নতুন বিনিয়োগকারীদের অবস্থা করুণ

0
338

স্টাফ রিপোর্টার : ধসের পর পুঁজিবাজারের তুলনামূলক কিছুটা উন্নতি হয়েছিল। নতুন করে অনেকে বিনিয়োগ করেছিলেন। ধসের পরে ক্ষতি পুষিয়ে নিতে যারা বিনিয়োগ করেছিলেন তাদের অবস্থা এখন করুণ। তাদের হাতে থাকা শেয়ারের দর এখন অনেক কম। যে কারণে লোকসান কাটিয়ে ওঠা তাদের জন্য মুশকিল। এ অবস্থা চলতে থাকলে তাদের হারানো পুঁজি ফিরে পাওয়া আরো বিপদজনক হয়ে পড়বে বলে সাধারণ বিনিয়োগকারীরা জানিয়েছেন।

অন্যদিকে, বিনিয়োগকারীদের হারানো পুঁজি ফিরে পেতে কৌশলী হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন বাজার সংশ্লিষ্টরা। তাদের অভিমত, বিনিয়োগকারীদের এখন ধৈর্য ধরতে হবে। লোকসান পুষিয়ে নেয়ার জন্য তারা লভ্যাংশ নেয়া, রাইট শেয়ারের অফার গ্রহণ করাসহ বেশ কিছু কৌশল অবলম্বন করতে পারে। এছাড়া ভালো মৌলভিত্তির শেয়ারের দর কমলে তারা এ শেয়ার কিনে সমন্বয় করতে পারে। এতে করে তাদের লোকসান কিছুটা হলেও কমে আসবে।

বাজার সংশ্লিষ্টরা বলেন, ধসের আগে ও পরে বাজার ছিল প্রতিযোগিতার। আর এই বাজারে হুজুগে বেশি দরে শেয়ার কিনে নতুন বিনিয়োগকারীরা বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এই ভুল থেকে বিনিয়োগকারীদের তারা ভবিষ্যতের জন্য শিক্ষা নিতে বলেন। তারা জানান, যথাযথ প্রশিক্ষণ না নিয়ে এসে হুজুগে বেশি দামে শেয়ার কিনে অনেক বিনিয়োগকারী পুঁজিবাজারে বড় অঙ্কের আর্থিক ক্ষতির শিকার হচ্ছে। কেউ কেউ বেশি দামে শেয়ার কিনে ইতিমধ্যে তাদের পুঁজির অর্ধেক হারিয়েছে। বিশেষ করে নতুন বিনিয়োগকারী যারা শেয়ার ব্যবসা ভালোভাবে না বুঝে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করছে তাদের একটি বড় অংশ হুজুগে বেশি দামে শেয়ার কিনে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

আমাদের দেশের পুঁজিবাজারে প্রায় ২৭ লাখের মতো বিও (বেনিফিসারি ওনার্স) অ্যাকাউন্টধারী থাকলেও মাত্র কয়েক লাখ বিনিয়োগকারী নিয়মিত লেনদেন করছে। নিয়মিত লেনদেনকারীদের একটি বড় অংশ নতুন বিনিয়োগকারী যারা হুজুগে শেয়ার ক্রয়-বিক্রয় করে থাকে। না বুঝে শেয়ার লেনদেন করায় শেয়ার ব্যবসায় নেমেই তাদের হোঁচট খেতে হচ্ছে। দেখেশুনে শেয়ার ক্রয়-বিক্রয় করছে এমন বিনিয়োগকারীর সংখ্যা খুব কম। তবে তাদের খুব একটা লোকসানে পড়তে হয় না।

এ ব্যাপারে ডিএসইর সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট মো. শাকিল রিজভী বলেন, পুঁজিবাজারে লাভ-লোকসান উভয় রয়েছে বিনিয়োগকারীদের এই বিষয়টি মাথায় রাখা দরকার। হুজুগে-গুজবে কিংবা কারো কথায় কান না দিয়ে পুঁজি বিনিয়োগ ঠিক নয়।

একই প্রসঙ্গে বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ আবু আহমেদ বলেন, বাজারে নতুন আসা বিনিয়োগকারীদের সব সময় একটি কথা স্মরণ রাখা উচিত তা হচ্ছে বুঝেশুনে বিনিয়োগ করা। কিন্তু আমাদের দেশের পুঁজিবাজারে নতুন-পুরাতন অনেক বিনিয়োগকারী রয়েছে যারা না বুঝে কিংবা অন্যের কথায় বিনিয়োগ করে। তিনি বিনিয়োগকারীদের এই মনোভাব ত্যাগ করার পরামর্শ দেন।

বাজার সংশ্লিষ্টরা বলেন, শেয়ারের দাম যখন অনেক বেশি বেড়ে যায় তখন শেয়ার কেনার চেয়ে বিক্রি করা বুদ্ধিমানের কাজ। কিন্তু যারা এটা না বোঝে, দাম বাড়লে আরও বাড়বে এই আশায় শেয়ার কেনে তারাই ক্ষতিগ্রস্ত হবে। পুঁজিবাজারে তখনই শেয়ার কিনতে হবে যখন ভালো মৌলভিত্তির শেয়ারের দাম কমতে থাকে। এই বিষয়টি সবার মাথায় থাকলে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার শঙ্কা খুবই কম। আর বর্তমান পরিস্থিতিতে বিনিয়োগকারীদের কৌশলী হওয়ার বিকল্প নেই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here