না। আমি হতাশ হয়ে বের হয়ে যাইনি। এখনতো অবস্থা দেখতেই পাচ্ছেন। কাজেই নিজের কনফিডেন্স থাকলে, অন্যে কে কি বলে বলুক। তাতে কিছু যায় আসে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here