নতুন পদ্ধতিতে মূলধন তুলছে ওয়ালটন

0
865

সিনিয়র রিপোর্টার : দেশের পুঁজিবাজারে প্রথমবার ‘ডাচ-অকশন’ পদ্ধতিতে মূলধন সংগ্রহ করছে ওয়ালটন হাইটেক ইন্ডাস্ট্রিজ। দেশের প্রচলিত প্রক্রিয়ায় ইতোপূর্বে জালিয়াতি হওয়ার কারণেই এবার এমন উদ্যোগ নেয় পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা।

প্রাথমিক শেয়ারের বুকবিল্ডিং প্রক্রিয়ায় সংগৃহীত মূলধন ওয়ালটন হাইটেক ইন্ডাস্ট্রিজকে ১০০ কোটি টাকা ব্যবসা সম্প্রসারণে পঁজিবাজার থেকে উত্তোলনের অনুমতি দেয়া হয়েছে। একই সঙ্গে উত্তোলিত টাকায় ব্যাংক ঋণ পরিশোধে ব্যয় করবে কোম্পানিটি।

পুঁজিবাজারে দেয়া কোম্পানির প্রসপেক্টাসের তথ্য অনুসারে ২০১৮-১৯ অর্থবছরে মুনাফা ২৯০ দশমিক ৪ শতাংশ বেড়েছে। তুলনামূলক মুনাফা বেড়েছে এক বছরে ২৯১ শতাংশ। তবে কোম্পানিটির অধিকাংশ পণ্যের ক্রেতা একই গ্রুপের সাবসিডিয়ারি প্রতিষ্ঠান ওয়ালটন প্লাজা হওয়ার বিগত দিনের তুলনায় মুনাফা অনেক বাড়ে।

আগের বছরের চেয়ে ২০১৮-১৯ সালে প্রতিষ্ঠানটির মুনাফা ২৯১ শতাংশ বেড়েছে। এ সময়ে কোম্পানিটির মোট ৫ হাজার ১৭৭ কোটি টাকার পণ্য বিক্রি হয়েছে।

আলোচ্য সময়ে প্রতিষ্ঠানটির ১ হাজার ৩৭৬ কোটি টাকা মুনাফা হয়েছে। আগের বছর যা ছিল ৩৫২ কোটি টাকা। অথচ পণ্য বিক্রি বৃদ্ধির হার দেখানো হয়েছে ৮৯ দশমিক ৪ শতাংশ। এর আগের বছর ২০১৭-১৮ অর্থবছরে তাদের মুনাফা ৫২ শতাংশ এবং টার্নওভার ১৪ দশমিক ৪ শতাংশ কমেছিল। অন্যদিকে কোম্পানির মুনাফা বাড়লেও একই বছরে কোম্পানির ক্যাশ ১০২ কোটি টাকা কমেছে।

শতকরা হিসাবে যা ৯ দশমিক ৭৮ শতাংশ। একই সময়ে কোম্পানির বিক্রি এবং রিসিভাবল আয়ের মধ্যে ১ হাজার ১৮৪ কোটি টাকা পার্থক্য রয়েছে। বেশিরভাগ পণ্যই ওয়ালটন হাইটেক পার্কের সাবসিডিয়ারি প্রতিষ্ঠান ওয়ালটন প্লাজার কাছে বিক্রি করা হয়েছে।

কোম্পানিটির আর্থিক রিপোর্টে আরও বলা হয়, গত অর্থবছরে ওয়ালটন প্লাজার কাছে ১ হাজার ৬০২ কোটি টাকার পণ্য বিক্রি বেড়েছে হাইটেক পার্কের। শতকরা হিসাবে যা ১৩৮ দশমিক ৬ শতাংশ। একই বছরে ওয়ালটন প্লাজার কাছ থেকে প্রতিষ্ঠানটির রিসিভাবল অ্যামাউন্ট ছিল ১ হাজার ৪৮ কোটি টাকা। আগের বছর যা ছিল ৪৪০ কোটি টাকা।

কোম্পানির প্রসপেক্টাসে আরও উল্লেখ করা হয়েছে- আলোচ্য বছরে ৫ হাজার ১৭৭ কোটি টাকা টার্নওভার হয়েছে প্রতিষ্ঠানটির। আগের বছর যা ছিল ২ হাজার ৭৩২ কোটি টাকা। এর মানে- ১২ মাসের ব্যবধানে কোম্পানির টার্নওভার ২ হাজার ৪৪৪ কোটি টাকা বেড়েছে। ২০১৮-১৯ সালে ৭২ দশমিক ৫২ শতাংশ রিফ্রিজারেটর বিক্রি হয়েছে।

কোম্পানিটি বাজারে তালিকাভুক্ত হলে পুঁজিবাজারের তারল্য সংকট অনেক কাটবে বলে মনে করছেন অনেক বিনিয়োগকারী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here